মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে জন্মের ৩ ঘন্টার পর নবজাতক বিক্রি

Sisu-03বীরগঞ্জ প্রতিদিন: পঞ্চগড়ে জন্মের ৩ ঘন্টার পর নবজাতক মেয়ে সন্তান বিক্রির ঘটনা ঘটেছে।
সরেজমিনে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় পঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের দিন মজুর রফিকুল ইসলামের স্ত্রী শেফালি বেগম (৩০) পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতারে স্বাভাবিকভাবে একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান প্রসব করেন। কিন্তু জন্মের পরেই কন্যা সন্তান দেখে মা শেফালি ও নানী ফাতেমা কান্না করতে থাকে। তাদের কান্না দেখে হাসপাতালের আশে পাশের বেডের রোগীর আত্মীয় স্বজনরা কান্নার কারণ জানতে চাইলে শেফালি বলেন, আমার আগের আরও ৪ টি কন্যা সন্তান আছে। এবার ছেলে সন্তানের জন্য গর্বধারণ করেছিলাম। প্রসব বেদনা শুরু হলে বাড়ি থেকে  বেড় হওয়ার আগে আমার স্বামী বলে দিয়েছে যে, মেয়ে সন্তান হলে তাকে ফেলে দিয়ে আসতে হবে। তা না হলে বাড়িতে জায়গা হবে না। এরপর তার স্বামী মেয়ে সন্তানটিকে বিক্রি করে দিতে বলে। বাচ্চা বিক্রির কথা শুনে জনৈক ব্যক্তি নিজ আত্মিয়র জন্য ৫ হাজার টাকার  দেয়ার কথা বলে বাচ্চাটি কিনে নেন। কিন্তু তা হল না। ঐ আত্মীয় এই মুহূর্তে আসতে রাজশাহী থেকে পঞ্চগড় আসতে না পাড়ায় নেয়ার প্রায় দুই ঘন্টা পর বাচ্চাটি ফেরত দেয়। বাচ্চা ফেরতের পর পরই অনেকেই বাচ্চাটি দত্তক নেয়ার জন্য হাসপাতালে ছুটে আসেন এবং বাচ্চা দত্তক নেয়ার ইচ্চা প্রকাশ করেন। কিন্তু আসেনি জন্মদাতা পিতা রফিকুল। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অভাব আর স্বামীর ভয়ভীতি নিয়েই বাচ্চা নিয়ে বাড়ি ফেরেন শেফালি। শেফালি জানায়, তিনি স্বামী নিয়ে পিতৃহীন মার পরিবারে থাকেন। স্বামী রফিকুল একজন দিনমজুর । তার আগের ৪ সন্তানের মধ্যে বড় মেয়ে রিমি নবম শ্রেণিতে, তার ছোট পপি ষষ্ঠ শ্রেণি, তার ছোট আত্রি তৃতীয় শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। ছোট মেয়ে মিতুর বয়স সাড়ে তিন বছর। শেফালি ও তার মা  রাইস মিলে ও মানুষের বাড়িতে কাজ করে  এই মেয়েদের লেখাপড়া করাচ্ছেন। এর মধ্যে আবার গর্ববতী হয়ে পড়লে কর্মহীন হয়ে পড়েন।
তার স্বামী রফিকুলের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বার বার নবজাতক মেয়েটিকে বিক্রি করে দেয়ার অনুরোধ জানান।