বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে শত্রুতার জেরে পুকুরে বিষ প্রয়োগে মাছ নিধন

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড়ের রামেরডাঙ্গায় পূর্ব শত্রুতার জেরে পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ নিধনের মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গছে। ঘটনাটি ঘটেছে ওই এলাকার হাবুল হোসেনের পুকুরে। এ ঘটনা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন হাবুল হোসেনের স্ত্রী শিরিন আক্তার।
শিরিন আক্তারের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সদর উপজেলার রামেরডাঙ্গা এলাকার হাবুল হোসেন দুই বিঘা বিশিষ্ট ভাড়াকৃত দুটি পুকুরে দীর্ঘদিন যাবত মাছ চাষ করে আসছিল। একই এলাকার কামারুর ছেলে (১) আরিফুল ইসলাম ও (২) আবেদ, আবেদের স্ত্রী (৩) নুর নেহার, ময়েজউদ্দীনের ছেলে (৪) রুবেল, বাদশার ছেলে (৫) শাকিল, কামারুর মেয়ে (৬)রিক্তা, বাদশার স্ত্রী (৭) কুলসুম এবং (৮) ময়েজউদ্দীনের বাড়ি ওই কুকুরের পাশে হওয়ায় আমাদের সর্বশান্ত করিবার জন্য দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে আসছিল। পরে তাদের হুমকির কারণে গত সোমবার (৫ নভেম্বর) আমার ছেলে সাকিল ইসলাম ১,২,৩,৫,৬ নং এর নামে পঞ্চগড় সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে। যাহার ডায়েরী নং-২২৯। পরে গত শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) শ্বাশুড়ী রমিছা আক্তার পুকুর পাড়ে গিয়ে দেখে ৫৫ থেকে ৬০ মণ মাছ মরে পানির উপর ভেসে রয়েছে। যার মুল্য প্রায় চার লক্ষ বিশ হাজার টাকা। তাৎক্ষনিক এলাকার লোকজনকে জানালে সকলেই পুকুরের পানিতে মাছ মরে থাকতে দেখে। পরে জানতে পারি ১,২,৫ ও ৬ নং বিবাদী বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) ৯টার সময় পুকুরের পাশে ঘুরাঘুরি করছিল। ঘটনার পর স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ মৎস্য কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এবং শনিবার লিখিত ভাবে থানায় অভিযোগ দায়ের করি।
মৎস কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, আমি ঘটনার দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দেখেছি। পুকুরের পানিতে নেশা জাতীয় কোন ট্যাবলেট প্রয়োগ করা হয়েছে বলে আমি মনে করছি।
পঞ্চগড় সদর থানার এসআই মোকাদ্দেশ আলী অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার সত্যতা জাচাই করে পরবর্তী ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।#