বৃহস্পতিবার ২৪ জানুয়ারী ২০১৯ ১১ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নীলসাগরে একদিন

আজ ৪ জানুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার সহকর্মীদের সাথে নীলফামারী জেলায় অবস্থিত ঐত্যিহাসিক “নীলসাগর” দীঘিটিতে দিনব্যাপী সময় কাটালাম এবং ঘুরে দেখলাম সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রত্নতত্ত্ব অধিপ্তরের অধীনে নির্মাণাধীণ নীলফামারী যাদুঘর। যাদুঘরের সম্মুখভাগের ফুলবাগান সত্যিই অসাধারণ সৌন্দের্যে মনমুগ্ধ করেছে আমাদের সকলকে। আর অতিথি পাখিগুলোর কোলাহল এখনও কানে ভেসে বেড়াচ্ছে।

কথিত মতে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে পরাজিত পান্ডবদের পানিপানের জন্য আনুমানিক অষ্টম খিস্টপূর্বাব্দে রাজা বিরাট কর্তৃক বিন্দাদীঘি ওরফে বিন্নাদীঘি খনন করা হয়। ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক জনাব আব্দুল জব্বার এর উদ্যোগে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে ঐ দীঘিটিকে “নীলসাগর” নামকরণ করা হয়। এর মাঝখানে গড় গভীরতা ২৮ ফুট, তবে কোন কোন অংশে ৩২ ফুট।

নীলফামারী জেলা প্রশাসন জুলাই ১৯৯৮ খ্রিঃ হতে জুন ২০০১ খ্রিঃ পর্যন্ত নীলসাগর দীঘিটি সংস্কার করেন। নীলফামারী জেলার নীলফামারী সদর উপজেলার জে এল নং ৩, ধোবাডাঙ্গা মৌজার খতিয়ান নং ১, দাগ নং ৩১৮৭, ৩১৯৭, ৩১৭৬ ওও ৩২১৩ এর মোট জমির পরিমাণ ৫৩.৯০ একর জমি নিয়ে এ দীঘিটি অবস্থিত।
এখানে পর্যটন, হিন্দুদের স্নানমেলা, মাছ শিকার, অতিথি পাখির অভয়ারণ্য, দোলনা, বিভিন্ন প্রাণির প্রতিকৃতি, জলসেচ সুবিধাসহ নানাবিধ বিশেষত্ব রয়েছে। জেলা সদর থেকে ১৫ কি.মি. দুরত্বে পাকা সড়ক দিয়ে বাস, মাইক্রো বাস, প্রাইভেট কার, অটোরিক্সা, ভ্যান গাড়ীসহ বিভিন্ন যানবাহনে যাতায়াত করা যায় অতি সহজে। রাত্রী যাপনসহ রেস্ট হাউজে পদ্মা (১১০০ টাকা) ও শাপলা (৮০০ টাকা) ভাড়া পাওয়া যায়।

“প্রাণিকূল সৃষ্টির শুরু থেকে আমাদের অজান্তেই মানব কল্যাণে অবদান রেখে চলেছে। কাজেই আমাদের নিজেদের স্বার্থে পক্ষীকুলসহ জীব জগৎ রক্ষা করা প্রয়োজন। আমাদের মনে রাখতে হবে এই পৃথিবী মানুষের সম্পদ নয় বরং মানুষই পৃথিবীর সম্পদ। মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব এবং এই জগতের অংশ। তাই কোন প্রাণী বিলুপ্ত হলে বা ক্ষতিগ্রস্থ হলে পক্ষান্তরে মানুষেরই ক্ষতি হয়। ভারসাম্যপূর্ণ পরিবেশ গঠনের লক্ষ্যে এই প্রকৃতিক বন আপনার, আমার সকলের সম্পদ। এটা রক্ষা করা সকলের নৈতিক দায়িত্ব।” স্লোগানে নীলফামারী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পক্ষীকুলের আশ্রয় ও খাদ্য নিশ্চিতকরণে প্রাকৃতিক বন সৃষ্টি কার্যক্রম বিগত ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ খ্রিস্টাব্দে শুভ উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার ও সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর এমপি।

ইসাবেলা ফাউন্ডেশন এর সহযোগিতায় ও নীলফামারী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে প্রাকৃতিক বন সৃষ্টি কার্যক্রমটি এখনও নীলসাগর দীঘিতে চলমান রয়েছে।

 

লেখক-মো. আতিউর রহমান।

কলামিষ্ট ও সাংবাদিক

বিরল, দিনাজপুর