বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নাগেশ্বরীতে ৩ মেধাবীর স্বপ্ন পুরনে বাধা আর্থিক অস্বচ্ছলতা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : নাগেশ্বরীতে মেধা, যোগ্যতা, নিষ্ঠা দিয়ে দরিদ্রতা জয়ে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাধিক শিক্ষার্থী। এরা কেউ দিনমজুর, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী. গার্মেন্টস কর্মী বাবার সন্তান। ডাক্তার ও প্রকৌশলী হয়ে সেবা করার ইচ্ছে প্রকাশ করলেও অর্থাভাবে তাদের আশার তরী কোন ঘাটে ভিরবে তা নিয়ে শংকিত অভিভাবকরা। এমন ৩ জন মেধাবী শিক্ষার্থীর স্বপ্ন পূরণে বাধা আর্থিক স্বচ্ছলতা।
মফিজুল ইসলাম: প্রমত্তা দুধকুমর ৩বার ভেঙ্গেছে বাড়ী। নতুন বাস্তুভিটাই অবশিষ্ট এখন। তাই উপজেলার বেরুবাড়ী ইউনিয়নের নতুনচরের দিনমজুর বাবা ইজ্জত উল্লাহর পক্ষে ছেলের পড়ালেখায় যতার্থ সহযোগিতা দেওয়া সম্ভব হয়নি। বাড়ী বাড়ী টিউশানী করে মফিজুলকেই জোগার করতে হয় তার পড়ালেখার খরচ। সহযোগিতা নেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু বকর সিদ্দিকের। স্যারের সহযোগিতা ও নিজ চেষ্টায় রাত জেগে পড়ালেখা করে এবারে সে বেরুবাড়ী বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। ইচ্ছে প্রকৌশলী হওয়া। এতে অনেক খরচ তাই শংকিত বাবা ইজ্জত উল্লাহ ও মা মমেনা বেগম।
তামান্না তাবাচ্ছুম হাসি: ভিটেমাটি ছাড়া আর কোন সম্পত্তি না থাকায় স্বল্প পুজিতে ক্ষুদ্র ব্যবসায় অর্জিত অর্থে সংসার ও ৫ কন্যার পড়ালেখার খরচ চালাতে প্রতিনিয়ত হিমসিম খেতে হয় বেরুবাড়ী চিলমারীর পাড় গ্রামের মোখলেছুর রহমানকে। মেয়ে তামান্না তাবাচ্ছুম হাসিকে তাই প্রাইভেট ছাড়াই প্রস্তুতি নিতে হয় এসএসসি পরীক্ষার। রাত জেগে পড়ালেখার সাফল্যও আসে। ডিএম একাডেমীর বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সে জিপিএ-৫ পায়। সে ডাক্তার হতে চায়। আর্থিক সঙ্কটে সন্তানের সে স্বপ্ন কি অধরাই থেকে যাবে এ চিন্তার মেঘ ঘুরপাক খাচ্ছে তার বাবা-মার অবয়বে।
রাকিবুল হাসান: গার্মেন্টস কর্মী বাবা মোহাম্মদ আলী বেরুবাড়ী খেলারভিটা গ্রামে রাকিবুল হাসানসহ ৪ ভাই বোনকে মা রোজিনা বেগমের সাথে রেখে ঢাকায় থাকেন। ভিটেমাটি ছাড়া কোন জমি-জমা না থাকায় বাবার পাঠানো টাকায় অতিকষ্টে চলে তাদের সংসার। অভাবের সংসারে নিজের আগ্রহে তাই রাত জেগে পড়ালেখা করে এবারে খেলারভিটা উচ্চবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে সে। সন্তানের এ ভালো ফলাফলে উচ্ছ্বসিত তার বাবা-মা। অন্যদিকে দারিদ্রতা ও অর্থাভাবে সন্তানের ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পুরনে কতটা পথ পেরুতে পারবেন এ নিয়েই চিন্তিত তারা।