বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পর্যটন খাতে দিন বদল

নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, সমৃদ্ধ ইতিহাস ও ঐতিহ্য, বৈচিত্র্যপূর্ণ সংস্কৃতি, দৃষ্টিনন্দন জীবনাচার বাংলাদেশকে গড়ে তুলেছে আকর্ষণসমৃদ্ধ পর্যটন গন্তব্য হিসেবে। তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশ স্বল্প আয়তনের দেশ হলেও বিদ্যমান পর্যটন খাতে যে বৈচিত্রতা রয়েছে, তাতে সহজেই পর্যটকদের আকর্ষণ করতে পারে। আওয়ামী লীগ সরকার তাই পর্যটন শিল্পকে একটি দারুণ সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে বিবেচনায় এনেছে।

পর্যটন শিল্প দ্রুত বিকাশে ২০২৬ সালকে লক্ষ্য নিয়ে বিনিয়োগকারীদের উৎসাহ প্রদান, অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও বিদেশি পর্যটক টানার বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণ করছে শেখ হাসিনা সরকার। লক্ষ্য পূরণ হলে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখবে এ দেশের পর্যটন খাত। এই লক্ষ্য সামনে রেখে ২০০৯ সালে বিশ্বের দীর্ঘতম কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভ্রমনরত স্থানীয় ও বিদেশী পর্যটকদের নিরাপত্তা বিধানে গঠিত হয় পর্যটন পুলিশ। পর্যটন পুলিশের কলেবর বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের অন্যান্য পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় এর নিরাপত্তা বিধান কার্যক্রমের আওতায় আনার পরিকল্পনা আছে। ভাল সেবা দেয়ার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে ট্যুরিস্ট পুলিশের ইন্সপেক্টর থেকে কনস্টেবল পদমর্যাদার সর্বমোট ৪৬০ জনকে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়েছে।

প্রশিক্ষণ দিয়েছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অভিজ্ঞ শিক্ষকমন্ডলী। পাশাপাশি বাংলাদেশে পুলিশের মেট্রো ও জেলা প্রশাসনসহ সকল ইউনিটের সাথে সমন্বয় করে কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। ট্যুর অপারেটর ও পর্যটন সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগযোগপূর্বক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

হোটেল, মোটেল, বিচ ও পর্যটন এলাকার স্টোকহোল্ডারদের সাথে উন্নত সেবা প্রদানের লক্ষ্যে নিয়মিত যোগাযোগ করা হচ্ছে। ইমার্জেন্সি সার্ভিসের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। অপরদিকে সরকারি অর্থায়নে জাহাঙ্গীরনগর ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণের তত্ত্বাবধানে পর্যটনের গবেষণা কার্যক্রম চলছে।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা প্রসঙ্গে ডিআইজি বলেন, পর্যায়ক্রমে জনবল বৃদ্ধি করা হবে। দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মদক্ষতা উন্নয়ন করা হবে। এছাড়া, ইন্টেলিজেন্স উইং গঠন, পর্যায়ক্রমে অধিকক্ষেত্র সম্প্রসারনণ পূর্বক দেশের সকল পর্যটন কেন্দ্রগুলিকে নিরাপত্তা বলয়ে নিয়ে আসা, সকল ট্যুরিস্ট স্পর্টে তথ্যকেন্দ্র স্থাপন ও প্রাথমিক চিকিত্সা প্রদানের ব্যবস্থা করা, আউট সোর্সিং এর মঞ্জুরীকৃত জনবল পর্যায়ক্রমে রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত করা, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, ট্যুরিজম বোর্ড, পর্যটন কর্পোরেশন এবং সংস্থাসমূহের সাথে সমন্বয় সাধন, পর্যটকদের নিরাপদে এবং দ্রুততার সাথে পর্যটনস্থলে গমনের বিষয়টি ত্বরান্বিতকরণ, পর্যটকদের দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য প্রদানসহ সকল প্রকার সহযোগিতা করা।

২০০৯ সাল থেকে গত নয় বছরে ছয় হাজার ৬৯৯ দশমিক ১৬ কোটি টাকা পর্যটন শিল্পের মাধ্যমে আয় হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের পর্যটন খাত জিডিপিতে ২ দশমিক ১ শতাংশ অবদান রাখছে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো পর্যটকদের জন্য বিশেষ প্যাকেজ চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করায় এ খাতে প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। বর্তমান সরকারের শাসনামলে এটি একটি অন্যতম সাফল্য। সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের চেহারাই অনেকটা বদলে যেতে শুরু করেছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) এক জরিপ প্রতিবেদনে দেখা গেছে, দেশের কর্মসংস্থানের ১ দশমিক ৪১ শতাংশ বা প্রায় সাড়ে ৮ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে পর্যটন খাতে। এই শিল্পের মাধ্যমে দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ১ দশমিক ৫৬ শতাংশ বা মূল্য সংযোজন হচ্ছে ১৬ হাজার ৪০৯ কোটি টাকা। বিভিন্ন পরিসংখ্যানের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণে জানা গেছে পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত হোটেল ব্যবসা, রেস্তোরা ব্যবসা, পরিবহনসহ বিনোদন খাত থেকে এ আয় হচ্ছে। বিশ্ব পর্যটন সংস্থার প্রাক্কলন অনুযায়ী সমগ্র বিশ্বে ২০২০ সাল নাগাদ পর্যটন থেকে প্রতিবছর ২ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় হবে। ২০৫০ সাল নাগাদ ৫১টি দেশের পর্যটক আমাদের দেশে আসবে।

শেখ হাসিনা সরকার বাংলাদেশের পর্যটনশিল্প বিকাশে যেসব কৌশল নিয়েছে সেগুলো হলো : যোগাযোগ ও অবকাঠামো উন্নয়ন, পর্যটন স্পটের ছবি ও ঠিকানা প্রদর্শন, সব ল্যান্ড পোর্টে ভিসা অন অ্যারাইভ্যাল সুবিধা প্রবর্তন, প্রণোদনার সুযোগ সৃষ্টি, নদ-নদীর তীরে আনন্দ আয়োজন ও নৌকা ভ্রমণ, সংবাদমাধ্যমে পর্যটন সম্পর্কিত ইতিবাচক প্রচারণা, অনলাইনে প্রচারণা বাড়ানো, বহুমুখী পর্যটনব্যবস্থা চালুকরণ, সাংস্কৃতিক পর্যটন, জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা, বেসরকারি খাতকে উসাহিতকরণ, দেশীয় বিমান পরিবহন সংস্থায় পর্যটনবান্ধব উদ্যোগ গ্রহণ, বৈদেশিক মিশন, মানবসম্পদ উন্নয়ন এবং ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টার তৈরী।