সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পাক-ভারত উত্তেজনা: বৈঠকে বসতে পারেন দু‘দেশের সেনা কর্মকর্তারা

ডেক্স নিউজ: ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌ ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌

পাকিসত্মান ও ভারতের উচ্চপদস্থ সেনা কর্মকর্তারা আগামী মাসে বৈঠকে বসতে পারেন বলে পাকিসত্মানের একটি ইংরেজি দৈনিক জানিয়েছে। গোলযোগপূর্ণ কাশ্মিরের বিতর্কিত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) বরাবর যুদ্ধবিরতি কার্যকর করার পরিকল্পনা নিয়ে এ বৈঠক হতে পারে। দেশ দুইটির সীমামেত্ম যখন প্রচন্ড উত্তেজনা বিরাজ করছে তখন সম্ভাব্য বৈঠকের এ খবর প্রকাশিত হলো।

গত মাসে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৮তম অধিবেশনের অবকাশে নিউ ইয়র্কে পাকিসত্মানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। এ বৈঠকে এলওসি‘তে বিরাজমান উত্তেজনা কমানোর সিদ্ধামত্ম নেয়া হয়।

দুই প্রধানমন্ত্রীই কাশ্মির সীমামেত্ম যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন বন্ধের উপায় খুঁজে বের করার জন্য নিজ নিজ দেশের ডিরেক্টর জেনারেল মিলিটারি অপারেশন্স (ডিজিএমও)‘কে নির্দেশ দেন। অবশ্য, পাক সেনাসূত্রকে বলা হয়েছে, ভারতের সঙ্গে ডিজিএমও পর্যায়ে বৈঠকের কোনো চূড়ামত্ম সিদ্ধামত্ম এখনো নেয়া হয়নি।

একই কথা বলেছেন পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। তারা বলেন, ইসলামাবাদ শামিত্ম প্রক্রিয়ার প্রতি যে আগ্রহ দেখাচ্ছে নয়াদিল্লি এখনো তা গ্রহণ করতে পারছে না। কিন্তু দুই দেশের ডিজিএমওরা যে মুখোমুখি আলাপ করবেন সে বিষয়ে নিউ ইয়র্কে দুই প্রধানমন্ত্রীই সিদ্ধামত্ম নিয়েছিলেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান। অবশ্য, প্রতি মঙ্গলবার দুই দেশের ডিজিএমওরা হট লাইনের মাধ্যমে নিয়মিত আলাপ করেন বলে পাক সরকারের এক পদস্থ কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

এর আগে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সালমান খুরশিদও বলেছেন, পাক-ভারত শামিত্ম আলোচনা আবার শুরুর সময় এখনো আসেনি। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে কাশ্মির সীমামেত্ম উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের গেরিলাদের পাকিসত্মান সহায়তা করছে বলে অভিযোগ করছে দেশটির সেনাবাহিনী। বিরাজমান উত্তেজনার মধ্যে শেষ পর্যমত্ম নীরবতা ভেঙেছেন পাক সেনাপ্রধান জেনারেল আশফাক পারভেজ কিয়ানি। তিনি ভারতের এ জাতীয় অভিযোগকে ‘দুর্ভাগ্যজনক, ভিত্তিহীন এবং উস্কানিমূলক’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, পাক সেনাবাহিনী ধৈর্যের পরিচয় দিচ্ছে। কিন্তু এ কারণে ‘আঞ্চলিক শামিত্মর সম্ভাবনাকে বিনষ্ট করে এমন ভিত্তিহীন’ অভিযোগ পাক সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে উত্থাপিত হতে পারে না।