শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পানির ফোয়ারা আর আলোকসজ্জা দিয়ে কি হবে-আগে আমাদের রাস্তাগুলো ঠিক করে দেয়া হোক

একরাম তালুকদার, দিনাজপুর ॥ “দৃষ্টিনন্দন পানির ফোয়ারা আর আলোকসজ্জা দিয়ে কি হবে? আগে আমাদের রাস্তাগুলো ঠিক করে দেয়া হোক। দীর্ঘদিন থেকে শহরের রাস্তাগুলোর যে দুরবস্থা, চলাচল করাটাই অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব রাস্তায় চলাচল করতে ঝাকুনী খাওয়ার পর শহরের এসব আলোকসজ্জা আর পানির ফোয়ারা আমাদের চোখে সর্ষের ফুলের মতো দেখাচ্ছে।”

দিনাজপুর শহরের জেলরোড মোড়ে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দৃষ্টিনন্দন পানির ফোয়ারা দেখে এমনই কথা জানিচ্ছিলো দিনাজপুর পৌরসভার অধিবাসী মামুনুর রহমান।

তিনি বলেন, বছরের পর বছর থেকে সংস্কার না করায় দিনাজপুর শহরের বেশীরভাগ সড়ক দিয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। খানাখন্দকে পরিনত হয়েছে সড়কগুলো। কোথাও কোথাও সৃষ্টি হয়েছে গভীর গর্তের। সড়ক আছে বলে মনেই হয়না। মানুষ চরম কষ্ট নিয়ে এসব সড়ক দিয়ে চলাচল করছে। কিন্তু পৌর কর্তৃপক্ষের সেদিকে নজর নেই।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে প্রায় ২৫ বর্গকিলোমিটার আয়তনের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী দিনাজপুর পৌরসভায় সড়ক আছে প্রায় ২’শ কিলোমিটার। কিন্তু এসব সড়ক পৌর কর্তৃপক্ষ দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না করায় জরাজীর্ণ ও চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। শহরের প্রধান দু-একটি সড়ক বাদ দিয়ে অধিকাংশ সড়কেরই বেহাল দশা। কোথাও সড়কের কার্পেটিংসহ উপরের অংশ উঠে গেছে। অনেক স্থানেই খানা খন্দক ও গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

দিনাজপুর শহরের গুরুত্বপুর্ণ বানিজ্যিক এলাকা বাহাদুরবাজার, শহরের বালুয়াডাঙ্গা, চাউলিয়াপট্টি, ঘাসিপাড়া, মুদিপাড়া, পাহাড়পুর, ক্ষেত্রীপাড়া, লালবাগ, গোলাপবাগ, সুইহারী, নয়নপুর, বালুবাড়ী, মিশন রোড, রামনগর, মুন্সীপাড়া, উপশহর, গুরুত্বপুর্ণ বানিজ্যিক এলাকা পুলহাট, রাজবাটীসহ শহরের প্রায় প্রতিটি এলাকার সড়কের এই বেহাল দশা।

বছরের পর বছর সংস্কার না করায় জরাজীর্ণ হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে এসব সড়ক। এই অবস্থায় বাধ্য হয়েই এসব সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে পৌরবাসী। ভাঙ্গা ও খাল খন্দকে ভরা এসব সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা।

পৌরবাসীর এই দুর্দশার মধ্যে দিনাজপুর পৌর কার্যালয় চত্বরে একটি সুসজ্জিত আলোকসজ্জার টাওয়ার এবং শহরের জেলরোড মোড়ে দৃষ্টিনন্দন পানির ফোয়ারা স্থাপন করায় সমালোচনা ও ক্ষোভের সৃষ্ঠি হয়েছে পৌরবাসীর মধ্যে। এতে অনেকেই টিপ্পনী কাটছে।

দিনাজপুর শহরের অটোরিক্সা চালক আমিনুল ইসলাম জানান, শহরের বিভিন্ন সড়ক দিয়ে চলাচলই করা যাচ্ছে না। খাল খন্দকে পড়ে প্রায়শই অটোরিক্সা বিকল হয়ে যাচ্ছে ও যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিচ্ছে। আর সড়কের সংস্কার না করে পৌর কর্তৃপক্ষ আলোকসজ্জার টাওয়ার আর পানির ফোয়ারা নির্মাণ করেছে। তার মানে উপরে ফিটফাট, ভিতরে সদরঘাট।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর নাগরিক উদ্যোগ-এর সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জানান, বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে গেলে সত্যিই মনে হচ্ছে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে হাটছে। কিন্তু দিনাজপুর শহরে তার বিন্দুমাত্র চিহ্ন নেই। এতো জরাজীর্ণ রাস্তাঘাট বাংলাদেশের কোথাও আছে বলে মনে হয় না। রাস্তাঘাট, ময়লা আবর্জনা আর ড্রেনেজ ব্যবস্থার দুরবস্থার কারনে পৌরবাসী মহাদুর্ভোগের মধ্যে রয়েছে। এরই মধ্যে মেয়রসাহেব আলোকসজ্জা সম্বলিত টাওয়ার ও ফোয়ারা স্থাপন করেছে। এটা দিনাজপুর শহরের জন্য বেমানান ও পৌরবাসীর সাথে প্রতারনার শামীল। এসব করার আগে তিনি শহরের রাস্তাঘাটগুলো সংস্কার করে চলাচলের উপযোগী করে তোলার আহ্বান জানান।

দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম পৌর এলাকার রাস্তাঘাটের দূর্দশার কথা স্বীকার করে বলেন, পৌর এলাকার রাস্তা ও ড্রেন সংস্কারের জন্য পঞ্চাশ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। অতি দ্রুত কাজ শুরু হবে। কাজ শেষ হলেই জনদুর্ভোগ কমবে বলে জানান তিনি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email