শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

“নুন দিয়ায় হামাক ভাত খাবা হচে”

একরাম তালুকদার, দিনাজপুর ॥ “মাছ-মাংস তো কিনিবা পারি না। শাক-সবজী কিনিয়ায় কুনোমতে দুইমুঠ খাবার খাই। কিন্তু এখন সবজীর যে দাম, তাতে বাজারোত আসি সবজীর উপর তো হাতই দেয়া যায় না। স্বল্প আয় দিয়া এখন সবজীও কিনিবা পারেছি নাই। বাজারের এই অবস্থা থাকিলে এখন ভাত খামো কি দিয়া? তাই বাধ্য হয়া নুন (লবন) দিয়ায় ভাত খাবা হচে”।

সারাদিন হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে বাজারে পরিবার পরিজনের আহার মেটানোর জন্য সবজীর বাজারে এসে এমনই কথা জানাচ্ছিলেন দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার রিক্সাচালক মোঃ নাগর আলী নাগরু।

তিনি জানান, পরিবারের সদস্য ৬ জন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি তিনি। রিক্সা চালিয়ে সারাদিন যা রোজগার হতো, তা দিয়ে চাল আর শাক-সবজী কিনে পরিবারের জন্য আহার যোগাতেন। হয়তো মাসে একবার-দুবার মাছ মাংস কিনতেন। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে বাজারে সবজীর দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় এখন সবজীও কিনতে পারছেন না। তাই শুধু চাল আর লবন-তেল কিনেই বাড়ী ফিরতে হচ্ছে তাকে। এতে চরম দুর্বিপাকে পড়েছেন তিনি।

শুধু তিনিই নন, বাজারে সবজীর দাম দ্বিগুনেরও বেশী বৃদ্ধি পাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ। দিনমজুর আনিসুর রহমান জানান, বাজারে যে সবজীর দাম, তাতে আমাদের মতো স্বল্প আয়ের লোকের কেনার ক্ষমতা নেই। বড়লোকেরা মাছ মাংসও কিনছে, আবার সবজীও কিনছে। কিন্তু আমাদের তো আর সবজী ছাড়া উপায় নেই। সেই সবজীও আমরা এখন কিনতে পারছি না।

বাজারে সবজী কিনতে আসা ব্যবসায়ী মৃদুল কান্তি দেব জানান, সবজীর দাম অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায় সবজী কিনতে হিমসিম খেতে হচ্ছে তাদের।

গতকাল দিনাজপুরের বিভিন্ন সবজীর বাজারে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ১৫ দিনের ব্যবধানে প্রতিকেজি আলু ২৫ টাকা বেড়ে ৪৫ ও ৫০ টাকা দরে, প্রতিকেজি করলা ৪০ টাকা থেকে বেড়ে ৮০ টাকা, প্রতিকেজি ঢেরস ও পটল ৪০ টাকা থেকে বেড়ে ৭০ টাকা, বেগুন ও মুলা ৩৫ টাকা থেকে বেড়ে ৬০ টাকা, চিচিংগা ২৫ টাকা থেকে বেড়ে ৬০ টাকা, সিম, বাধাকপি, ফুলকপি, গাজর ও টমেটো ৮০ টাকা থেকে বেড়ে ১২০ টাকা, লাউ প্রতিপিচ ৩০ টাকা থেকে বেড়ে ৫০ টাকা, প্রতিকেজি কুমড়া ২০ টাকা থেকে বেড়ে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারের খুচরা সবজী বিক্রেতারা জানান, সবজীর দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় ক্রেতাদের সাথে প্রায়ই বচসা হচ্ছে তাদের। কিন্তু আড়তে বেশী দামে কিনে তাদের বাধ্য হয়েই বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে বলে জানান তারা।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ কাঁচা বাজারের সবজী ব্যবসায়ী হাসান আলী জানান, ৩০ থেকে ৩৫ বছর ধরে সবজীর দোকান করে আসছি। কিন্তু আমার জীবনে সবজীর দাম এত বেশী কখনও দেখিনি। সবজীর দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় তাদের ক্রেতা না কমলেও কমেছে বিক্রির পরিমান। যে মানুষ আগে ২ কেজি বেগুন বা পটল কিনেতো, সেই মানুষই এখন তা কিনছে আধাকেজি।

একই বাজারের আরেক সবজী ব্যবসায়ী জহুরুল হক জানান, দোকানে আসা নিম্ন আয়ের ক্রেতাদের দেখে খুবই খারাপ লাগছে। কিন্তু উপায় নেই। বেশী দামে কিনে বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের। সবজী ব্যবসায়ী আয়নাল হক জানান, বিভিন্ন স্থানে স্থায়ী বন্যার কারনে ক্ষেতেই সবজী নষ্ঠ হয়েছে। তাই সরবরাহ কমে যাওয়ার কারনেই বাজারে সবজীর দাম বেড়েছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email