মঙ্গলবার ২২ মে ২০১৮ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নাগেশ্বরীতে জমিজমা নিয়ে সংঘাতে দুইজন নিহত, আহত তিন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটায় জমিজমা সংক্রান্ত সংঘাতে দুইজন নিহত এবং তিনজন আহত হয়েছে। নিহতরা হলো কেদার ইউনিয়নের সাতানা গ্রামের মৃত্যু আব্দুল করিমের স্ত্রী সহিদা বেগম (৩০) ও একই গ্রামের মফিজ উদ্দিনের ছেলে ছবদের আলী (৪৫)। এঘটনায় আহত হয়েছে মৃত্যু খলিলের স্ত্রী সুফিয়া (৩৫), মৃত্যু হবিউল্ল্যার ছেলে জহুরুল হক (৫০) এবং তার স্ত্রী মরিয়ম বেগম (৪০)।
এলাকাবাসী এবং নিহতের পরিবারের লোকজন জানান, কেদার ইউনিয়নের সাতানা গ্রামের জহুরুল হকের সাথে কচাকাটা ইউনিয়নের বড় ছড়ার পাড় গ্রামের মৃত্যু মজি উদ্দিনের ছেলে সহিদুলের সাথে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিবাদ চলে আসছিলো। বিবাদমান জমিতে জহুরুল হক ২মাস আগে দুটি ঘর তোলেন এবং বসবাস করেন। ১৫মে মঙ্গলবার রাতে প্রতিপক্ষ সহিদুল তার দলবল নিয়ে এসে সে ঘর দুটি পুড়িয়ে দেয়। বুধবার দুপুরে ওই জমিতে জহুরুল তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পুনরায় ঘর তুলতে গেলে সহিদুলের লোকজন লাঠিসোটা ও দেশিয় অস্ত্রে সস্ত্রে তাদের উপর হামলা করে। হামলায় সহিদুলের পরিবারের ৪জন গুরতর আহত হয়। তাদের চিৎকার এবং শোরগোলে পাশের ক্ষেতে ধানকাটার দিনমজুর ছবদের আলী ঘটনা দেখতে গেলে তাকেও মারপিট করে সহিদুলের লোকজন। এতে মাথায় লাঠির আঘাতে তিনিও গুরুতর আহত হন।
পরে এলাকার লোকজন আহতদের উদ্ধার করে ভূরুঙ্গামারী হাসপাতালে ভর্তি করেন। ভূরুঙ্গামারী হাসপাতালে সহিদা এবং ছবদের আলীর অবস্থার অবনতি হলে রংপুর মেডিক্যাল কলেজে প্রেরণ করা হয়। সেখানে সন্ধায় সহিদা বেগম এবং রাত ১১টার দিকে ছবদের আলী মারা যায়। এদিকে ভূরুঙ্গামারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গুরতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন বাকী তিন আহত ব্যাক্তিরা। এ ঘটনায় নিহত শহিদার ভাতিজা আশরাফ আলী ১৮জনকে আসামী করে কচাকাটা থানায় একটি মামলা দ্বায়ের করেন। কচাকাটা থানার ওসি ফারুক খলিল বলেন, আসামীদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।