সোমবার ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নারী নির্যাতনের প্রতিরোধ গড়ে তুলি

কলেজ ক্যাম্পাসে সেদিন পরিচিত-অপরিচিত ছোট বড় সবাইকে একত্রিত করে একটি বৃত্ত তৈরি করেছিলাম। বৃত্তের মাঝে কয়েকটি মেয়ে দাড়িয়ে আছে।

আমরা যদি একটু গভীরভাবে চিন্তা করি কিংবা কল্পনায় চলে যাই তাহলেই আমাদের সমাজের আসল চিত্র বুঝতে পারবো। আমরা আসলে নারীদের কতটা বৃত্তের বাইরে অর্থাৎ ঘরের বাইরে বেরোতে দেই ?

নারী সমাজ আমাদের দেশে এখনো তেমনভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারেনি যেমনটা আমরা মুখে বলি ! বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর সাম্প্রতিক রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে ৮০ শতাংশ নারী স্বামীর দ্বারা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।

পুলিশ রিপোর্ট অনুযায়ী, সারা দেশে নারীর প্রতি সহিংসতা-বিষয়ক মামলা রুজুর হার বেড়ে চলেছে। যেমন: ২০১০ সালে সারা দেশে এ বিষয়ক মামলা রুজু হয়েছিল মোট ১৭ হাজার ৭৫২টি, সেখানে ২০১৫ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ২১ হাজার ২২০টি। বর্তমানে ক্রমান্বয়ে তা বেড়েই চলেছে !

দেশে আইন থাকা সত্বেও প্রায় প্রতিনিয়তই ঘটে চলেছে নারীর প্রতি সহিংসতা ! বাসে,রাস্তাঘাটে কিংবা জোর পূর্বক নারী নির্যাতন,ধর্ষণের মত জঘন্য অনেক ঘটনাই প্রায় আমাদের চোখে পড়ছে ! তাহলে এর থেকে আমরা কিভাবে পরিত্রাণ পেতে পারি ? নাকি নারীর প্রতি সহিংসতা চলবেই ?

একটি দেশের রাষ্ট্র বা সরকার যত আইন বা বিধিনিষেধই করুক না কেন তার প্রয়োগ কতটা হচ্ছে এটাও দেখার বিষয় আবার ক্ষমতা কিংবা জনসাধারণের অসযোগিতাও নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে বাঁধা প্রদান করছে বলেও আমার মনে হয় ! কেননা অনেক সময় আইনের ফাকফোকর কিংবা অপরাধ অনুযায়ী শাস্তি কম থাকায় অনেকেই নারী নির্যাতনের মত ঘটনার সাথে জড়িত হচ্ছে !

আবার কেউ কেউ রাজনৈতিক ক্ষমতা কিংবা অর্থের বলায়ে নিজেদের অপরাধ ঢেকে রাখছে ! এর ফলেও নারী নির্যাতনের মত ঘটনাও ঘটছে ! সর্বশেষ,সাধারণ মানুষের এসব বিষয়ে সর্বাধিক সচেতনতা তৈরি করা দরকার। যেখানেই যেভাবে নারী নির্যাতনের শিকার হতে দেখবেন সেখানেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন।

আসুন,আমরা আমাদের দেশকে সহযোগিতা করে এবং নারীর প্রতি সম্মান রেখে নারী নির্যাতনের প্রতিরোধ গড়ে তুলি।

 

লেখকঃ এম এ মোমেন খান
সমাজবিজ্ঞান বিভাগ,দিনাজপুর সরকারি কলেজ।