মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নাগরিক আইনের প্রতিবাদে রণক্ষেত্র উত্তরপ্রদেশ, ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ১৪৪ ধারা

নাগরিক আইনের প্রতিবাদে ফের রণক্ষেত্র উত্তরপ্রদেশ। আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সারা রাজ্যেই জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা।  গণ্ডগোল করার অভিযোগে সারা রাজ্যে অন্তত ৪০০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ শনিবার রাজ্যের সব স্কুল বন্ধ রয়েছে। 
সেই সাথে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ ২১টি জেলায়। 

শনিবারও বিক্ষোভের আগুনে জ্ব‌লছে যোগী আদিত্যনাথের রাজ্য। এদিন সকাল থেকে রামপুরে ইদগাহ–র সামনে সিএএ–র প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভকারীদের হঠাতে গেলে পুলিসের সঙ্গে ধ্বস্তাধ্বস্তি হয় তাঁদের। পুলিসকে লক্ষ্য করে ইট–পাথর ছোড়া হয়। পুলিসের গাড়িতে আগুনও লাগিয়ে দেওয়া হয়। বিক্ষোভকারীদের হঠাতে লাঠিচার্জ করে এবং টিয়ার গ্যাসের শেল ফাটায় পুলিস। মৃত্যু হয়েছে একজনের। জখম হয়েছেন আরও ৬ জন। এখন পর্যন্ত মোট ১৪ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে সারা রাজ্যে। ফিরোজাবাদ, বিজনৌর, সম্ভল এবং কানপুরে দুজন করে এবং মেরঠে চারজন মারা গিয়েছেন।

যদিও রাজ্য পুলিসের ডিজি ওপি সিং এদিন দাবি করেছেন, একজন বিক্ষোভকারীর মৃত্যুও পুলিসের গুলিতে হয়নি। শুক্রবার রাজ্যের ৭৫টি জেলার মধ্যে ২০টি জেলায় বিক্ষোভ হয়েছিল।

সেকথা উল্লেখ করে ডিজি বলেছেন, ‘‌শুক্রবার কয়েক হাজার মানুষ রাস্তায় নেমেছিল। আমরা বিক্ষোভকারীদের শান্ত থাকার আবেদন করেছিলাম। তাঁরাও তেমনই আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই বিক্ষোভ হিংসাত্মক আকার নেয়। বিক্ষোভকারীরা অবৈধ অস্ত্রশস্ত্র এবং পাথর ছুড়তে শুরু করে পুলিসকে লক্ষ্য করে। পুলিসের আর কোনও বিকল্প ছিল না। কিন্তু আমি আপনাদের পরিষ্কার করে বলতে চাই পুলিসের গুলিতে একজনেরও মৃত্যু হয়নি। বিক্ষোভকারীরা নিজেদের ছোড়া বুলেটেই মারা গিয়েছেন।’‌ তিনি এদিন আরও বলেছেন, লখনউ–এ শুক্রবারের বিক্ষোভের জন্য ২১৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। লখনউ–এর এসএসপি কলানিধি নাথানিও একথা জানিয়ে বলেছেন, ধৃতদের জেরা করে পলাতক বিক্ষোভকারীদের খোঁজ চলছে।
শনিবারও রাজ্যের মোট ২১টি জেলায় বন্ধ রয়েছে ইন্টারনেট।

লখনউ সহ কয়েকটি শহরে বন্ধ ব্রডব্যান্ড পরিষেবাও। আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সারা রাজ্যে জারি হয়েছে ১৪৪ ধারা। রাজ্যের সব কটি স্কুল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।  সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে ৬০০ জনকে নিজেদের হেপাজতে নিয়েছে পুলিস। বাহারাইচের এসপি গৌরব গ্রোভার শনিবার জানিয়েছেন, শুক্রবারের ঘটনায় মোট ৬টি মামলা রুজু হয়েছে। ৩৮ জনকে আটক করা হয়েছে। ১০০ জন বিক্ষোভকারীকে শনাক্ত করে তাদের নাম এফআইআর–এ উল্লেখ করা হয়েছে। এদিনও সিএএ–র বিরুদ্ধে গোলাপ হাতে মৌন প্রতিবাদ করেন কানপুরবাসী। কানপুরের এডিজি প্রেম প্রকাশ বলেছেন, শনিবার সকাল থেকেই কানপুরের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪০ জনকে।
তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জির সুরে সুর মিলিয়ে শনিবার বিএসপি নেত্রী মায়াবতী টুইটারে লিখেছেন ‘‌যেহেতু এবার সিএএ এবং এনআরসি–র বিরুদ্ধে এনডিএ থেকেই প্রতিবাদ শুরু হয়েছে, এবার কেন্দ্রের উচিত জেদ ছেড়ে নিজেদের সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে আসা।

’‌একইসঙ্গে বিক্ষোভকারীদের শান্তভাবে প্রতিবাদ দেখানোর আবেদনও করেছেন বিএসপি সুপ্রিমো। ‌শুক্রবার পার্ক সার্কাস ময়দানের প্রতিবাদসভায় মমতাও একইভাবে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে আবেদন করেছিলেন তিনি যেন জেদ ছেড়ে এই আইন বাতিল করেন। ‌এদিন ফের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বিবৃতিতে রাজ্যবাসীকে শান্ত থাকতে আবেদন করে বলেছেন গুজবে কান না দিয়ে কেউ যেন আইন নিজেদের হাতে না তোলেন। বারাণসীর এসএসপি প্রভাকর চৌধুরি অভিযোগ করেছেন, শুক্রবার বিক্ষোভকারীদের পায়ের চাপে মৃত্যু হয়েছে এক শিশুর। এসএসপি বলেছেন, ওই শিশুটি আরও ৮টি শিশুর সঙ্গে বারাণসীর একটি মাঠে খেলা করছিল। বিক্ষোভকারীরা মাঠের ভিতর ধেয়ে গেলে পদপিষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় শিশুর।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email