বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ধানে ব্লাস্ট পোকার আক্রমণে দিশেহারা দিনাজপুরের কৃষক

দিনাজপুর প্রতিনিধি : ‘দুর থেকে দেখে মনে হচ্ছে যেন পেকে গেছে আমন ধান। কিন্তু কাছে গেলে অন্য চিত্র। ধান না পাকতেই শুকিয়ে বিবর্ণ হয়ে গেছে আমন ধানের গাছ, ধান ক্ষেতে ধানের শীষ দাঁড়িয়ে থাকলেও ধানের ভেতর নেই কোনো চাল। দাঁড়িয়ে আছে শুধুমাত্র চিটা ধানের ধানের শীষ’। ধান পাকার পূর্ব মুহূর্তে ব্লাস্ট রোগ ও কারেন্ট পোকার আক্রমণে আমন ধান ক্ষেতের এমন অবস্থা হয়েছে ধানের জেলা দিনাজপুরে। এতে উদ্বিগ্ন কৃষকরা।

বাজারে দাম না পাওয়ায় বেশ কয়েক বছর থেকেই ধান আবাদ করে লোকসান গুণ ছিল কৃষক। অন্য কোনো পেশা বা অন্য কোনো ফসল আবাদের তেমন সুযোগ না থাকায় বাধ্য হয়েই তারা ধান আবাদ করে আসছে। কিন্তু এবার আমন সংগ্রহ অভিযানে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ ধান কেনার ঘোষণায় আশার আলো দেখতে শুরু করে এ অঞ্চলের কৃষকরা। ধান আবাদ করে অতীতের লোকসান পুষিয়ে নেওয়ার স্বপ্নও দেখেন তারা। কিন্তু এরই মধ্যে ঠিক ধান পাকার পূর্ব মুহূর্তে সেই স্বপ্নে বাঁধ সেজেছে আমন ক্ষেতের রোগ-বালাই। তাদের স্বপ্নের সেই সোনালী আমন ক্ষেতে নতুন করে বাসা বেধেছে ব্লাস্ট রোগ আর কারেন্ট পোকা। এতে উদ্বিগ্ন এই জেলার কৃষকরা। 

কৃষকরা জানান, কষ্ট আর পরিশ্রমের ফসল যে মুহূর্তে তারা ঘরে তুলবেন, তার ঠিক এক মাস আগেই আমন ক্ষেতের এই অবস্থায় আবারো লোকসান গুণতে হবে তাদের। এই ক্ষতি কিভাবে পুষিয়ে নেবেন-এমন চিন্তায় উদ্বিগ্ন এলাকার কৃষকরা। ফসল রক্ষায় বিভিন্ন কীটনাশক ও ওষুধ দিয়েও কাজ হচ্ছে না বলে জানান কৃষকরা। 

কৃষকরা জানান, তাদের এমন অবস্থা হলেও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা এলাকায় আসছেন না। পরামর্শ তো দূরের কথা খোঁজও নিচ্ছেন না। এই অবস্থায় স্থানীয় কীটনাশক দোকানদারদের কাছ থেকেই পরামর্শ নিয়ে আমন ক্ষেতে কীটনাশক ও ওষুধ প্রয়োগ করছেন তারা।  

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, কৃষিবিদ মো. মাহবুবুর রহমান বলছেন অন্য কথা। ব্লাস্ট রোগ দেখা দিলেও তেমন ব্যাপক নয়। আর ব্লাস্টসহ অন্যান্য বালাই দমনে কৃষকদের সচেতন করতে কৃষকদের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করছেন তারা। 

দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় এবার ২ লাখ ৫৯ হাজার ৩৩ হেক্টর জমিতে আমন ধান আবাদ করা হয়েছে। এরমধ্যে ইতোমধ্যে আগাম জাতের ১০ শতাংশ ধান কেটে ফেলেছে কৃষকরা। অবশিষ্ট ৯০ শতাংশ ধান উঠতে আরও সময় লাগবে প্রায় এক মাস।