মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নীলফামারী খুদে কবিদের সমাবেশ॥ নতুন রূপে সজ্জিত

নীলফামারী প্রতিনিধি॥ প্রায় সাড়ে ২২ হাজার খুদে কবিদের সমাবেশ ঘিরে উত্তরবঙ্গের নীলফামারী শহরকে নতুন রূপে সজ্জিত করা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার (২৭ নবেম্বর) এই সমাবেশ ঘিরে খুদে কবিরা অপেক্ষার সময় গুনছে। বিশেষ করে এই সমাবেশে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অসাধারণ বক্তা অধ্যাপক আবদুলাহ আবু সায়ীদর বক্তব্য শুনতে খুদে কবিদের যেন অপেক্ষার শেষ নেই। সেই সঙ্গে খুদে কবিরা অপেক্ষা করছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের দুর্দান্ত দ্রুতগতির বলার তাসকিন আহমেদের ক্রিকেট খেলা নিয়ে তার অনুভুতি শোনার জন্য।
খুদে কবিদের আসরে আরো যারা আসছেন তারা হলেন কথা সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, আখতার হুসেন, সুজন বড়ুয়া, বাংলাদেশ জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী নুুসরাত ইমরোজ তিশা ও যাদু শিল্পী শাহীন শাহ্ । তাদের কথাও শুনতে অপেক্ষা খুদে কবিদের। এদের মাঝে প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর এমপি।
সৃজনশীল প্রতিভা অন্বেষণ ও মেধা বিকাশের লক্ষ্যে তৃতীয়বারের মতো “ভিশন-২০২১” নীলফামারী আয়োজিত ছড়া ও কবিতা লিখন প্রতিযোগিতা-২০১৮ এর পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের এই খুদে কবিদের সমাবেশ নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

ভিশন ২০২১ নীলফামারীর প্রধান সমন্বয়ক ওয়াদুদ রহমান জানান, আগামীকাল মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) সকাল ১০টায় নীলফামারী কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে এই অনুষ্ঠান ঘিরে শিশুদের মাঝে আনন্দ উৎসব শুরু হয়েছে। পুরস্কার বিতরণসহ নির্বাচিত ছড়া ও কবিতা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।
তিনি জানান, এই আয়োজনে নীলফামারী জেলার ৪২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার প্রথম থেকে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ২২ হাজার ৪৩৪টি ছড়া ও কবিতা সংগ্রহ করা হয়। প্রাথমিক ভাবে বিচারক মন্ডলী ৫হাজার ছড়া ও কবিতা নির্বাচিত করে ঢাকায় পাঠানো হয়। সেখানে চুড়ান্ত ভাবে ৪৫৭টি ছড়া ও কবিতা নির্বাচিত করে একটি বই তৈরী করা হয়েছে। সেই বইয়েরও মোড়ক উন্মচন করা হবে এই খুদে কবিদের সমাবেশে।

তিনি আরো জানান, অনুষ্ঠান ঘিরে ইতোমধ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করছে সংগঠনটি। সাজানো হচ্ছে অনুষ্ঠানস্থল। সেখানে শোভা পাবে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, ভাষা আন্দোলন, স্বাধীনতা সংগ্রামসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রোপট। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক, জনপ্রতিনিধি, গণমাধ্যমকর্মী, ব্যবসায়ী প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রায় ২৫ হাজারের অধিক মানুষের বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। একই মঞ্চে মঞ্চস্থ্য হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও। ছড়া ও কবিতার পাশাপাশি সংগঠনটি শিশু শিক্ষার্থীদের চিত্রাঙ্কনে দক্ষতা অর্জনে কাজ করছে। সংগঠনের উদ্যোগে শহরের শতাধিক ক্ষুদে শিল্পী বিভিন্ন দেওয়ালে ছবি একে শহরকে সাজিয়েছে নিজের মতো করে।
সৃজনশীল প্রতিভা অন্বেষণ ও মেধা বিকাশের লক্ষ্যে ২০১৬ সাল থেকে শিক্ষার্থীদের (প্রাথমিক ও মাধ্যমিক) মধ্য থেকে বাছাই করে খুদে কবি সাহিত্যিকদের সম্মাননা প্রদানের ব্যবস্থা শুরু হয় সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের পৃষ্ঠপোষকতায় বলে জানান তিনি।
এদিকে আজ সোমবার (২৬ নভেম্বর) বিকালে অনুষ্ঠানের সেচ্ছাসেবকের দায়িত্বে থাকা ৬৫০ জন সদস্যদের পরিচয় পত্র, সার্ট ও টাই বিতরন করা হয়। খুদে কবিদের এই সমাবেশ ঘিরে সহযোগীতা করছে ঢাকা ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, বাংলা ব্যাংক ও স্কয়ার এবং মার্কেটাইল ব্যাংক। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করবেন সংগঠক রাসেল আমিন স্বপন ও ফারহানা ইয়াসমিন ইমু।

উল্লেখ যে, খুদে কবিদের চলমান এমন সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে ২০১৫ সালের ২৪ ডিসেম্বর ও ২০১৭ সালের চলতি বছরের ১১জানুয়ারী। ওই দুইটি সমাবেশের প্রতিবেদন পরের দিন প্রথম পাতায় ছবি সহ প্রকাশিত হয়েছিল দৈনিক জনকন্ঠ ও দৈনিক প্রথম আলোয়। এবার ২০১৮ সালের খুদে কবিদের এই সমাবেশ ঘিরে দৈনিক জনকন্ঠ ও দৈনিক প্রথম আলোর ওই প্রতিবেদনটি ব্যানারে হেডে শোভা পাচ্ছে জেলা শহরে।