সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে চা পাতার ন্যায্য মূল্যের দাবিতে চাষিদের বিক্ষোভ

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি : ক্রমাগতভাবে কাঁচা চা পাতার মূল্য কমানোর প্রতিবাদে পঞ্চগড় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চা চাষিরা প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। আগামী দু সপ্তাহের মধ্যে সম্পুরক দরে চাষিদের নিকট থেকে চা পাতা ক্রয় না করলে জেলার সকল চা কারখানা বন্ধসহ বৃহত্তর কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন চা চাষিরা।  আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড় শেরে বাংলা পার্কে বাংলাদেশ স্মল টি গার্ডেন ওনার্স এসোসিয়েশন ৬ দফা দাবিতে এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।

এ সময় জেলার প্রায় কয়েশ ক্ষুদ্র চা চাষিরা অংশগ্রহণ করেন। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা বিদেশ থেকে অবাধে চা আমদানি নিরুৎসাহিত করা এবং সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে চা প্রবেশ বন্ধ করা, পঞ্চগড়ে সরকারি চা কারখানা স্থাপন করা, কাঁচা চা পাতার ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা, চা চাষি এবং চা কারখানা বিশেষ ভর্তুকী প্রদান করা, পঞ্চগড়ে ৩য় নিলাম কেন্দ্র স্থায়ী স্থাপন করাসহ আঞ্চলিক টি বোর্ডে অভিজ্ঞ কারিগরী দক্ষতা সম্পন্ন জনবল নিয়োগ করার দাবি তুলে চা শিল্পকে রক্ষায় সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। 

এ দিকে দেশের তৃতীয় চা অঞ্চল হিসেবে চা শিল্পের বাণিজ্যিক ক্ষেত্র গড়ে উঠে পঞ্চগড়ে । কিন্তু হঠাৎ করে কাঁচা চা পাতার মূল্য কমে যাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছেন ক্ষুদ্র চা  চাষিরা। তাদের অভিযোগ কারখানা মালিকরা সিন্ডিকেট সৃষ্টির মাধ্যমে কাঁচা চা পাতার মূল্য কমিয়েছেন। অন্যদিকে কারখানা  মালিকরা বলছেন ক্ষুদ্র চাষিরা কাঁচাপাতা তুলতে নিয়ম মানছেনা বলে চায়ের মান কমে গেছে। তাই অকশন বাজারে তৈরী চায়ের মূল্য কমে যাবার কারণে কমেছে কাচা চা পাতার দামও। ২০১৮ সালে পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতার মূল্য ছিলো কেজী প্রতি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। কিন্তু এ বছর হঠাৎ করেই মূল্য কমে যায় অর্ধেকেরও কম। 

বর্তমানে পঞ্চগড়ের ১৩টি চা কারখানার কতৃপক্ষ প্রতি কেজি কাঁচা চা পাতার মূল্য দিচ্ছেন মাত্র ১০ থেকে ১২ টাকা। ফলে বিপাকে পড়েছেন জেলার প্রায় ৮ হাজার ক্ষুদ্র চা চাষি । তারা বলছেন এই মূল্যে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের। চা শ্রমিকদের মুজুরী এবং সার কিটনাশকের মূল্য পরিশোধ করতে ঘর থেকে টাকা ঢালতে হচ্ছে তাদের। অনেকে হতাশ হয়ে রাগে ক্ষোভে চায়ের গাছ থেকে কাঁচা চা পাতা কেটে ফেলে দিচ্ছেন। চাষিদের অভিযোগ কারখানার মালিকেরা সিন্ডিকেট করে কাঁচা চা পাতার মূল্য নিয়ন্ত্রণ করছেন। 

বিক্ষোভ কর্মসূচি শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এক স্বারকলিপি প্রদান করা হয়। 

বিক্ষোভ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্মল টি গার্ডেন ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি আমিরুল হক খোকন, সিনিয়র সহ-সভাপতি বশিরুল আলম, আব্দুল জব্বার, পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত স¤্রাট, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ তারিন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম, সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান খান, অ্যাড. আবু বক্কর সিদ্দিক, হারুনুর রশিদ লিটন প্রমূখ।