শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নেপালের জলবিদ্যুৎ আসছে বাংলাদেশে

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাহিদা মিটানো ও শিল্প খাতের উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত করতে নেপাল থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। জলবিদ্যুৎ আমদানির ফলে দুই দেশের বন্ধুত্ব সম্পর্ক আরো জোরালো হবে। নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতেতে জলবিদ্যুৎ আমদানিতে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হয়। এই স্মারকে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু ও নেপালের নেপালের জ্বালানিমন্ত্রী বর্ষা মান পুন অনন্ত।

অপার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার নেপাল। পাহাড়ে ঘেরা একটি ছোট দেশ। শুধু পাহাড়ই নয় রয়েছে পাহাড়ি ঝর্ণা ও পাহাড়ি নদী। যার সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য প্রতি বছর দেশ বিদেশ থেকে বহু পর্যটক ভিড় করে নেপালে। বর্তমানে পর্যটন শিল্পে বেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছে এই দেশ। বিশ্বের জনপ্রিয় ট্রাভেল অনলাইন পোর্টাল ট্রিপ এডভাইসরের এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় ২৫টি দেশের মধ্যে ১৯তম অবস্থানে রয়েছে নেপাল। ২০১৫ সালের ২৫ এপ্রিল ভয়াবহ ভূমিকম্পে পর্যটন শিল্প মুখ থুবড়ে পরে। যদিও তারা আশানুরূপ ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয় এবং পর্যটন শিল্পে আবার আগের রূপে ফিরে যায় এই পাহাড়ে ঘেরা দেশ।

প্রাকৃতিক সম্পদকে কাজে লাগিয়ে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন করছে নেপাল। যদিও বর্তমানে কিছু মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ভারত থেকে নেপাল আমদানি করলেও আর কয়েক বছরের ভিতর ১৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করেছে নেপাল। এবং বাংলাদেশও আমদানি করতে সক্ষম হবে।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে নেপাল থেকে বাংলাদেশে জলবিদ্যুৎ আমদানি, যৌথ বিনিয়োগে নেপালে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন ও বাংলাদেশে বিদ্যুৎ আমদানি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, বিশেষ করে সোলার হোম সিস্টেম প্রসারে নেপালকে বাংলাদেশের সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা হয় স্মারক স্বাক্ষরকালে । নেপালের আপার কারনালি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করবে বাংলাদেশ।

প্রতিবেশী দেশ নেপাল থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির ফলে দুই দেশের বন্ধুত্ব সম্পর্ক আরো বেশি জোরদার হবে এবং বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতেও এগিয়ে আসবে নেপাল এবং বাংলাদেশ।