সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে আখের বিকল্প সুগারবিট উৎপাদনে উজ্জল সম্ভাবনা

Suger bitমোঃ নুরেহাবব সোহেল,বোদা(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

   চিনির আমদানি নির্ভরতা কমাতে আখের বিকল্প হিসেবে সুগারবিট চাষের উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আখের বিকল্প হিসেবে সুগারবিট চাষে কৃষকদের উদ্ধুদ্ধকরণ এবং বাণিজ্যিকভাবে এর চাষাবাদ বাড়াতে পারলে চিনিকলগুলোতে উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে একদিকে চিনির আমদানি নির্ভরতা কমবে অন্যদিকে লাভবান হবে কৃষকরাও। দীর্ঘ মেয়াদি ফসল হিসেবে আখ চাষে লাভ কম হওয়ায় ক্রমশ আখ চাষ কমে যাচ্ছে। আখের অভাবে উৎপাদন মৌসুমে চিনিকলগুলো নির্ধারিত সময়ের আগেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এতে লোকসান দিতে হচ্ছে চিনিকলগুলোকে। সুগারবিট চাষের উজ্বল সম্ভাবনার ফলে দেশের চিনি শিল্পকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে চিনির উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হবে। বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কপোরেশন সুগারবিট চাষে কৃষকদের উদ্ধুদ্ধকরণের লক্ষ্যে পঞ্চগড় চিনিকল এলাকায় এক মাঠ দিবসের আয়োজন করে। পঞ্চগড় চিনিকল পরীক্ষামুলকভাবে সুগারবিট চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন। প্রতিটি সুগারবিট ২ থেকে ৪ কেজি পর্যন্ত ওজন হয়েছেকৃষকদের উদ্ধুদ্ধকরণে সম্প্রতি এক মাঠ দিবসে স্বল্পমেয়াদি ও লাভজনক এই সুগারবিটের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মিল কর্তৃপক্ষ। আখের বিকল্প হিসেবে সুগারবিট চাষের উজ্জল সম্ভাবনা থাকায় আখ চাষের পাশাপাশি সুগারবিট চাষেও আগ্রহী হয়েছেন কৃষকরা।

দেশের ১৫টি চিনিকলে চাহিদার তুলনায় খুব সামান্য চিনি উৎপাদন হয়। বর্তমানে দেশে প্রতি বছর প্রায় ১৫ লক্ষ্য মেট্রিক টন চিনি প্রয়োজন। সে তুলনায় উৎপাদন ক্ষমতা মাত্র দুই থেকে আড়াই লক্ষ্য মেট্রিক টন। চাহিদার অবশিষ্ট চিনি বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। আখের পাশাপাশি সুগারবিট চাষ বাড়াতে পারলে এবং সুগারবিট থেকে চিনি উৎপাদন শুরু হলে চিনিকলগুলো দীর্ঘদিন ধরে উৎপাদন করতে পারবে। এতে চিনির উৎপাদনও বৃদ্ধি পাবে। চিনিকলগুলো একদিকে যেমন লাভজনক হবে অন্যদিকে দেশে চিনির চাহিদা পুরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব হবে।

পঞ্চগড় সুগার মিলের প্রকৌশলী আব্দুর রশিদ জানান,বিশ্বের উন্নত অনেক দেশে এখন সুগারবিটের চিনি উৎপাদন করা হচ্ছে। সরকার চিনি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে সুগারবিট চাষে বিশেষ প্রকল্প গ্রহণ করেছেন। এ প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকদের সুগারবিট চাষাবাদে উদ্ধুদ্ধকরণ করা সম্ভব হলে চিনি উৎপাদন, চিনিকলগুলোকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করা যাবে। কৃষকরাও সুগারবিট চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবে।

সুগারবিট একটি স্বল্প মেয়াদী ফসল (মাত্র ৫ থেকে ৬ মাস)। এটা বছরে দুবার চাষ করা যায়। অন্যদিকে আখ দেড় বছর মেয়াদী ফসল। জমিতে একবার আখ চাষের বিপরীতে সুগারবিট দুবার চাষ করা যায়। সুগারবিট চাষে খরচও কম। সার কীটনাশকও কম লাগে। ১০০ কেজি আখে সবোর্চচ ৬ থেকে ৭ কেজি চিনি হয়। অন্যদিকে সুগারবিট থেকে শতকরা ১২ থেকে ১৪ কেজি চিনি পাওয়া যায়।