শুক্রবার ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নিরবে চলেগেল ১মে আর্ন্তজাতীক শ্রমিক দিবস।

অন্য সময়ের ন্যায়, নাই রাজপথে বড় বড় বণার্ঢ্য শোভাযাত্রা কিংবা রাজনৈতিক নেতাদের ভাষন।
১৮৮৬ সালে আমেরিকার শিকাগো শহরে দিনে ৮ ঘন্টা কাজ করে সারা দিনের বেতনের দাবীতে আন্দোলনে নামে একটি সুতা ফেক্টোরীর শ্রমিকরা, এতে আমেরিকার পুলিশ শ্রমিকদের উপর গুলি চালায়, পুলিশের প্রায় হারায় শত শত শ্রমিক। শ্রমিকের রক্তে রঞ্জিত হয় শিকাগো শহরের রাজপথ।
শ্রমিকের এই আত্মত্যাগের দিনটিকে স্বরণে নিয় ১৯৪৫ সালে ১ মে কে আর্ন্তজাতীক শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষনা করে জাতিসংঘ। এরপর থেকে ১মে আর্ন্তজাতীক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করে আসছে জাতীসংঘের সদস্য দেশ গুলোসহ শ্রমিক সংগঠন।
আমার বক্তব্য একেবারে ভিন্ন প্রতিবছর শ্রমিক দিবসে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতারা শ্রমিকের পক্ষে নানা কথা বলেন, অনেক উপহারও দেন, যদিও এইবার করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে করতে পারেনি অনেকে। কিন্তু শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে কতটুকু।
আমি পেশাগত দায়িত্বের অংশ হিসেবে অনেক শ্রমিকের। সাথে বিভিন্ন্ ভাবে কথা বলে জেনেছি, অধিকাংশ শ্রমিকের ঘরে খাবার নাই, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে গনপরিবহন দোকান পাট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কলকারখানা বন্ধ থাকায় বেকার হয়ে পড়েছে শ্রমিকরা, মালিকেরা বেতন দিচ্ছে না আবার অনেকে বেতন দিতে পারছেওনা, গার্মেন্টসে কর্মরত শ্রমিকরা এখন কি যে যন্ত্রনা ভোগ করছে হয়তো তারা ছাড়া আর কেউ জানেনা, করোনার ঝুঁকি নিয়ে বেতনের দাবীতে রাস্তায় নামতে হচ্ছে শ্রমিকদের, একটি জাতীয় দৈনিকে দেখলাম এখনো কোন নিয়োগ পত্র নাই গণপরিবহন শ্রমিকদের, তারা কাজে আসলে বেতন না আসলে নাই, নাই কোন ছুটি, চিকিৎসা ও উৎসব ভাতা তো দুরের কথা।
এই হচ্ছে শ্রমিকের অবস্থা, তাহলে এতদিনে শ্রমিকের কোন অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে, অথচ অনেক শ্রমিক নেতার রয়েছে গাড়ি বাড়ী অট্টোলিকা, আনেকে হয়েছে এমপি মন্ত্রী, কিন্তু প্রকৃত যারা শ্রমিক তারায় রয়েছে অবহেলীত।

লেখক-মোঃ রজব আলী

সাংবাদিক

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email