মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দেশ বিরোধী শক্তির ষড়যন্ত্রে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে এইচআরডব্লিউ

জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতে ষড়যন্ত্রে মেতেছে একাধিক আন্তর্জাতিক সংগঠন। সংগঠনগুলো সদ্য অনুমোদন পাওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে মিথ্যাচার ছড়াতে শুরু করেছে। এর অংশ হিসেবে ১৯ অক্টোবর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে মনগড়া রিপোর্ট প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। বাংলাদেশ সরকারকে নির্বাচনের পূর্বে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই দেশীয় কিছু ষড়যন্ত্রকারীদের তথ্যের ভিত্তিতে সংগঠনটি মিথ্যা ও মনগড়া তথ্য দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সরকারের সুনাম ক্ষুণ্ণ করে দেশের নাগরিক সমাজে বিভক্তি সৃষ্টি করতে এবং সরকারের বিরুদ্ধে সমাজের বিভিন্ন মহলকে উসকানি দিয়ে সারা দেশে অশান্তি সৃষ্টি করতেই এইচআরডব্লিউ দেশীয় ষড়যন্ত্রকারীদের সাহায্যে এমন মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেছে বলে মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিভিন্ন সূত্রের খবরে জানা যায়, সরকারকে নির্বাচনের পূর্বে জনগণের সামনে নেতিবাচকভাবে তুলে ধরতে এরইমধ্যে একাধিক সামাজিক আন্দোলনকে ইস্যু করে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়াতে তৎপর একাধিক মহল। এসব ষড়যন্ত্রে জড়িত কখনো বিএনপি, কখনো জামায়াতের নেতারা। সরকারকে জনগণের কাছে অত্যাচারী এবং শত্রু হিসেবে তুলে ধরতেও বিভিন্ন সময়ে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য এবং ছবি সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করে দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করেছে ষড়যন্ত্রকারীরা। এসব ষড়যন্ত্রের কারণে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে চরম আঘাতও এসেছে বিভিন্ন সময়ে। তাই রাষ্ট্র ও জনগণের সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে সরকার এরইমধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করেছে। এই আইন দিয়ে জনগণের নিরাপত্তা বিধান করতে চায় সরকার। সকল ধরণের মিথ্যা, প্রোপাগান্ডা, বিদ্বেষমূলক প্রচারণা ঠেকাতেই সরকার এই আইনের অনুমোদন দিয়েছে। এখানে স্পষ্ট বলা আছে, শুধুমাত্র মিথ্যা ও অপপ্রচার এবং রাষ্ট্রীয় তথ্য চুরি ঠেকাতে এমন আইন করা হয়েছে। এই আইন কোনভাবেই সংবাদ মাধ্যমের অন্তরায় নয়। সরকার গণমাধ্যমের পূর্ণ স্বাধীনতা এবং নাগরিক বাকস্বাধীনতায় বিশ্বাসী। সরকারের এই আইনের অনুমোদন দেয়ার পর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম পর্যন্ত এই আইনের সহায়তা নিয়েছেন। অথচ দেশবিরোধী কিছু শক্তি মানবাধিকার সংগঠনটিকে ভুল ও একপেশে তথ্য দিয়েছে, যার কারণে সংগঠনটি আইনটির ভালো-মন্দ যাচাই না করেই ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে করে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট হয়েছে বলেও মনে করছেন অনেকে।

এই বিষয়ে বিশিষ্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক বলেন, রাষ্ট্র প্রতিটি আইন পাশ করে তার নাগরিকদের সুযোগ-সুবিধা ও নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটিও দেশের নিরাপত্তা বৃদ্ধি, সামাজিক সম্প্রীতি রক্ষা ও অনলাইনে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র রুখে দেওয়ার জন্যই পাশ করা হয়েছে। এখানে ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ না করার বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। এই আইনটি নিয়ে এরইমধ্যে দেশি ও আন্তর্জাতিক কিছু চক্র বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। মিথ্যা ও বিকৃত তথ্য দিয়ে কোন কিছু প্রকাশ করা নিশ্চয়ই মত প্রকাশের স্বাধীনতার অংশ নয়।

আরেক সিনিয়র আইনজীবী বাসেত মজুমদার বলেন, অতীতে আমরা দেখেছি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কী রকম সব বিভ্রান্তিকর তথ্য ও ছবি দিয়ে গুজব ছড়ানো হয়েছে। এতে কিন্তু দেশের সাম্প্রদায়িকতায় বড় রকমের আঘাত এসেছিল। এসব মিথ্যা, বানোয়াট, মনগড়া গুজব ঠেকাতে এবং রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই এই আইন পাশ করা হয়েছে। এখানে ভয়ের কিছু নেই। দুঃখের বিষয় হলো- এইচআরডব্লিউ তথ্যের সত্য-মিথ্যা যাচাই না করেই অগ্রহণযোগ্য একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদন বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম ক্ষুণ্ণ করবে। নির্বাচনের পূর্বে দেশ ও সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে একটি কুচক্রী মহল মানবাধিকার সংগঠনকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। সবাইকে এই ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সচেতন হতে হবে।