শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানের শোক প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রীর তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা

timthumb.phpজামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল যুদ্ধাপরাধী আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করায় পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে প্রস্তাব পাসের কঠোর সমালোচনা করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, কাদের মোল্লার ফাঁসি নিয়ে শোক প্রস্তাব করার অধিকার পাকিস্তানের নেই। আজ বুধবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে ১৪ দলের শীর্ষ নেতাদেও সাথে বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। কাদের মোল্লার ফাঁসিকে কেন্দ্র করে জামায়াত-শিবির সারাদেশে যে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে তারও তীব্র নিন্দা জানিয়ে নাশকতাকারীদের আইনের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। ১৪ দলের এ যৌথসভায় শরিক সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাকিস্তানি দালালদের অস্তিত্ব এদেশে আর থাকবে না। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। স্বাধীনতার সুফল সবার কাছে পৌঁছে দেয়া হবে। চলন্ত বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার কথা স্মরণ করিয়ে তিনি বলেন, আজও দিনাজপুর ৬ আসনের এমপির পেট্রোল পাম্প, ট্রাক আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ধ্বংস করা হয়েছে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।
গত কয়েকদিনে বিরোধী দলের অবরোধের সময় সারাদেশের চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আন্দোলনের নামে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতা-কর্মী, এমপি-মন্ত্রীদের বাড়ি-ঘরে আগুন দিচ্ছে। হামলা চালিয়ে হত্যা করছে। তিনি বলেন, সোমবার আমাদের দলীয় এমপি আসাদুজ্জামান নূরের গাড়ি বহরে হামলা চালিয়ে জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা আওয়ামী লীগের ৫ জন কর্মীকে হত্যা করেছে। মঙ্গলবার দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থীর বাড়ি-ঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান জ্বালিয়ে দিয়েছে।
এসবের পেছনে বিরোধী দলের হাত রয়েছে অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা এসব করবে, আর আমরা বসে বসে দেখবো। এরকম ভাবলে বিরোধী দল ভুল করবে। তাই কঠোর হওয়ার আগে নাশকতার পথ পরিহার করে সুষ্ঠু ধারায় রাজনৈতিক চর্চা এবং শন্তিপূর্ণ আন্দোলন করার আহ্বান জানান তিনি।
শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় এলেই লুটপাট, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। আমি দেশবাসীকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানাচ্ছি। তারা যে হত্যা, তাণ্ডব চালাচ্ছে এর প্রতিরোধ আমরা করবো। জাতি আজ অভিশাপ মুক্ত হলো, এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, তাদের আর যুদ্ধাপরাধীদের নির্বাচনে ভোট দিতে হবে না। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে এবং সেই মোতাবেক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ভণ্ডুল করতে দেয়া হরতাল-অবরোধ জনগণ আর মানবে না। দেশবাসীকে এ ব্যাপারে আরও সচেতন থাকার আহ্বান জানচ্ছি।
বিরোধী দল বিএনপির সামালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, একটি অযৌক্তিক দাবিতে আন্দোলনের নামে জামায়াত-শিবিরের নাশকতায় উস্কানি দিচ্ছে। তারা এমন নাশকতা চালালে তা কঠোর হস্তে দমনের হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, বিরোধী দল যদি মনে করে তাদের এ নৈরাজ্যে আওয়ামী লীগ তথা ১৪ দল ভয় পেয়েছে, তা তাদের ভুল ধারণা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আমরাও কঠোর হতে বাধ্য হবো।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেত্রীর মুখোশ আজ বাংলাদেশের মানুষের কাছে উন্মোচন হয়ে গেছে। খালেদা জিয়া গং এ যারা আছে তারাই পাকিস্তানের দোসর হিসেবে অতীতেও কাজ করেছে এখনও কাজ করছে। পাকিস্তান যখন কাদের মোল্লার ফাঁসির বিরুদ্ধে পার্লামেন্টে শোক প্রস্তাব আনে তখনই তাদের চেহারা মানুষের কাছে পরিস্কার হয়ে যায়। পাকিস্তানের দালালদের ঠাঁই বাংলাদেশের মাটিতে থাকবে না বলেও ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।