শনিবার ২৪ অগাস্ট ২০১৯ ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর হাবিপ্রবির যৌন নির্যাতনকারী শিক্ষককে বহিষ্কার ও শাস্তির দাবীতে সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির ডাকে মানববন্ধন

জিন্নাত হোসেন, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নির্যাতনকারী শিক্ষক রমজান আলীকে বহিষ্কার ও শাস্তির দাবীসহ দেশব্যাপী শিশু-কিশোরী, নারী ধর্ষণ ও হত্যার বিচারের দাবীতে দিনাজপুর প্রেসক্লাব সম্মুখ সড়কে সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।

১৭ জুলাই বুধবার দিনাজপুর সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি সকাল ১১ টায় প্রেসক্লাবের সম্ম্ুখ সড়কে  এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচীতে সভাপতিত্ব করেন দিনাজপুর সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক মো: শফিকুল ইসলাম। উক্ত মানববন্ধনের সূচনা বক্তব্য রাখেন, ড. মারুফা বেগম সাধারণ সম্পাদক মহিলা পরিষদ,দিনাজপুর।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,সম্প্রতি দেশব্যাপী নারী ও শিশুর প্রতি উত্ত্যক্তকরণ,যৌন নিপীড়ন, ধর্ষণ, হত্যাসহ লোমহর্ষক, বর্বর নির্যাতন মহামারীর আকার ধারন করেছে। সামাজিক অবক্ষয়সহ বিচারের দীর্ঘসূত্রিতা ও বিচারহীনতার সংস্কৃতি এসব ঘটনার প্রবাহমানতা বাড়িয়ে তোলে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে প্রশাসনের পাশাপাশি সমাজের প্রতিটি মানুষের বিবেক জাগ্রত করে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। আমরা মনে করি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ছাত্র-ছাত্রীদের সুশিক্ষিত ও মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলোর কাজ করে। সম্প্রতি আমরা এর উল্টো চিত্র অবলোকন করছি দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীট হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো জায়গায় ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনা চরম আপত্তিকর ও কঠোর শাস্তিযোগ্য।

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিষ্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মো:রমজান আলী গৃহকর্মীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক এবং ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর দায়ে অভিযুক্ত,যৌতুক লোভী শিক্ষক। তদন্ত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার পরও হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন অভিযুক্ত শিক্ষক রমজান আলীকে বিভিন্ন ভাবে বাঁচানোর পাঁয়তারা করে যাচ্ছে। তাকে বাঁচাতে দুটি রিজেন্ট বোর্ডের সভায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অভিযুক্ত শিক্ষক রমজান আলীর বিষয়টি সভার আলোচ্য বিষয়ের অর্ন্তভুক্ত করেন নি।বর্তমানে ক্রমবর্ধমান নারী ও শিশু ধর্ষণ এর প্রেক্ষাপটে চিহ্নিত নিপীড়নকারীকে একটি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাবান্ধব পরিবেশ ফিরিয়ে আনা উচিত বলে আমরা মনে করি। হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিনাজপুরের গর্ব। সেই গর্বের স্থানে শিক্ষকতা পেশার সাথে কোন অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকারী যৌন হয়রানকারী, যৌতুক লোভী কোন ব্যক্তির ঠাই হবেনা । তাই অতিদ্রুত আবারও রিজেন্ট বোর্ড সভা আহ্বানের মাধ্যমে এবং সেই রিজেন্ট বোর্ডে রমজান আলীর বহিষ্কারের এজেন্ডা প্রথম এজেন্ডা হিসেবে অর্ন্তভূক্ত এবং চুড়ান্ত বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহনের মাধ্যমে  হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং দিনাজপুরকে কলঙ্ক মুক্ত করার জন্য সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি জোর দাবী জানাচ্ছে। অন্যথায় সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি মহিলা পরিষদসহ সকল সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ও দিনাজপুরবাসী কে সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবে।

বক্তাদের মধ্যে ছিলেন নাগরিক কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, দিনাজপুর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের  সহ-সভাপতি রেজাউর রহমান রেজু,প্রফেসর,কানিজ রহমান সভাপতি মহিলা পরিষদ,দিনাজপুর,প্রফেসর ড.বলরাম রায় হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম হাবিপ্রবি,প্রফেসর ড. এটি এম শফিকুল ইসলাম সাধারন সম্পাদক প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম হাবিপ্রবি,ফাতিহা ফারহানা এমি সহকারি অধ্যাপক হাবিপ্রবি,রুহুল আমীন প্রভাষক নুরজাহান কামিল মাদ্রাসা,লোকমান আলী অধ্যাপক কারেন্ট হাট কলেজ,আদর্শ ডিগ্রী কলেজের ছাত্রী সুমাইয়া,সংগীত ডিগ্রী কলেজের ছাত্র জাকারিয়া, চেহেল গাজী স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী তানিয়া আক্তার,কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী তাবাসুম,ঈদগাহ বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী সালমা প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দিনাজপুর মহিলা পরিষদের প্রশিক্ষন গবেষনা ও পাঠাগার  সম্পাদক রুবি আফরোজ।