বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নির্বাচন ২০১৮ ঃ সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধের পক্ষে দু-কথা

জাতীয় নির্বাচন এগিয়ে আসছে আর সংখ্যালঘু অধ্যুষিত জনপদগুলোয় আতংক বাড়ছে। আতংক যে বাড়ছে তা বোঝার উপায় কি? উপায় হলো যেখানে সংখ্যালঘুরা আছেন, যেখানে তারা নির্যাতিত হয়েছেন, যেখানে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ঘর-বাড়ি হারিয়ে নি:স্ব হয়েছেন, ভিটেমাটি হারিয়ে দেশছাড়া হয়েছেন সেই সব জনপদের সংখ্যালঘু মানুষের সাথে কথা বলা, তাদের মনোভাব উপলব্ধি করা এবং নির্বাচন নিয়ে দেশ জুড়ে যে আলোচনা, পর্যালোচনাগুলো হচ্ছে সেই সব আলোচনায় সুশিল সমাজসহ বহুধারার মানুষের প্রদত্ত মতামত হতে ধারণা নেয়া।
বাংলাদেশে নির্বাচন এলে, নির্বাচন চলাকালে এবং নির্বাচন হয়ে গেলেও সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হয়, এই সত্য অনেকে অস্বীকার করে। কিন্তু সংখ্যালঘু নির্যাতন এমন একটা বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে যা অস্বীকার করেও আড়াল করা যায় না। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিহত করার জন্য যে সকল জায়গায় সহিংসতার ঘটনা সংঘটিত হয়েছিল তার বিরাট অংশ জুড়ে ছিল সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকা সমূহ। এর আগের নির্বাচন, তার পরের স্থানীয় সরকারের নির্বাচনেও সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা কম ছিল, এমনটা বলা যাবে না।
বেসরকারি মানবাধিকার সংস্থা শারি’র উদ্যোগে গত ৮ নভেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত হলো ‘জাতীয় নির্বাচন ২০১৮ ও সংখ্যালঘু নির্যাতন’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা। নির্বাচন কেন্দ্রিক নির্যাতনের শিকার সংখ্যালঘু এলাকা সমূহ ঘুরে আসার সুবাদে একজন প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক হিসেবে সেই আলোচনায় অংশ নেয়ার সুযোগ হয়েছিল আমার। আমি সেই আলোচনায় বলেছিলাম যে, সংখ্যালঘুরা আতংকের মধ্যেই আছেন। তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। কেন এ কথা বলেছি? কারণ আমি জানি যে, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়সহ বৃহত্তর দিনাজপুর জেলার যে সকল স্থানে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা জনিত কারণে মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে, সেইসব মামলার বাদী ও সাক্ষীদের হুমকী দিয়ে বলা হয়েছে যে, এখন মামলা করছ করো, কিন্তু এই সরকার তো চিরদিন ক্ষমতায় থাকবে না, যখন সরকার বদল হবে তখন তোমরা কোথায় যাবে তা ভেবে রেখো।
এভাবেই হুমকী দেয় হয়েছে এবং এখন পর্যন্ত হুমকী অব্যাহত আছে। কাজেই সংখ্যালঘুরা আতংক ও নিরাপত্তাহীনতায় আছেন তাতে সন্দেহ নেই। ৮ নভেম্বরের ঐ গোলটেবিল আলোচনা শারি’র নির্বাহী প্রধান প্রিয়বালা বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। বিষয়ের আলোকে পেপার্স উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মেসবাহ কামাল। পেপার্সে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে সংঘটিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনাবলী উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর এবং ২০১৩ ও ২০১৪ সালে জাতীয় নির্বাচন ও যুদ্ধাপরাধের বিচার ইস্যুতে দেশের প্রায় সকল জেলাতেই সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছিল। এর মধ্যে বরিশাল, বাগেরহাট, চট্টগ্রাম, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, রাজশাহী, পটুয়াখালি, নাটোর, ভোলা, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, ফেনী, দিনাজপুর, সাতক্ষীরা এবং ঝিনাইদহে সংখ্যালঘু নির্যাতনের সংঘটিত ঘটনাবলী ছিল অমানবিক যা মানবিক হৃদয়কে স্পর্শ করেছিল।
ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্তের সঞ্চালনায় সেই আলোচনা গোল টেবিলের প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রাণা দাশ গুপ্ত। আলোচনা করেন রিইব এর নির্বাহি প্রধান ড. মেঘনা গুহ ঠাকুরতা, দৈনিক সংবাদ সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান, দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের যুগ্ম সম্পাদক বিভুরঞ্জন সরকার, বাংলাদেশ খৃষ্টান এসোসিয়েশনের সভাপতি নির্মল রোজারিও, পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজল দেবনাথ, বরিশালের উজিরপুরের নির্যাতিত সাংবাদিক কল্যান কুমার চন্দ, বরিশাল ও দিনাজপুরের নির্যাতিত রনজিত কুমার রায়, খালেদা আখতার হেনা ও পুরেন রায়। এছাড়া দিনাজপুর জেলায় সংঘটিত সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনালীর প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক হিসেবে আমি আজহারুল আজাদ জুয়েল নিজেও অংশ নিয়েছিলাম আলোচনায়।
প্রাসঙ্গিক কারণে এখানে আলোচকদের কয়েক জনের গুরুত্পুর্ণ পয়েন্ট তুলে ধরা দরকার বলে মনে করছি। বিশেষ করে যাদের কথায় আর্তনাদ আছে, পরামর্শ ও অভিমত আছে তাদের কিছু কিছু কথা এখানে তুলে ধরছি। রাণা দাশ গুপ্ত তার আলোচনায় বলেন, নির্বাচন এখন ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের কাছে উৎসবের বার্তা নিয়ে আসেনা, এটা সংখ্যালঘুদের জন্য বিপর্যয়। আওয়ামী লীগ জিতলে বিদ্রোহীরা পেটায়, বিদ্রোহী জিতলে আওয়ামী লীগ পেটায়।
বিভুরঞ্জন সরকার বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলেন, অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, এখন নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে ভোট বর্জন করতে গেলেও নির্যাতনের শিকার হতে হবে!
নির্মল রোজারিও মনে করেন, ভোটের রাজনীতি এমন এক পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে যে, এই রাজনীতির কাছে মানববতা বিপন্ন হয়ে পড়ছে।
মেঘনা গুহ ঠাকুরতা প্রশ্ন তোলেন এই বলে যে, অনেকে এখন নিজেদেরকে বাঙালি না ভেবে শুধু মুসলিম ভাবছেন। কিন্তু এই ভাবনার কারণে কেন সংখ্যালঘুদের নির্যাতিত হবে?
ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ চেয়েছিলেন, কিন্তু সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছেন! যারা এই নির্যাতনে জড়িত তাদের বিচার হয় না বলেই বার বার নির্যাতনের পুনরাবৃত্তি ঘটছে।
অবশ্য নির্বাচন এলেই সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হয় এমন বক্তব্যের সাথে দ্বিমত পোষণ করেন খন্দকার মুনীরুজ্জামান। তিনি বলেন, সংখ্যালঘুরা সব সময়ই নির্যাতিত হচ্ছে। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশ হলেও বর্তমানের রাজনীতিটা মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে চলে গেছে। এখন কোন রাজনৈতিক দলই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে না। যদি ধারণ করত তাহলে যে জায়গায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে, যেখানে বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের কালজয়ী ভাষণ দিয়েছেন সেখানে হেফাজতের কাছে সরকারকে আত্মসমর্পণ করতে হতো না। নারী নীতি, পাঠ্য সুচিসহ সব কিছুতেই হেফাজতের সাথে তাল মিলিয়েছে সরকার। এভাবে রাষ্ট্রকে ভুতের মত সাম্প্রদায়িকতার পথে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
সুলতানা কামাল মনে করেন, রাষ্ট্র এখন বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভয় পাচ্ছে। তিনি আবারো ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে সম অধিকারের দেশে ফিরিয়ে আনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
