বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জে মাঠে মাঠে ইঁদুর কেটে ফেলছে কাঁচা আমন ধানের রোপা উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার আশংকা

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম.এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর) ॥ চলতি আমন রোপা মৌসুমে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার মাঠে মাঠে আমন রোপা ধানের কাঁচা গাছ কেটে তছনছ করছে ইঁদুর। কাঙ্খিত উৎপাদন নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। এলাকার উৎপাদনের সাথে জড়িত থাকা কৃষকেরা জানায় এ বছরে এত পরিমাণ ধানের জমিতে ইঁদুরের উৎপাৎ দেখা দিয়েছে তা অন্যান্য বছরের তুলনায় অনেক বেশি। কৃষকেরা আমন মৌসুমে প্রথমের দিকে অতিরিক্ত সেচ দিয়ে রোপন করেছে আমন ধান। মাঠে মাঠে ফসলের রোপা কেটে ক্ষতি করছে ইঁদুর। কৃষি অধিদপ্তরের পরামর্শ নিয়ে ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পর্যায়ের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাসহ ডিলারদের নিকট থেকে ইঁদুর নিধনের ঔধুষ ক্রয় করে জমিতে প্রয়োগ করলেও ইঁদুরের উপদ্রব কোনভাবেই কমছে না। এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলার ৭নং দাউদপুর ইউনিয়নের দাউদপুর ব্লকের কৃষ নাজিমুদ্দিন দুঃখ ও আক্ষেপ করে জানান, অতিকষ্টে আমন ধান রোপন করেছে। অতিরিক্ত সেচও দিতে হয়েছে। যে পরিমাণ খরচ হয়েছে তা ফসলে উঠবে কিনা তা নিয়ে সংশয় তো রয়েছেই অপরদিকে ইঁদুরের আক্রমণ। মাঠে যেতে মন চায় না। জমির যেদিকে তাকাই শুধু কাচা তাজা গাছ বিনষ্ট করছে ইঁদুর। কেটে ফেলা ধানের গাছ বস্তা ভর্তি করে বাড়িতে এনে গরু খেতে দিতে হচ্ছে। উৎপাদন ব্যহত হওয়ার আশংকা করছেন নাজিমুদ্দিনসহ আরোও অনেক কৃষক। এদিকে উপজেলার ৩নং গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের শওগুনখোলা গ্রামের কৃষক আমিরুল ইসলাম, ২নং বিনোদনগর ইউনিয়নের চাকপাড়া গ্রামের আবুল কাশেম তারা জানান, এখনই ইঁদুর নিধনের ব্যবস্থা নিতে না পারলে পরবর্তী ইরি বোরো আবাদে আরোও সমস্যার আকার ধারণ করতে পারে। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, আমরা বিষ টোপ দিয়ে জমিতে ইঁদুর নিধনের কার্যকারী ব্যবস্থা নিতে পরামর্শ দিচ্ছি। উঁচু শ্রেনীর জমিতে পানি না থাকায় সেখানেই ইঁদুরের উপদ্রব দেখা যাচ্ছে। আর ইঁদুর দিনের বেলায় কাটে না রাতেই কেটে থাকে। কৃষকদের সার্বক্ষনিক ব্যবস্থা নেয়াসহ পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। ৭নং দাউদপুর ইউনের দোমাইল ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফাত্তাউজ্জামান জানান, ইতোমধ্যেই মাঠে গিয়ে বাস্তব অবস্থা দেখে কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছি। এদিকে কৃষিবিদগণ জানান- ইঁদুর সবার কাছে পরিচিত স্তন্যপায়ী মেরুদণ্ডী বালাই যা মানুষের সাথে নিবিঢ়ভাবে সহাবস্থান করে। এ প্রাণী প্রতিনিয়তই কৃষকের কষ্টার্জিত ফসলের ক্ষতিসাধন করছে যেমন- মাঠের শস্য কেটেকুটে নষ্ট করে, খায় এবং গর্তে জমা করে। মাঠের ফসল উৎপাদন ও গুদামজাত শস্য সংরক্ষণের ক্ষেত্রে ইঁদুর এক বিরাট সমস্যা। ইঁদুর বেড়িবাঁধ ও বিভিন্ন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে গর্ত করে এবং মাটি সরিয়ে বাঁধ দুর্বল করে ফেলে। ফলে বাঁধ ভেঙে পানি দ্বারা প্লাবিত হয়ে বাড়িঘর, ফসলাদি ও গবাদিপশুর যে ক্ষতি সাধন করে তার আর্থিক মূল্য বিবেচনা করলে ক্ষতির পরিমাণ বহুগুণ বেড়ে যাবে। ইঁদুর দ্বারা প্রাথমিক ক্ষতি হয় ধান, গম, বাদাম ও নারিকেল ফসলে। বিভিন্ন ধরনের ইঁদুরের মধ্যে কালো ইঁদুর, মাঠের বড় কালো ইঁদুর, নরম পশমযুক্ত মাঠের ইঁদুর ও ছোট লেজযুক্ত ইঁদুর ধানের ক্ষতি করে। এদের মধ্যে কালো ইঁদুর মাঠে ও গুদামে এবং মাঠের বড় কালো ইঁদুর নিচু ভূমির জমিতে বেশি আক্রমণ করে। ইঁদুর যে কোনো পরিবেশের সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিয়ে দ্রুত বংশ বিস্তার করতে পারে। উপযুক্ত এবং অনুকূল পরিবেশে একজোড়া প্রাপ্ত বয়স্ক ইঁদুর বছরে প্রায় ২০০০টি বংশধর সৃষ্টি করতে পারে। বাচ্চা প্রসবের পর ২ দিনের মধ্যেই স্ত্রী ইঁদুর পুনরায় গর্ভধারণ করতে পারে। এদের গর্ভধারণকাল প্রজাতিভেদে ১৮-২২ দিন হয়। সারা বছরই বাচ্চা দিতে পারে। মাঠ ফসলের শতকরা  ৫ থেকে ৭ ভাগ এবং গুদামজাত শস্যের ৩ থেকে ৫ ভাগ ইঁদুরের দ্বারা ক্ষতি হয়। ইঁদুর শুধু আমাদের খাদ্য শস্য খেয়ে  নষ্ট করে তাই নয় বরং এদের মলমূত্র, লোম খাদ্যদ্রব্যের সাথে মিশে টাইফয়েড জন্ডিস, প্লেগ, চর্মরোগ ও ক্রিমিরোগসহ প্রায় ৬০ ধরনের রোগ ছড়াতে পারে।