সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বন্ধুর সঙ্গে কাঠের সেতু দেখতে গিয়ে সম্ভ্রম হারালেন কলেজ পড়ুয়া শির্ক্ষাথী

মো.মাহাবুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি :দিনাজপুরে নবাবগঞ্জ শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানের ভেতর মঙ্গলবার বিকেলে এইচএসসি  পড়ুয়া বন্ধুর সঙ্গে কাঠের সেতু দেখতে গিয়ে  স্থানীয় কয়েক বখাটের কতৃক ধর্ষণের শিকার হয়েছেন কলেজ পড়ুয়া (১৮) এক শিক্ষার্থী। এই ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে চার যুবককে আটক করেছে। রাতেই ওই শিক্ষার্থীর বন্ধু রিয়াজুল ইসলাম বাদি হয়ে ওই চার যুবকের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন, অপহরণ ও চাঁদাদাবির অভিযোগে মামলা দেওয়া করেছে। পুলিশের দাবি এই চক্রটির সঙে আরো অনেকেই যুক্ত রয়েছেন। খুবদ্রুত তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

আটককৃতরা যুবকরা  হলেন,‘ নবাবগঞ্জ উপজেলার শগুনখোলা গ্রামের  শরিয়ত উল্লাহ এর ছেলে শাহিনুর (৩০) একই গ্রামের ইসমাঈল হোসেন এর ছেলে আজিম(৩১) ফতেপুর মাড়ার গ্রামের আব্দুল মতিন এর ছেলে সাজেদুল ইসলাম সাজু(২১)এবং আবু তাহেরের ছেলে শাহারুল ইসলাম(২০)।

মামলার বাদি ছেলে বন্ধু মো.রিয়াজুল ইসলাম বলেন,‘মঙ্গলবার বিকেলে পূর্ব পরিচিত এইচএসসি পড়ুয়া ২য় বর্ষের ছাত্রী(১৮) কে নিয়ে শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানের ভেতর কাঠের সেতু দেখতে যাই। সেখানে স্থানীয় কয়েক যুবক আগে থেকেই তাদের গতিবিধি লক্ষ করছিল। কাঠের সেতুর পূর্বপাশে যাওয়ার পর রিয়াজুল ইসলামকে বেঁধে এলোপাতাড়ি পিটুনি দিতে থাকে ৫ জন যুবক। এসময় তার কাছে থাকা টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয় তারা। পরে সেখানে রিয়াজুল ইসলাম(১৮)কে বেঁধে রেখে মেয়েটিকে জোরপূর্বক বনের গহীনে নিয়ে ধর্ষণ করে।

রিয়াজুল ইসলাম বলেন,‘ সেখান থেকে পালিয়ে লোকালয়ে এসে ৯৯৯ ফোন দিয়ে বিষয়টি পুলিশকে বিষয়টি অবগত করা হয়। কিছুক্ষণ পর সেখানে নবাবগঞ্জ থানাপুলিশ এসে স্থানীয়দের সহায়তায় বনের ভেতর থেকে দুই জনকে আটক করে।

জানাযায়, শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানটি ২০১০ সালে শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান হিসেবে স্বীকৃতি পায়। উদ্যানটি ৫১৭.৬১ হেক্টর জায়গা জুড়ে অবস্থিত। উদ্যানটির পাশে রয়েছে আশুড়ার বিল। উদ্যানটির পাশে আশুড়ার বিলে গতবছর নির্মাণ করা হয় দৃষ্টিনন্দিত আঁকাবাঁকা ৯শ মিটার শেখ ফজিলাতুননেছা কাঠের সেতু। করোনাভাইরাসের কারনে সরকার দেশের সকল পর্যটনকেন্দ্রগুলোকে বন্ধঘোষণা করলেও এই উদ্যানটিতে উঠতি বয়সের ছেলে ও মেয়েদের আনগুনা ছিল চোঁখে পড়ার মত। পর্যটনকেন্দ্রে নেই সরকারিভাবে কোন নিরাপত্তার ব্যবস্থা। সকাল থেকে শুরু করে সন্ধাঅবধি চলে যুবক যুবতিদের আনাগুনা। ফলে হরহামেশায় ঘটছে এমন ঘটনা।

মামলার বরাত দিয়ে নবাবগঞ্জ থানাপুলিশ,‘ঘটনার পর ঘটনাস্থল থেকে দুই যুবককে আটক করে আনার পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করার পর ঘটনায় জড়িত আরও দুই জনকে আটক করা হয়েছে। পরে তাঁদের নামে নারীও শিশু নির্যাতন আইন,অপহরণ, চাঁদাদাবির অভিযোগের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্তকর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার চৌহান বলেন, বেশ কিছুদিন থেকে শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানে আসা দর্শনার্থীদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছি। আজ এই চক্রের কয়েক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।এই ঘটনার সঙে জড়িত অন্যদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।আটক আসামিদের আজ মঙ্গলবার দিনাজপুর জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।ধর্ষিতা ওই শিক্ষার্থীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেখরাসেল জাতীয় উদ্যান রক্ষা কমিটির সভাপতি মো.মাহাবুর রহমান বলেন,‘দীর্ঘদিন থেকে উদ্যানটি বন্ধ থাকার পরও কিছু দর্শনার্থী আঁকাবাঁকা কাঠের সেতু দেখতে আসে। সরকারি ভাবে পর্যটকদের দেখভাল করার কোন লোক না থাকায় এমন ঘটনা ঘটছে।এই ঘটনায় বোন রক্ষা কমিটি দুঃখ প্রকাশ করছি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email