সোমবার ৮ মার্চ ২০২১ ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দেশ এগিয়ে গেলে আঘাতের আশঙ্কা বাড়ে: প্রধানমন্ত্রী

দেশ যখন এগিয়ে যেতে থাকে তখনই আঘাত আসার আশঙ্কা থাকে উল্লেখ করে তা মোকাবিলায় সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি জাতির পিতা, জাতীয় চারনেতা, ১৫ আগস্টের সকল শহিদ এবং মুক্তিযুদ্ধের শহিদ এবং নির্যাতিতা মা-বোনদের স্মরণ করে সকলকেই এ বিষয়ে একটু সতর্ক করতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় সকলের সহযোগিতায় তার সরকারের করোনা মোকাবিলার সাফল্য তুলে ধরে বলেন, ভৌগোলিক দিক থেকে ছোট হলেও জনসংখ্যার দিক থেকে বড় এই দেশে আমরা করোনা মোকাবিলা করে তাকে যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলায় আমরা যেমন নির্দেশনা দিয়েছি, প্রণোদনা দিয়েছি তেমনি ভ্যাকসিন প্রদানও শুরু করেছি, যা বিশ্বের অনেক উন্নত দেশও এখনও আনতে পারে নাই।

ভ্যাকসিন নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গবেষণা চলার সময়ই এটি আবিষ্কারের পর বাংলাদেশ যেন আগে পেতে পারে, সেজন্য আগাম অর্থ দিয়ে টিকা বুকিং করে রেখেছিলেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) অনুমতি দেয়ার পর স্বল্পতম সময়ে ভ্যাকসিন যাতে দেশের মানুষ পেতে পারে, সেই ব্যবস্থা সাফল্যের সাথে করার কারণে তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

বঙ্গবন্ধু কন্যা এ সময় দেশবাসীর প্রতি পুনরায় কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করে বলেন, তারা ভোট দিয়েছিলেন বলেই আমরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছি এবং তাদের সেবা করার সুযোগটা পেয়েছি।

তার সরকার, দল, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসন, সশস্ত্র বাহিনী এবং জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে সবাই আন্তরিকভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়াতেই দেশের কোভিড এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে অভিমত ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা বিশ্বের অর্থনীতি স্থবির হয়ে যাবার কারণে অনেক উন্নত দেশ না পারলেও বাংলাদেশ ভ্যাকসিন দিয়ে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করতে পেরেছে।

তিনি ’৭৫ পরবর্তী স্বৈরশাসনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, এদেশে গণতন্ত্র কখনো অব্যাহত ভাবে চলে নাই। জাতির পিতাকে হত্যার পর একের পর এক ‘মার্শাল ল’ এবং সামরিক শাসকরা দেশ চালিয়েছে। হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের রাজনীতিই দেশে চলেছে। এরসাথে অগ্নি সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ সবই আমাদের মোকাবিলা করতে হচ্ছে এবং এসব মোকাবিলা করেও আমরা অর্থনৈতিক অগ্রগতির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারছি এবং করোনাভাইরাস মোকাবিলাতেও আমরা সাফল্য অর্জন করেছি এবং করে যাচ্ছি, বলে জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের মানুষ যথেষ্ট সচেতন বিধায় এই করোনাভাইরাসের প্রভাব আর খুব বেশি আমাদের দেশে থাকবে না।

তিনি এ সময় ১৯৬৯ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা চলার সময় ১৬ ফেব্রুয়ারির কথা স্মৃতিচারণ করে সেই মামলার আসামি ও হত্যাকাণ্ডের শিকার সার্জেন্ট জহুরুল হকের কথা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা আগেই আমরা অনুমোদন দিয়েছিলাম আর আজকে আমরা তা উন্মুক্ত করলাম। এর বাস্তবায়নও এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। তিনি ভাষার মাসে সকল ভাষা শহিদকে স্মরণ করে বলেন, দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করায় বছরের প্রতিটি দিনই কিছু না কিছু স্মৃতি আমাদের রয়ে গেছে। কাজেই, বাংলাদেশের মানুষ ভালো থাকুক, সুস্থ থাকুক এবং স্বাধীনতার চেতনায় বাংলাদেশ গড়ে উঠুক এটাই আমাদের একমাত্র কামনা।

এর আগে ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার দলিল আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী ৫ বছর সরকারের অর্থনীতির কৌশল লিপিবদ্ধ রয়েছে এই পরিকল্পনায়।

একনেক সভায় ১৯ হাজার ৮৪৪ কোটি টাকার ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকে ১৬ হাজার ৯১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা সিলেট মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। প্রকল্পেটিতে ১৩ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা ঋণ সহায়তা দেবে এডিবি।

এছাড়াও ৫৩৪ কোটি টাকা ব্যয় বৃদ্ধি করে পায়রা সমুন্দ্র বন্দরের প্রথম টার্মিনাল নির্মাণ প্রকল্পের প্রথম সংশোধনী অনুমোদন দেয় একনেক। এতে প্রকল্পটির ব্যয় দাঁড়ালো ৪ হাজার ৫১৬ কোটি টাকা।

পরে এক ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, আগামী বৈঠকে পায়রা বন্দরের বিস্তারিত পরিকল্পনা দেখতে চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email