বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জে গ্রামীন জনপদের উন্নয়নের চিত্র দৃষ্টি নন্দন

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম (সাগর)ঃ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের অধিনে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে অর্থ বছর ২০০৮-২০১৮ পর্যন্ত বিভিন্ন প্রকল্পের উন্নয়নমুলক কাজ হয়েছে ৫৮ কোটি ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৯৫ টাকা। যার কারনে উপজেলার গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়ন দৃষ্টিনন্দন হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন এলাকাবাসী। ২০১৮ সালের উপজেলা উন্নয়ন মেলা থেকে সংগ্রহ করা তথ্য হতে উন্নয়নের ফিরিস্তি প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেলায় থাকা স্টল থেকে পাওয়া গেছে। যা ফিরিস্তি আকারেই তুলে ধরা হলো। গ্রামীন মাটির রাস্তাসমুহ টেকসই করনের লক্ষ্যে হেরিং বন বন্ড (এইচবিবি) করন বরাদ্দের পরিমান ১ কোটি ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৯শ টাকা। বাস্তবায়িত প্রকল্প দুটি দীর্ঘ ৩০০ মিটার, ঢেউটিন বিতরন ৫১০ জন উপকারভোগীর মাঝে ৬২৫ বান্ডিল ঢেউটিন। যার বরাদ্দ ১৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। মানবিক সহায়তা (ভিজিএফ) উপকারভোগীর পরিবার ২ লাখ ৩০ হাজার, বিতরনকৃত খাদ্য শস্যের পরিমান ২৩৮০ মেট্রিক টন। মানবিক সহায়তা (জিআর) উপকারভোগীর পরিবার ১২শ, খাদ্য শস্যের পরিমাণ ৪৮০ মেট্রিক টন। বিতরনকৃত টাকার পরিমান ৮ লাখ ৫০ হাজার। মানবিক সহায়তা (শুকনা খাবার বিতরন) উপকারভোগীর পরিবার ৭৫০ টি, ৭৫০ প্যাকেট চাল ডাল তেল লবন চিনি বিস্কুট মোমবাতি। মানবিক সহায়তা( অন্যান্য) শীতবস্ত্র বিতরন ৩৭ হাজার ৫শ পিচ, খেজুর বিতরন ২ হাজার প্যাকেট, রাজকীয় দুম্বার মাংস বিতরন ২২শ কাটুন। অর্থ বছর ২০০৮-২০১৮ পর্যন্ত অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসুচি (ইজিপিপি) উপকারভোগী শ্রমিকের সংখ্যা ৩৩ হাজার ২৬১ জন, সর্বমোট শ্রমমজুরি ২৫ কোটি ২৯ লাখ ৮২ হাজার ৮০০ টাকা। ননওয়েজ কস্ট ২ কোটি ২৬ লাখ ১২ হাজার ৯৫ টাকা। প্রকল্পের সংখ্যা ৭২৬টি, রাস্তা মাঠ, কবরস্থান ইত্যাদি সংস্কার, ২২৯টি কালভার্ট, টয়লেট, গাইড ওয়াল, প্যালাসাইডিং নির্মান। গ্রামীন অবকাঠামো সংস্কার (কাবিখা/কাবিটা) সাধারন এবং বিশেষ বরাদ্দের পরিমান ৯ কোটি ৫৬ লাখ ৬৫ হাজার ৪৩৪ টাকা। ২৫৮৫ মেট্রিক টন চাল, গম, ২ হাজার ৫২৫ মেট্রিক টন। বাস্তবায়িত প্রকল্প সংখ্যা ৪৫০ কিলোমিটার গ্রামীন কাঁচা রাস্তা, ৫০ হাজার বর্গমিটার মাঠ/কবরস্থান ইত্যাদি সংস্কার, ১ হাজার ৫৯৮টি সোলার প্রকল্প, ৬ হাজার ৫০০টি তালগাছ রোপন। গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষন (টিআর) বরাদ্দের ধরন সাধারন এবং বিশেষ, সর্বমোট বরাদ্দের পরিমান ৭ কোটি ১১ লাখ ৫৩ হাজার ৯১৫ টাকা, ২৭৫৪ মেট্রিক টন (চাল/গম) , সর্বমোট বাস্তবায়িত প্রকল্প সংখ্যা ২৬৬৫ (ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান/শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান/রাস্তা/মাঠ/অন্যান্য), ১ হাজার ৩৬৩টি সোলার প্রকল্প। গ্রামীন রাস্তায় কম-বেশী (১৫ মিটার দৈর্ঘ্য পর্যন্ত) সেতু/কালভার্ট নির্মান শীর্ষক প্রকল্প সর্বমোট বরাদ্দের পরিমান ১২ কোটি ৪০ লাখ ৫৩ হাজার ১৩০ টাকা, সর্বমোট বাস্তবায়িত প্রকল্প সংখ্যা ৪২টি, মোট দৈর্ঘ্য ৫০৪ মিটার। উপজেলা উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. মশফিকুর রহমান জানান, তথ্যগুলো উন্নয়ন মেলায় জন মানুষের জ্ঞাতার্থে বিতরন করা হয়েছে। এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেফাউল আজম জানান, ইতোমধ্যেই প্রকল্পগুলো উপজেলা নির্বাহী অফিসার ,জেলা প্রশাসক সহ মন্ত্রনালয়ের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগন প্রকল্পগুলো পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়াম্যান ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মোছা. পারুল বেগম জানান, আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের সরকার। এ সরকারের উন্নয়নের কারনে এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে। ৮নং মাহমুদপুর ইউপি চেয়ারম্যান তানভির আহমেদ রহিম বাদশা জানান, প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হওয়ায় এলাকার মানুষ সুবিধা পাচ্ছে। ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান জানান, সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত রয়েছে। । উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য মো. নুর মোহাম্মদ মন্ডল জানান, উন্নয়ন কাজের মান ভালো হলে সরকারি অর্থ যথার্থ ব্যবহার হয়ে থাকে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মশিউর রহমান জানান, সরকারি অর্থে গৃহীত প্রকল্প বাস্তবায়নে কোন প্রকার অনিয়ম দুর্নীতি মেনে নেওয়া হবে না।