শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নাকি শুধু প্রশ্নই থেকে যাবে

সুযোগ পেলে যে আমাদের দেশের প্রতিভাবান ছেলেমেয়েরা কত ভালো কাজ করতে পারে তা বিস্তারিত বর্ণনার অপেক্ষা রাখেনা। দেশে বিদেশে রয়েছে এরকম অনেক অনেক উদাহারন।তবে এ কারিগরদের তৈরির পিছনে রয়েছে অভিবাবকদের এক সংগ্রামের ইতিহাস। সন্তানদের একটা সুন্দর ভবিষ্যৎ নিশ্চিতের জন্যে বাবা মায়েদের যুদ্ধ শুরু হয় শিশু জন্মের কমবেশি ০৩ বছর পরে থেকেই। এ সংগ্রাম যে কতটুকু লড়াকু তা আট দশটা পরিবারের দিকে তাকালেই নজর কারে। এ কঠিন সংগ্রাম এ দেশের মত অন্য কোথাও হয় কিনা আমার সঠিক জানা নেই। তবে এ যুদ্ধে তাদের সহযোগী যোদ্ধা নেই বল্লেই হয়ত ভুল বলা হবেনা। পদে পদে শুধুই প্রতিবন্ধকটা আর বিড়ম্বনা।

পরীক্ষা আর পরীক্ষা । একের পর এক কঠিন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে মনের ভিতরে লালন করা অনেক দিনের কাঙ্ক্ষিত সোনার হরিণ অনেকের কাছেই অধরা রয়ে যায়।সরকারী চাকুরী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানী কিংবা প্রাইভেট কোন বড় কোম্পানীতে চাকুরী শুধুই অতীত দিনের স্বপ্ন মাত্র। তারপরেও ওদের চলতে হয় অনেক কষ্ট অনেক অবহেলা সহ্য করে।বাবা মায়ের দীর্ঘ দিনের কষ্টের প্রতিদান যে তাদের দিতে হবে। তাদের দিকে চেয়ে রয়েছে প্রায় সরবশ্য ক্ষয়ে যাওয়া জীবন যুদ্ধের ক্লান্ত সৈনিক- তার বাবা মা।

পরাধীনতার দীর্ঘ দিনের জগদ্দল পাথর সড়িয়ে স্বাধীন দেশের মুক্ত আঙ্গিনায় আমরা এগিয়ে চলেছি এতে সন্দেহ নেই। তবে সময়ের পরিক্রমায় আনুপাতিক হারে আমাদের প্রাপ্তির পাল্লা দিন দিন ক্ষীণ হয়ে আসছে বললে কি বেশী বলা হবে। খুব কষ্ট হয় যখন এই জনবহুল দেশে এত প্রতিভাবান ছেলেমেয়েরা তাদের প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও ভালো প্রতিষ্ঠানে চাকুরীর সুযোগ করে নিতে পারেনা। অথচ বিদেশীরা এসে ক্রমান্বয়ে এদের থালার গ্রাস কেরে নিয়ে চলেছে। কস্ট কাটিং এর খোড়া যুক্তি দেখিয়ে মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানী গুলো ১০০০ গুন বেশী বেতন দিয়ে বিদেশীদের নিয়োগ দিয়ে আমাদের সূর্য সন্তানদের গোল্ডেন হ্যান্ড শ্যাক দিয়ে বিতাড়িত করে বিলিওনস অফ ডলার সরিয়ে নিচ্ছে।স্বাধীনতার প্রায় অর্ধ সেঞ্চুরীতেও আমাদের সন্তানেরা তাদের কাম্য কোম্পানীর উচ্চ পদ বিদেশীদের কাছে হারিয়ে ফেলছে। মনে ভীষণ নাড়া দেয় যখন দেখি আমাদের স্বাধীন দেশের আঙ্গীনায় অন্য চামড়ার মানুষ গুলো আমাদের সন্তানদের চোখ রাঙিয়ে সেই পুরানো দিনের কথা মনে করিয়ে দেয়। তখন বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় আমরা কে, আমরা কি আসলেই স্বাধীন দেশের গর্বিত বাঙ্গালী, আমাদের দেখ ভাল করার মত আসলেই কি কোন সংবিধানিক বডি রয়েছে।

তাইত প্রায়শ ভাবি আমরা কি শুধু দিয়েই যাব প্রাপ্তির আনন্দ কি আমাদের জন্যে নয়।জানিনা আমার মত হাজার মানুষের এ প্রশ্নগুলোর উত্তর এ জীবনে মিলবে, নাকি শুধু প্রশ্নই থেকে যাবে।

লেখক-এটিএমএ মতিন।

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা।