বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নেপিয়ার ঘাস চাষ করে স্বাবলম্বী হাসেন আলী

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর):নেপিয়ার ঘাস একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান গবাদি পশু পালনের জন্য। বিশেষ করে দুগ্ধবতী গাভীর জন্য সবুজ ঘাসের কোনো বিকল্প নেই। গাভীকে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমানে সবুজ ঘাস দিলে প্রচুর দুধ উৎপন্ন হয়। আগে আমাদের দেশে চারণ ভূমিতে গরুকে খাওয়ানো হত কিন্তু বর্তমানে দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে চারণ ভূমির পরিমান দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। কৃষকেরা তাই অল্প জমিতে উন্নত জাতের ঘাস চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশে বিভিন্ন জাতের ঘাস চাষ হয়। তারমধ্যে নেপিয়ার, পারা, জাম্বু, জার্মান ও পাপচন ঘাস অন্যতম। এসব জাতের মধ্যে বাংলাদেশে নেপিয়ার ঘাস খুবই জনপ্রিয়। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় নেপিয়ার ঘাস খুব ভালো হয়। কচি অবস্থায় পুষ্টিমান বেশি থাকে। গবাদি প্রাণীর জন্য নেপিয়ার অত্যন্ত উপাদেয় ও পুষ্টিকর খাদ্য। কারণ এ ঘাসটি অল্প সময়েই বৃদ্ধি পায় এবং চার বৎসর পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়।
আগামী বর্ষা মৌসুমে দেশের নি¤œ ভূমিগুলো পানিতে তলিয়ে যাবে। এসব অঞ্চলের গরু-মহিষের জন্য ঘাসতো দূরের কথা কয়েক মুঠো খড় যোগানোও কঠিন হয়। এ সময় কৃষক অভাবের তাড়নায় অনেক গরু-মহিষ কম দামে বিক্রি করে দেন। অনেকের গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া খাদ্যাভাবে দূর্বল হয়ে পড়ে। তাই বাংলাদেশে এরকম লক্ষ লক্ষ একর পতিত জমি সারা বছরই খালি পড়ে থাকে। একটু সচেতন হলেই আমরা এই জমি কাজে লাগিয়ে বিপুল অর্থ উপার্জন করতে পারি।
এরই ধারাবাহিকতায় দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর(হালুয়াঘাট) গ্রামের হাসেন আলী বয়স প্রায় ৩৭/৩৮ বছর। নিজের বলতে কিছুই নাই। আছে শুধু আল্লার্হ দেওয়া সুস্থ্য শরীর। অভাবের সংসার ছিল, কয়েকজন ভাই-বোন, লেখা পড়া করা হয়ে ওঠেনি। বিয়ে করে বেকারতেœর অসহ যন্ত্রনা। হঠাৎ মাথায় বুদ্ধি আসে কিছু একটা করার। এলাকায় প্রচুর গরু-ছাগল পালন হয়। বর্ষার সময় গরু-ছাগলের খাদ্য সংকট দেখা দেয়। অন্যের অল্প একটু পতিত জমি বর্গা নিয়ে তাতে ঘাস করে ভাল লাভ হয়। ঘাস কেটে বাজার এলাকায় নিয়ে গেলে খুব তাড়াতাড়ি বিক্রি হয়ে যায়, আস্তে আস্তে বাজারে ঘাসের চাহিদা বাড়তে থাকে। বছর ঘুরতে বর্গা জমি আরও বেড়ে যায়। সংসারের অভাব ঘুচতে থাকে। শুরু হয় স্বচ্ছল জীবন যাপন। এখন প্রায় ৫ বিঘা জমিতে নেপিয়ার জাতের ঘাস চাষ করেছেন হাছেন আলী। এরই ফাঁকে কলা চাষ করেছিলেন প্রায় সাড়ে ৫ বিঘা। হঠাৎ অসময়ে শিলাবৃষ্টি বৈশাখী ঝড়ে অপুরনীয় ক্ষতি হয়ে যায় কলা ক্ষেতের। কলার গায়ে শিলার আঘাতে নষ্ট হয় সমস্ত কলা ক্ষেত। এতে লোকসান হয় প্রায় ৫-৬ লাখ টাকা। নবাবগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসে এই ক্ষতির বিষয়ে অবগত করা হয়। কর্মকর্তা পর্যায়ের পরিদর্শনও হয়। আজ পর্যন্ত কোন ভালো মন্দ খবর আসেনি। শুনেছিলাম প্রাকৃতিক কারনে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের সরকার সহযাগিতা করবে।
আজ ১৪মে ১৮ইং সকালে ঘাসের জমিতে গিয়ে দেখা মিলে হাছেন আলীর। সে বাজারে বিক্রির জন্য ঘাস কেটে ছোট ছোট আঁটি করছে। তার সাথে কথা বলে জানা গেলো তার ভাগ্য ফেরানোর করুন কাহিনী। তার একান্ত আশা এলাকায় গরু-ছাগলের খাদ্যের কোন অভাব সে রাখবেনা। তাতে তার যত কষ্টই হোক। তবে সরকার যদি তার ইচ্ছার সামান্য ভাগিদার হতো তাহলে, তার এ স্বপ্ন পুরন খুব সহজ হতো। হাছেন আলীর ধারনা, তার সাফল্য দেখে অনেকেই ঘাস চাষে ভাগ্য বদলানোর প্রতিযোগিতায় নেমেছে।

হাসেন আলী আরো বলেন, আমি নেপিয়ার ঘাস চাষ করে এখন স্বাবলম্বী। নেপিয়ার জাতের ঘাস চাষ করে কয়েক বছরে তিনি লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদ করেছেন। তার সাফল্যে উজ্জীবিত হয়ে এ ঘাসের চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন একই এলাকার আরও অনেক জন কৃষক। হাসেন আলী জানান, ২০০৩ সালের কথা। তখন দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাতেন তিনি। প্রথমে মানুষের কাছ থেকে ১৬ শতাংশ জমি লিজ নেই পটল চাষ করার জন্য আর সেই পটলের জমিতে সামান্য কিছু জায়গাতে লাগাই নেপিয়ার ঘাস । তার পর থেকে সেই নেপিয়ার ঘাসই তার ভাগ্য বদলে দিয়েছে। নেপিয়ার ঘাস বিক্রি করে বর্তমানে তিনি তিনটি আমের বাগান, ৫ বিঘা জমি বর্গা নিয়ে কলা চাষ এবং ৫ বিঘা জমিতে নেপিয়ার ঘাস চাষ করে বর্তমানে তিনি সাবলম্বী।
তিনি আরো বলেন , আমার সংসারে চার জন সদস্য এই ঘাস বিক্রি করে আমার চার জনের সংসার চালাই। আমার দুইটি মেয়ে বড় মেয়ে মোছাঃ ফাতেমা আক্তার শানু। দাউদপুর মহিলা স্কুল এন্ড কলেজে ৮ম শ্রেনীতে পড়ে আর ছোট মেয়ে মোছাঃ হুমাইরা আক্তার মরিয়ম , দাউদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়লে ক্লাস ওয়ানে পড়া লেখা করে।

তিনি জানান, নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তার কাছে এ ব্যপারে জানতে চাইলে তারা আমাকে কোন প্রকার পরামর্শ প্রদান করেন নি। তাদের নিকট নেপিয়ার ঘাসের বীজ এবং কাটিং নেয়ার জন্যে বহুবার জুতার তলা ক্ষয় করেছি কিন্তু কোন ফল পাইনি। এমন কি? কোন এনজিও আমাকে সহযোগিতা করেনি। আমি দিনের পর দিন অতি কষ্টে বিভিন্ন জায়গা থেকে ঘাসের কাটিং সংগ্রহ করে ঘাসের চাষাবাদ শুরু করি। বর্তমানে আমি এখন অনেকের নিকট ঘাসের কাটিং সরবরাহ করি।
হাসেন আলী বর্তমানে প্রতিমাসে ঘাস বিক্রি করছেন ৪০-৫০ হাজার টাকা। খরচ বাদে তার মাসিক আয় ২৫-৩০হাজার টাকা। সকাল বেলা গাভীর খাবার দেয়ার পর চলে জান নেপিয়ার ঘাসের জমিতে, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তিনি ঘাস কাটেন এবং বিকাল বেলা তার নিজস্ব পরিবহনে করে ঘাস নিয়ে চলে জান দাউদপুর হাটে। সরেজমিনে দেখা যায়, হাসেন আলীর সাফল্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে, ভুট্ট মিয়া, মুকুল মন্ডল, আব্দুর রশিদ লুৎফর রহমান, আলতাফ হোসেনসহ শতাধিক কৃষক নেপিয়ার ঘাস চাষ করছেন।