শুক্রবার ২২ জুন ২০১৮ ৮ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ধর্ষিত শিশুদের কি হবে স্বাধীন বাংলায়?

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম সাগরঃ প্রতিদিনের পত্রিকা খুলে শিশু ধর্ষণের মূখরোচক খবর দিয়েই যার শিরোনাম, কোথাও প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী ধর্ষন, কোথাও গৃহকর্তা কর্তৃক কাজের বুয়া ধর্ষণ,এভাবেই শিশু ধর্ষনের মতো অপরাধ দিনদিন বেড়েই চলেছে। যে সমাজে একটি মেয়ে স্বাধীন ভাবে চলতে পারেনা, এটাই কি লাখো শহীদের তাজা  রক্ত দানের প্রতিদান? এটাই কি ত্রিশ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জন করা স্বাধীনতা ? আর  তাকেই আমরা বলে থাকি স্বাধীন বাংলার  সুসিল সমাজ ? যে সমাজের একটি মেয়ে, যে নিজের শরীর সম্পর্কে এখনো বুঝতে শেখেনি। শেখেনি স্কুলের বই গুছাতেও। মায়ের হাত ধরে হাটা শেষ হয়নি এই চতুর্থ শ্রেনীতে পড়–য়া মেয়েটির। যে মেয়েটি এখনো বইয়ের ব্যাগ বহন করতে খেতে হয় হিম শিম আর সেই মেয়েটি নাকি মা হতে চলেছে। এ নিয়ে এলাকায় তোড়পাড় সৃষ্টি হয়েছে। বাড়ির পার্শ্বে কলেজ পড়–য়া এক তরুনের কাছে উন্নত শিক্ষার জন্য এই মেয়েটিকে প্রাইভেট পড়তে পাঠান শিশুটির মা-বাবা । আর সেই ১২ বছরের মেয়েটিকে ধর্ষিত হতে হয় প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে। বর্তমানে এই শিশুটি এখন চার মাসের অন্তঃসত্তা। সম্প্রতি দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার একটি ইউনিয়নে এ ঘটনাটি ঘটেছে। দিনমুজুর পরিবারের দুই বোন এবং ১ ভাইয়ের মধ্যে ধর্ষিত মেয়েটি সবার বড়। পরিবারের অভিযোগ কলেজ পড়–য়া প্রতিবেশী এক তরুনের কাছে প্রাইভেট পড়তে গিয়ে তার কাছেই ধর্ষণের শিকার হয় শিশুটি। এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা গত সোমবার নবাবগঞ্জ থানায় ঐ কলেজ পড়–য়া তরুনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। গত বৃহস্পতিবার শিশুটির ডাক্টারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। চিকিৎসকেরা সাংবাদিকদের বলেন, এ অবস্থায় ধর্ষিতার ভ্রুণ নষ্ট করাইতে গেলে দীর্ঘমেয়াদি শারীরিক সমস্যাসহ ধর্ষিতার মৃত্যু ঝুঁকি রয়েছে। মামলা, পরিবার এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিশুটি গ্রামের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেনীর শিক্ষার্থী।  সে প্রতিবেশী কলেজ পড়–য়া এক তরুনের কাছে প্রাইভেট পড়তে যেত। একা প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগ নিয়ে ঐ যুবক বিভিন্ন প্রকার ভয় ভিতি দেখিয়ে গত সেপ্টেম্বরে ধর্ষণ করে। ধর্ষক শিশুটিকে বিষয়টি কাউকে না জানানোর হুমকি দিয়েছিল, আর বলে ছিল যদি এই বিষটি কেউ জানতে পারে তাহলে তোকে জবাইকরে ফেলবো। পরে আবারো কয়েক বার ধর্ষণের শিকার হয় শিশুটি।মৃত্যুর ভয়ে বিষয়টি কাউকে বলতে পারেনি শিশুটি। আর ধর্ষিত শিশুটি ঐ পাষন্ডের অত্যাচার এ ভাবেই সয়ে যাচ্ছিল। এ ভাবে চলতে চলতে শিশুটি  ২৬ ডিসেম্বর১৭ ইং তারিখে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তখন স্থানীয় চিকিৎসক শিশুটির অবস্থা বেগতিক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভালো  চিকিৎসকের পরামর্শে তার আলট্রাসনোগ্রাম করানো হলে ফলাফল আসে ১২ বছরের শিশুটি চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা । তখন শিশুটি ভয়ে ভয়ে পরিবারকে ঘটনা খুলে বলে যে ,আমাকে ঐ লোকটা এই এই করেছে। জিজ্ঞেস করলে সে জানায় তার প্রাইভেট শিক্ষকের কথা।
এ ঘটনায় লোকলজ্জার কারনে বাড়ী থেকে বের হতে পারছে না শিশুটি,বন্ধ হয়ে গেছে স্কুলে যাওয়া। সামাজিক ভাবে প্রায় এক ঘরে হয়ে পড়েছে এই পরিবারটি। গত কাল শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় অভিযুক্ত ধর্ষকের বাড়ী তালাবদ্ধ। ঐ কলেজ পড়–য়া তরুনের  বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় ঐ বাড়িটির উপর নিয়োমিত নজর দারি চালাচ্ছে পুলিশ।

সরে জমিনে গিয়ে জানা যায় থানায় মামলা হওয়ার কারনে অভিযুক্ত তরুন সহ পরিবারের সকল সদস্য পালিয়ে গেছে। অভিযুক্ত ও তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাঁদের ব্যবহৃত দুটি নাম্বার বন্ধ পাওয়া যায়। উক্ত ইউনিয়নের ইউপি সদস্য বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন, ঐ তরুনের বিরুদ্ধে ইতি পূর্বেও বিভিন্ন ধরনের অনৈতিক কাজের অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের ( মা ও শিশু স্বাস্থ্য) চিকিৎসক ডাক্টার মোছাঃ তাহেরা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, এ অবস্থায় ভ্রুণ নষ্ট কিংবা সন্তান প্রসবে ঝুঁকি রয়েছে। যদি এ ধরনের কোন একটা করা হয় তাহলে শিশুটির মৃত্যুও হতে পারে। তাছাড়াও মেয়েটি বেঁচে থাকলেও এ বয়সে সন্তান প্রসবের কারনে নানা ভাবে শারিরিক সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।
এ ব্যাপারে নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সুব্রত কুমার সরকার বলেন, আমি অভিযুক্তকে গ্রেফতার করার জন্য বার বার পুলিশ পাঠাচ্ছি গ্রেপ্তারের সর্বাতœক চেষ্টা চলছে। মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এস,আই শাহীন বলেন,ভিকটিমের পরিবার অত্যন্ত অসহায় এবং গরীব। তবে অভিযুক্ত যেখানেই থাকুক না কেন,ধরা তাকে পড়তেই হবে।