মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দ্বিতীয় স্যাটেলাইটের জন্য স্লট চেয়েছে বাংলাদেশ

বঙ্গবন্ধু- ১ এর সফল উৎক্ষেপণের পর বঙ্গবন্ধু- ২ নিয়েও কাজ শুরু করে দেয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু- ১ এর মাধ্যমে বাংলাদেশ ৫৭তম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-২ এর জন্য আন্তর্জাতিক টেলি কমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ)-এর কাছে মহাকাশে আরও চারটি স্লট চেয়েছে বাংলাদেশ। ১২মে যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে সফল উৎক্ষেপণের পর বঙ্গবন্ধু- ২ নিয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয় হয়।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশ দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের লক্ষ্যে যথাযথ অরবিটাল স্লট পেতে প্রক্রিয়া শুরু করেছে। বঙ্গবন্ধু -২ এর জন্য বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড ৬৯ ডিগ্রি পূর্ব, ৭৪ ডিগ্রি পূর্ব, ১০২ ডিগ্রি পূর্ব এবং ১০২ ডিগ্রি পূর্ব-এর জন্য আইটিইউ’র কাছে আবেদন করেছে। এই স্লট প্রাপ্তি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। স্লট প্রাপ্তির জন্য আবেদন করার পর স্ক্রিনিং ও হিয়ারিং এবং অনেক দেশের আপত্তি নিষ্পত্তির পর আইটিইউ অরবিটাল স্লট বরাদ্দ দেয়। একই সময়ে বিভিন্ন দেশ সংশ্লিষ্ট স্যাটেলাইটের ফুট-প্রিন্ট তাদের ফ্রিকোয়েন্সিতে জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে। এজন্য স্লট বরাদ্দের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সময়ের প্রয়োজন হয়।

বর্তমানে বঙ্গবন্ধু- ১ স্যাটেলাইটটি মহাকাশে ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব জিও স্টেশনারি স্লটে অবস্থান করছে। স্যাটেলাইটটি সার্কভুক্ত দেশসমূহসহ ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিয়ানমার, তাজিকিস্তান, কিরঘিজস্তান, উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং কাজাখস্তানের অংশবিশেষ কাভার করে। অবস্থানগত কারণে ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, ভারত, শ্রীলঙ্কা, নেপাল ও ভুটানে এটির কাভারেজ তুলনামূলকভাবে একটু বেশি শক্তিশালী। এজন্য এই ছয়টি দেশকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এক সময় বাংলাদেশকে অন্য দেশ থেকে স্যাটেলাইট সেবা নিতে হতো এবং এর জন্য প্রতিবছর সরকারি খাত থেকে খরচ হতো। বর্তমানে বাংলাদেশ অন্য দেশকে সেবা প্রদানের মাধ্যমে আয় করছে এবং কমছে দেশের ব্যয়। এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা করছেন- সংশ্লিষ্ট সকলে।