শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর হাবিপ্রবির ভিসির পদত্যাগের দাবীতে সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির সংবাদ সম্মেলন

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ছাত্রীকে যৌন হয়রানী ও গৃহকর্মীর সাথে অনৈতিক সম্পর্কের দায়ে অভিযুক্ত হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিষ্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের সাময়িক বহিষ্কৃত সহকারী অধ্যাপক মো. রমজান আলীকে বাঁচাতে ইউজিসির কাছে মিথ্যাচার করে প্রতিবেন দিয়েছেন হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর আবুল কাশেম । এ ঘটনায় ইউজিসির কাছে প্রেরিত প্রতিবেদন প্রত্যাহারসহ হাবিপ্রবির ভিসি আবুল কাশেমের পদত্যাগ দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দিনাজপুর সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি।

৩০ সেপ্টেম্বর সোমবার দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন, হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসেনর কাছে রমজান আলীর বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী এক ছাত্রী পরীক্ষায় পাশের জন্য বাহিরের হোটেলে থাকার জন্য চাপ, স্ত্রীর অনুপস্থিতিতে বাড়িতে যাবার জন্য চাপ দেবার অভিযোগ করেন। এসব অনুরোধ না রাখলে পরীক্ষায় ফেল করার হুমকিও দেন হাবিপ্রবির শিক্ষক রমজান আলী। লিখিত অভিযোগের সাথে রমজান আলীর সাথে মুঠোফোনে কথোপোকথনের রেকর্ড জমা দেন ওই ছাত্রী। রমজান আলীর স্ত্রী যৌতুকের জন্য নির্যাতন এবং ছাত্রীর সাথে অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়ে অভিযোগ দিয়ে উপযুক্ত বিচার দাবী করেছিলেন। সেই সাথে রমজান আলী স্ত্রীর মামলা থেকে বাঁচতে শিক্ষা সফরের সূচী জালিয়াতির বিষয়েও অভিযোগ দিয়ে প্রতিকার চেয়েছিলো। ইউজিসির কাছে এসব ঘটনাকে মানসিক নির্যাতন বলে চালিয়ে দিয়ে ভিসি চরিত্রহীন রমজানকে বাঁচাতে যে কতটা মরিয়া তা উন্মোচন হলো। রমজান আলীর অভিযোগগুলো উচ্চ আদালতের নির্দেশে গঠিত বিশ্ববিদ্যালয় যৌন নির্যাতন অভিযোগ গ্রহণকারী কমিটিকে তদন্তের জন্য দেয়া হয়। ৭ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গত ২০১৮ সালের ২৭ মে ছাত্রীকে যৌন হয়রানী এবং গৃহকর্মীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের সত্যতা রয়েছে মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করলেও ভিসি প্রফেসর আবুল কাশেম ইউজিসির কাছে এ বিষয়গুলি উল্লেখ না করেই মিথ্যাচার করে প্রতিবেদন দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় শিক্ষক রমজান আলীকে চাকুরী থেকে চুড়ান্ত বহিস্কার এবং যতদিন পর্যন্ত চুড়ান্ত বহিস্কার না হয় ততদিন পর্যন্ত সাময়িক বহিস্কারের সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি। এরপরও ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম ও দিনাজপুর মহিলা পরিষদ আন্দোলন শুরু করে। এরই প্রেক্ষিতে গত ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই যৌন নির্যাতনের ঘটনা প্রমানীত হওয়ায় চাকুরী থেকে শিক্ষক রমজান আলীকে সাময়িক বহিস্কার করে প্রশাসন। চুড়ান্ত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য রিজেন্ট বোর্ডের সভায় বিষয়টি উত্থাপন করা হবে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার জানানো হয়। দীর্ঘ দেড় বছরে চারটি রিজেন্ট বোর্ডে কৌশলে রমজান আলীকে বাঁচাতে ভিসি আবুল কাশেম যে কলকাঠি নেড়েছেন এটি এখন পরিষ্কার।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, দিনাজপুর জেলার সর্বোচ্চ উচ্চ বিদ্যাপীট হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় যেখান থেকে অনেক তরুণ-তরুণী শিক্ষাজীবন শেষ করে দেশের উন্নয়নে ভুমিকা রাখবে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক যৌননির্যাতনের মতো নক্যারজনক ঘটনায় জড়িত থাকবে এটা কখনই দিনাজপুরবাসী সমর্থন করবে না, করতে পারে না।

তাই অতিদ্রুত রমজান আলীর চুড়ান্ত বহিষ্কারের মাধ্যমে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইউজিসির কাছে প্রেরিত প্রতিবেদন প্রত্যাহারসহ হাবিপ্রবির ভিসি আবুল কাশেমকে পদত্যাগ করে   দিনাজপুরকে কলঙ্ক মুক্ত করার জন্য সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি জোর দাবী জানাচ্ছে। অন্যথায় সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি ,মহিলা পরিষদ সহ অন্যান্য প্রগতীশীল সংগঠন হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা, ভাবমূর্তি রক্ষা তথা কলঙ্কমুক্ত করতে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ড. মারুফা বেগম, দিনাজপুর নাট্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউর রহমান রেজু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সুলতান কামাল উদ্দীন বাচ্চু, সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির সদস্য তারেকুজ্জামান তারেক, শেখ ছগির আহম্মেদ, রহমতুল্লাহ রহমত, মহিলা পরিষদের সহসভাপতি মাহবুবা খাতুন, মিনতি ঘোষ, সহ-সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারা সানু, প্রশিক্ষন ও গবেষনা সম্পাদক রুবি আফরোজ, সাংগঠনিক সম্পাদক  রুবিনা আকতার, লিগ্যাল এইড সম্পাদক জিন্নুরাইন পারু প্রমুখ।