ভোটের অধিকার মানাধিকার, এমন অভিমত ব্যক্ত করেন কাজী রিয়াজুল হক। তিনি বলেন, উন্নয়নের সাথে সাথে শান্তি ও মানবাধিকার থাকতে হবে। সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হলে নির্বাচনও ব্যর্থ হবে।
সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে আলোচনা আছে দেশ জুড়ে। কিন্তু প্রশাসন আসন্ন নির্বাচনে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় কি পদক্ষেপ নেবে তা এখনো আমাদের কারো জানা নেই। সংখ্যালঘুরা আতংকে আছেন এমন কথা সেদিন বলেছেন কর্ণাইয়ের পুরেন রায়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তিনি এবং কর্ণাই ও এর আশে-পাশের প্রায় ৪-৫শ পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিলেন নির্বাচন বিরোধীদের হামলায়। তিনি বলেন, আমাদের উপর হুমকী এখনো আছে।
আমরা স্বাধীন হয়েছি কিন্তু আমাদের মনন থেকে মূল্যবোধের অস্বাভাবিক অবক্ষয় হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা মুখে যত বলি বাস্তবে তা লালন করিনা। ভোটের রাজনীতি করতে গিয়ে সবাই মিল্ইে সংখ্যালঘু নির্যাতনে সামিল হই। এই নির্যাতন কখনো মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীরা করেন, কখনো পক্ষের দাবীদাররাও করে থাকেন।
২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচন হতে এখনো প্রায় দেড় মাস দেরী আছে। যদি সরকার সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর উপর সম্ভাব্য হামলা প্রতিরোধ করতে চায় তাহলে উদ্যোগ নিতে হবে এখুনি। নির্বাচনের অন্তত দেড় সপ্তাহ আগের থেকে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী সমৃদ্ধ এলাকাগুলোয় বিশেষ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। এই নিরাপত্তা নির্বাচন শেষ হওয়ার পরেও অন্তত দেড় সপ্তাহ অব্যাহত রাখতে হবে। যে কেন্দ্রে সংখ্যালঘুদের ভোট বেশি সেখাানে নির্বাচনের দিন অতিরিক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিতে হবে।
রাষ্ট্র হবে ধর্ম নিরপেক্ষ। ধর্ম নিয়ে রাষ্ট্রের বাড়াবাড়ি, মাতামাতি থাকবে না। সকল ধর্মের সব মানুষ যেন নির্ভয়ে, নির্বিঘ্নে নিজ নিজ ধর্ম শান্তিতে পালন করতে পারেন রাষ্ট্র তা নিশ্চিত করবে। এর বাইরে কিছু করতে চাইলে তা বিপজ্জনক হতে পারে।
শারি’র গোল টেবিল আলোচনায় সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধের লক্ষ্যে সাহাবুদ্দিন কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন, সংখ্যালঘু নিরাপত্তা আইন তৈরী এবং সংখ্যালঘু মন্ত্রনালয় প্রতিষ্ঠার দাবী করেছেন কোন কোন আলোচক। সরকার এগুলো নিয়ে ভাবতে পারেন। রাজনৈতিক দলগুলোও এইসব বিষয় নিয়ে ভাবতে এবং সম্ভাব্য পদক্ষেপ নিতে পারেন। ইতোমধ্যে বিএনপি ঘোষণা দিয়েছে যে, ক্ষমতায় গেলে তারা সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রনালয় গঠণ করবে। এটাকে ইতিাচক হিসেবে দেখা যেতে পারে। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টিসহ অন্য রাজনৈতিক দলগুলোও এই বিষয়টিসহ সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষার অন্যান্য বিষয় নিয়ে ভাববে এবং সংখ্যালঘুদের মধ্যে যে আতংক আছে তা সহসাই কাটিয়ে উঠতে সমর্থ হবে এমনটাই আশা করি। আলোচনা করতে গিয়ে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধের লক্ষ্যে একটি আইন করা যেতে পারে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। এটা হলে সবচেয়ে ভাল হয় এই কারণে যে, নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সংখ্যালঘুরা অন্তত আইনী সুরক্ষার বিশেষ অধিকার লাভ করবেন।

 

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল
সাংবাদিক ও কলামিষ্ট,
দিনাজপুর।
মোবাইল-০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