বৃহস্পতিবার ২৪ মে ২০১৮ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নতুন বছরের চাপ ঘাড়ে নেয়ার জন্য আমাদের শিশু শিক্ষাকে প্রস্তত করি

হাজারও সমস্যার ভেতর নিরন্তর খাবি খেতে থাকা একটা প্রজাতি আছে সমাজে। ভাষাত্ববিদরা কোন বিবেচনায় তাদের এমন নাম দিয়েছেন জানিনা, কিন্তু বিত্তের ঠিক মধ্যে না থেকেও তাদের নাম মধ্যবিত্ত। এটা একধরনের উপহাসও হতে পারে। এরা নাকি উত্তম অধম কারো সাথেই চলতে পারেনা। তফাতে থেকে একা একাই চলে। চলুক। এটা আমার আজকের বিষয় নয়। আজকের এ লেখা আগাতে থাকবে মধ্যবিত্তের শিশু-শিক্ষাকে সাথে নিয়ে।

প্রাথমিক সমাপনীর ফল বেড়িয়েছে। মধ্যরাতে বন্ধুর ফোন। স্ক্রিনে নাম ভেসে উঠতেই লজ্জ্বায় শামুক হয়ে গেলাম,
-স্যরি দোস্ত ফোনটা আমারই করা উচিৎ ছিলো। বাচ্চার রেজাল্ট কি?
মিনিট দেড়েকের তোলপাড় খিস্তি শেষে বন্ধুর গলা কিছুটা খাদে নামতেই আবার জিজ্ঞেস করি,
-কি রে ফেল!
-ওই ফেলই।
নচিকেতার খুব পরিচিত একটা গানের সাথে আমার বন্ধুর পারিবারিক গল্পের বেশ কিছুটা মিল আছে। ওই যে- ছেলের পরীক্ষা মানে মা বাবার অগ্নি পরীক্ষা। “চুকে যায় জীবনের দাম্পত্যের সুখ, গ্রামদেশে বিয়ে করা বাবা আনে হাতে ধরা মায়েদের জন্য ইংরেজী ওয়ার্ড বুক…।”
-অাচ্ছা বলতো যে বাচ্চা অংকে আর ইংরেজীতে একশ পায় সে বাংলায় তিরাশি পায় কিভাবে? একজন শিক্ষক একটা ছোট্ট বাচ্চার সাথে এরকম অবিচার কিভাবে করতে পারে!
গড় তিরানব্বই পারসেন্ট মার্ক পাওয়া বাচ্চার সাথে তিরাশি একদমই বেমানান! ওপাশে দেখতে না পেলেও এ পাশে আমি অসন্তোষে ক্রমাগত মাথা দোলাই! কিন্তু এরকম দুর্বোধ্য আর উত্তর না জানা প্রশ্নের মুখে পড়ে আমি কি বা বলতে পারি!
-মামলা কর।
সহজ সমাধানের পথ দেখিয়ে দিলাম।

ইদানিং আমাদের আড্ডাগুলো আর বছর পঁচিশেক আগেরগুলোর মত জমে না। তখন কবরী ববিতা শ্রীদেবী হেমা বা গুরু আজম খানদের কি প্রবল উপস্হিতি থাকতো সেসব আড্ডায়! এখন তাদের জায়গার আংশিক দখল নিয়েছেন হাসিনা খালেদা রহিঙ্গা ট্রাম্প ক্রিকেট আর বাকীটা জুড়ে শুধুই মধ্যবিত্তের শিশুশিক্ষা। আমাদের ঘরানার প্রায় সবারই বাবা ছিলেন নিচুস্তরের মধ্যবিত্ত। আমরা এখন প্রায় সবাই পাকা মধ্যবিত্ত অথবা একটু উঁচুস্তরের মধ্যবিত্ত। পাঁচটাকা চালের কেজির বিপরীতে ব্যাচে পড়ানো আমাদের প্রাইভেট শিক্ষক নিতেন মাসে পঞ্চাশ এখন চাল পঞ্চাশের বিপরীতে শিক্ষক নেন হাজার। তখন ওয়ান ইসটু টেন এখন ওয়ান ইসটু টুইন্টি। ঠ্যালা সামলাও মধ্যবিত্ত।

ধানভাঙ্গা বাদ দিয়ে বরং শীবের গীতেই থাকি। গত সপ্তাহে অনেকগুলো পুরনো বন্ধু আমরা একসাথে হয়েছিলাম। ভার্চুয়াল সাক্ষাৎটা গোনায় না ধরলে কারও কারও সাথে দেখা হলো সিকি শতাব্দী পর। একসাথে দু’রাত থাকলাম। আগের মত জমেনা। একসময় ফোর স্পেড’র এগেইন্সটে ফোর নো ট্রাম্প ডাকলেই কি উত্তেজনা! এবার এলএস কলেও ডাবল পেলাম না। আলাপে আলাপে পুরানো বান্ধবী আর সুন্দরী জুনিয়ররা এলো। উহু, জমেনা। পাশ করার পরে আমাদের কারও কারও দাঁড়াতে অনেক সময় নিয়েছিলো। অনেকেই উত্তর প্রজন্ম নিয়ে এখনও প্রাথমিক আর মাধ্যমিকের গন্ডিতেই ঘুরপাক খাচ্ছি। পিইসি আর জেএসসি। আহা,এইবার একদম ঠিকঠাক জমে গেল! সে কি উত্তেজনা! সেই আগের মত। ভর্তি পরীক্ষা, কোচিং, প্রাইভেট টিউটরের বেতন, সৃজনশীল, জিপিএ, প্রশ্নফাঁস, শিক্ষামন্ত্রী, বিজ্ঞান, মানবিক, বানিজ্য টপিকের পর টপিক। থামতেই চায়না। হাহা মধ্যবিত্ত! প্রসঙ্গ মনের মত হলেই পোলার মায়ের মাঝরাতে ডাকও কানে ঢুকেনা। রাত গভীর হতে হতে ভোরের দেখা পায়। কত উজির নাজির মারি আমরা! মধ্যবিত্ত শিশুশিক্ষার সঠিক দিশা খুঁজে পায়না। মধ্যবয়সের রক্তচাপ, মেদ, রক্তে শর্করা, উত্তেজনার অক্ষমতা সব কিছুর সমাধান একসময় মেলে। মধ্যবিত্তের শিশুশিক্ষা অনিশ্চয়তার কানাগলিতে পথ হাতড়াতেই থাকে।
থাকুক।

আসুন মধ্যবিত্ত আরেকটা নতুন বছরের চাপ ঘাড়ে নেয়ার জন্য আমাদের শিশুশিক্ষাকে প্রস্তত করি।।

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর