বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জ চড়ারহাট গণহত্যা দিবস পালনে আলোচনা সভা

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর) ঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে চড়ারহাট গণহত্যা দিবস ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক আলোচনা সভা সহ শহীদ সৃতি ফলকে পুষ্পমাল্য অর্পণ দোয়া মাহফিল হয়েছে। গত বুধবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও সেক্টর কমান্ডার ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ একাত্তর এর সহোযোগিতায় ১০অক্টোবর সকাল ১১টায় চড়ার হাট শহীদ সৃতিফলকের পাশে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৫নং পুটিমারা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সরোয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন মোঃ মশিউর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর সেক্টর কমান্ডার ফোরাম এর সভাপতি একেএম আবুল কালাম আজাদ , দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও ২১ শে টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি চিত্ত ঘোষ,ফোরামের সাংগাঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুস সবুর, সাধারন সম্পাদক অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সামসুল আলম, উপজেলা মুক্তি যোদ্ধা কমান্ডারের সাবেক কমান্ডার দবিরুল ইসলাম, বীর মুক্তি যোদ্ধা এখলাছুর রহমান, মোয়াজ্জেম হোসেন, হাসান আলী , ৫নং পুটিমারা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ আশরাফুল ইসলাম , শহীদ সৃতি আর্দশ কলেজের প্রভাষক এমদাদুল হক , ব্যবসায়ী মোঃ আনিছুর রহমান প্রমুখ। প্রথমে শহীদ সৃতি ফলকে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে শহীদদের আত্তার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। আজ ১০ অক্টোবর দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার চড়ারহাট গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের দুই গ্রামের দেড় শতাধিক নিরীহ বাসিন্দাকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে পাকিস্তানী  সেনারা। দিবসটি পালনে প্রতিবছর এই দিনে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনাসভার আয়োজন করেন এলাকার মুক্তিযোদ্ধারা।একটি ভাঙা সেতুর জন্য মাটি কাটার কথা বলে পাক সেনারা ৯ অক্টোবর মধ্যরাতে নিরীহ গ্রামবাসীদের ঘুম থেকে তুলে নিয়ে যায়। চড়ারহাট গ্রামের প্রায় ৮০ জন যুবক ও মধ্য বয়সীদের একটি মাঠে একত্রিত করে ব্রাশ ফায়ারে তাঁদেরকে হত্যা করে। পরে পাশের আন্দোলগ্রামে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাক সেনারা ঘর থেকে পুরুষদের খুঁজে বের করে গুলি করে হত্যাযজ্ঞে মেতে ওঠে। এতে পুরুষশূন্য হয় গ্রামটি। তাদের দেওয়া আগুনে গ্রামের পর গ্রাম পুড়ে ভস্মীভূত হয়।২০১১ সালে বর্তমান সাংসদ শিবলি সাদিক উপজেলা চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় তাঁর আর্থিক সহযোগিতায় প্রাণকৃষ্ণপুরে দিনাজপুর সেক্টর ফোরামের সহযোগিতায় নির্মিত হয় একটি স্মৃতিস্তম্ভ।