বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নৃ-ত্বাতিক-প্রতিবন্ধী ঝড়ে পড়া শিশুদের ক্ষমতায়ন ও আত্বনির্ভরশীল হয়ে গড়ে উঠতে সহায়তা করেছে আলোঘর প্রকল্প

রফিকুল ইসলাম ফুলাল ॥ দিনাজপুরে অবহেলিত নৃত্বাতিক আদিবাসী ও প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠির পিছিয়ে পড়া শিশুদের উচ্চ  শিক্ষা-ক্ষমতায়ন এবং আত্বনির্ভরশীল হয়ে গড়ে উঠতে সহযোগীতার হাত বাড়িয়েছে আলো ঘর শিক্ষা সহায়ক প্রকল্প।

সোমবার সকালে দিনাজপুর আঞ্চলিক কারিতাস কার্য্যালয়ের মঙ্গলধ্যান মিলনায়তনে আয়োজিত প্রকল্প সমাপনীর অবহিতকরন সভা কারিতাস দিনাজপুরের সিনিয়র হিসাব রক্ষক ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা মিঃ বিজয় তপ্নো’র সভাপতিত্বে শুরু হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম।

প্রবন্ধ উপস্থপনকালে আলোঘর প্রকল্পের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মিঃ মাইকেল মার্ডী জানান,আলো ঘর প্রকল্প এঅঞ্চলের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠিকে নিয়ে র্দীঘ ৬ বছর কাজ করেছে। নানান প্রতিকুলতার মাঝেও এরিমধ্যে তারা সফলতার শতভাগ অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। তিনি জানান, কর্ম এলাকার ১৭৮টি স্কুলের শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষা লাভের সহায়ক হিসেবে গড়ে তোলা হয়।

যারা অনেকেই এখন জেলার বিভিন্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে মুলস্্েরাত ধারায় শিক্ষা নিচ্ছে। এব্যাপারে সভায় প্রজেক্টরের মাধ্যমে পিছিয়ে পড়া শিশুদের শিক্ষা প্রদান,গ্রহন এবং কর্মক্ষম হয়েছে এমন প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও কারিতাসের সহায়তায় আলোঘর প্রকল্পের অধিনে সারাদেশের ২৭টি জেলা এবং ১০৪টি উপজেলার ১ লাখ ৫৮ হাজার ৬০৫ জন শিশুর প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে মানসম্মত মৌলিক শিক্ষা অধিকার লাভ নিশ্চিতে করতে কাজ করে যাচ্ছে।

এরি অংশ হিসেবে গত ৬ বছরে দিনাজপুর আঞ্চলিক কারিতাস কার্য্যালয়ের তত্ববধানে ৫ জেলার ২৪টি উপজেলার ১০১টি ইউনয়নের ১৯৩ গ্রামের ২৫ হাজার ৫০২ জন অবহেলিত নৃত্বাতিক আদিবাসী ঝড়ে পড়া শিশুদের ক্ষমতায়ন,সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি,আত্বনির্ভরশীল  ও সামাজিক সংযোগের উন্নয়ন নিয়ে কাজ করেছে আলোঘর প্রকল্প। দিনাজপুর সদর উপজেলায় শিক্ষা সহায়তার জন্যে আলো ঘর প্রকল্পের ৫টি বিদ্যালয় রয়েছে,যেখানে কয়েক সহস্রাধিক শিশু স্বর্নিভর হয়ে শিক্ষার আলোয় আলোকিত হচ্ছে।

আলো ঘর প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত শিক্ষক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ক্ষুদ্র নৃ-ত্বাতিক জনগোষ্ঠির শিশুদের প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলা ভাষার পাশাপাশি তাদের মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের সুযোগ ও প্রতিবন্ধী শিশুদের মাঝে শিক্ষা এবং সাক্ষরতা হার বৃদ্ধিতেও কাজ করেছে  তারা।

দিনাজপুর কারিতাস অঞ্চলের কর্ম এলাকা ছিল দিনাজপুর জেলার ১২টি উপজেলা,রংপুরের ৪টি উপজেলা,পঞ্চগড়ের ৩টি উপজেলা,ঠাকুরগাও জেলার ৪টি উপজেলা এবং জয়পুর হাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলা। প্রকল্পটি ২০১১ সালের নভেম্বর মাসে শুরু হয়েছিল ইতিমধ্যেই মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় আবারো ১৬ মাসের জন্যে মেয়াদ বৃদ্ধি করেছে সহায়তাদানকারী সংস্থা। মুক্ত আলোচনা এবং সভায় সরকারী কর্মকর্তা,শিক্ষক,এনজিও প্রতিনিধি ও সাংবাকিরা অংশ নেন।