শুক্রবার ২৭ এপ্রিল ২০১৮ ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দুই ক্রিকেটারের ১০ বছর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে পুনর্বিবেচনায় বিসিবি

২০১৭ সালের অর্থাৎ আজ থেকে এক বছর আগে এই দিনে আম্পায়ারের পক্ষপাতদুষ্ট সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে দ্বিতীয় বিভাগের ক্রিকেটে ১.১ ওভারে ৬৯ রান দেয়া তাসনীম। তার দুইদিন পরে ১১ এপ্রিল মাত্র ৪ বলে ৯২ রান দেন সুজন মাহমুদ। পরে ওই দুই ক্রিকেটারকে ১০ বছর এবং ক্লাবকে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়। তবে তাদের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিসিবি নতুন করে পর্যালোচনা শুরু করেছে।

এক বছর আগে দুই শাস্তি দেওয়ার পর বিসিবির দরবারে ওই দুই ক্রিকেটার এবং ক্লাব অনেকগুলো চিঠি দিয়েছেন। এরপর জানুয়ারিতে ফেয়ার ফাইটার্স এবং লালমাটিয়া ক্লাবের পক্ষে থেকে আবার দ্বিতীয় বিভাগ ক্রিকেটে অংশ নিয়ে চায় জানিয়ে চিঠি আসলে এই পর্যলোচনা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ বিষয়ে বিসিবির পরিচালক জালাল ইউসুফ জানান, আমরা ক্রিকেটার এবং ক্লাবের কাছ থেকে অনেকগুলো চিঠি পেয়েছি। সম্প্রতি লালমাটিয়া একটি আবেদন পাঠিয়েছে। ওই দুই দলের এক অধিনায়কের একটি আবেদন আমরা পেয়েছি। আমরা শীঘ্রই এটি নিয়ে পুনবিবেচনা করার জন্য বসবো।

ওই দুই ক্রিকেটার এবং ক্লাবের অপরাধের বিষয়ে যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় জালাল ইউসুফ তার একজন সদস্য ছিলেন।

উল্লেখ্য, আম্পায়াদের বিপক্ষে অভিযোগ আছে সেদিন ব্যাটিং করতে নামলে তারা সুজনকে বলেছিলেন দ্রুত আউট হয়ে খেলা শেষ করতে। তা না হলে তারাই তাকে আউট দিয়ে দেবেন। আম্পায়ারদের এমন অপেশাদার কথার প্রতিবাদেই সুজন বাজে বলে করে ৪ বলে ৯২ রান দেয়।
তার দুইদিন আগে দ্বিতীয় বিভাগের ক্রিকেটে ১.১ ওভারে ৬৯ রান দেয় তাসনীম।

এ ঘটনায় লালমাটিয়া ক্রিকেট ক্লাবের ওপেনিং বোলার সুজন মাহমুদ এবং ফেয়ার ফাইটার্স স্পোর্টিং ক্লাবের তাসনিমকে ১০ বছরের নিষেধাজ্ঞা দেয় বিসিবি। একইসঙ্গে লালমাটিয়া ক্লাব এবং ফিয়ার ফাইটার্স ক্লাবকে আজীবন নিষিদ্ধ করেছে বিসিবি। দুই দলের ম্যানেজার, অধিনায়ক ও কোচকে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়ে। বিতর্কিত লালমাটিয়া ক্লাব-এক্সিওম ক্রিকেটার্স ম্যাচের দুই আম্পায়ার মাত্র ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়।

৪ বলে ৯২ রান দেয়ার ঘটনায় দেশের মিডিয়ার পাশাপাশি বিশ্ব মিডিয়ায় পর্যন্ত আলোচনার ঝড় উঠেছিল। পরে আবারও এই ইস্যুতে বিশ্ব মিডিয়ায় তোলপাড় ফেলে দুই বোলারের ১০ বছরের নিষেধাজ্ঞা এবং দুই ক্লাবকে বহিষ্কার করার কারণে।

শাস্তির খবরটিও বেশ গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশ করে বিবিসি, অস্ট্রেলিয়ান টেলিগ্রাফ, ইন্ডিয়ান টেলিগ্রাফ, হিন্দুস্তান টাইমস, স্কাই স্পোর্টস, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, ইন্ডিয়া টাইমস, ইন্ডিয়া টুডে, পাকিস্তানের দ্য ডন, অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট ডট কম, নিউজিল্যান্ডের স্টাফসহ বিভিন্ন পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে। এছাড়া রয়টার্স, পিটিআই বিভিন্ন বার্তা সংস্থাও প্রকাশ করেছিল খবরটি।

আম্পায়ারস কমিটির চেয়ারম্যান শেখ সোহেল তখন বলেছিলেন, ক্রিকেট বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট করতেই এমনটা করা হয়েছে। আমরা তাই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়েছি। ভবিষ্যতে কেউ যেন এমন কিছু করার সাহস না দেখায়।