বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে শ্রমিক ধর্মঘট অব্যাহত

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের পার্বতীপুর মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে পাঁচদফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ৩ সপ্তাহ ধরে খনি শ্রমিকদের ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। ধর্মঘটের ফলে খনি থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। পাথরের মজুদ শুন্য হয়ে পড়ায় ক্রেতারা ফেরত যাচ্ছেন। এতে ক্ষতির পরিমান তিন কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশিস্নষ্টরা। গত ২৫ নভেম্বর থেকে শ্রমিকরা এই ধর্মঘট পালন করে আসছে।

খনি নিরাপত্তা ঝুঁকিতেও পড়েছে কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে চলমান শ্রমিক ধর্মঘট চলাকালে খনি থেকে চুরি হয়ে  গেছে প্রায় চার লাখ টাকার মালামাল। এছাড়া শ্রমিক ধর্মঘট চলাকালিন সময়ে নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি শিগগিরই তাদের কাজ শুরম্ন করবে। এক্ষেত্রে শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিলে তাদের বাদ দিয়ে নতুন শ্রমিক নিয়োগ দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

খনি কর্তৃপক্ষ অধিকাংশ দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস এবং বেতন বাড়ানোর প্রসত্মাব দিলেও শ্রমিকরা তা প্রত্যাখান করে ছাটাইকৃত শ্রমিকদের চাকরিতে পুনর্বহাল ও স্থায়ী নিয়োগের দাবিতে অনড় রয়েছেন। এ অবস্থায় শ্রমিকরা ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে খনি কর্তৃপক্ষের প্রসত্মাব মেনে না নিলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি নতুন করে শ্রমিক নিয়োগ দেয়ার কাজ শুরু করবে বলে সংশিস্নষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

খনি কর্তৃপক্ষ জানায়, ছাটাইকৃত পাঁচ শ্রমিককে চাকরিতে পুনর্বহাল, পেট্রোবাংলার অধিনে স্থায়ী নিয়োগ, সরকার ঘোষিত ২০ ভাগ মহার্ঘ ভাতাসহ পাঁচদফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন করে আসছেন শ্রমিকরা।

এ ব্যাপারে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন জানান, শ্রমিকদের পাঁচদফা দাবির তিনটিই মেনে নেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়েছে। এছাড়া, বাড়তি সুবিধা হিসেবে আগামী জানুয়ারি থেকে নতুন ব্যবস্থাপনায় শ্রমিকদের বেতন ২ হাজার ৫শ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। তিনি জানান, বর্তমানে একজন শ্রমিক সাকুল্যে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার ৩৮০ টাকা বেতন পান। সেখানে জানুয়ারি মাস থেকে ১৭ হাজার ৯৬১ টাকা বেতন পাবেন তারা। এরপর জুলাই’১৪ থেকে দেয়া হবে ১৯ হাজার ৭০৭ টাকা করে। এরপরও তারা কাজে যোগদান না করে চাকুরিচ্যুত পাঁচ শ্রমিককে পূনর্বহাল ও স্থায়ী নিয়োগ দাবিতে অনড় রয়েছেন।

এ অবস্থায় খনির নতুন ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পাওয়া জিটিসি ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে শ্রমিকদের মতামত জানতে  চেয়েছে। শ্রমিকরা এতে রাজি না হলে জিটিসি নতুন করে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে কাজ শুরম্ন করবে। বিষয়টি শ্রমিক নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান বস্নস্টার কোম্পানিকে জানানো হয়েছে। বস্নস্টার কোম্পানিও সব শ্রমিককে পত্র দিয়ে ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে লিখিতভাবে তাদের মতামত জানতে চেয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। চাকুরিচ্যুতদের পুনর্বহাল প্রসঙ্গে মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন আরও জানান, চাকুরিচ্যুত পাঁচ শ্রমিকের বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। তাই এই মুহূর্তে তাদের পূনর্বহাল করা সম্ভব নয়। চলমান শ্রমিক আন্দোলনের কারণে খনি নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে গত ৬ ডিসেম্বর খনির কট্রোলরম্নম থেকে ট্রাক ওয়ারের কমপিউটারসহ প্রায় চার লাখ টাকার মালামাল চুরি হয়ে গেছে। চলমান শ্রমিক আন্দোলনের কারণে তৃতীয় পক্ষ বা শ্রমিকরাও এ চুরির সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অপর দিকে খনিতে বর্তমানে বিক্রি করার মত কোনো পাথর না থাকায় ক্রেতারা এসে ফেরত যাচ্ছেন এবং ২১ দিন ধরে পাথর উত্তোলন বন্ধ থাকায় খনির প্রায় তিন কোটি টাকার উপরে ক্ষতি হয়েছে বলেও তিনি জানান।

এদিকে খনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি খায়রম্নল ইসলাম জানান, খনি কর্তৃপক্ষ তাদের বেতন বাড়ানোর প্রসত্মাবসহ তিনটি দাবির বিষয়ে নমনীয় হয়েছে। কিন্তু চাকুরিচ্যুত পাঁচ শ্রমিককে পুনর্বহাল ও স্থায়ী নিয়োগের বিষয়টি মেনে না নেয়ায় তারা ধর্মঘট অব্যাহত রেখেছেন।

উলেস্নখ্য, অব্যাহত লোকসানের মুখে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হওয়ায় মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির ব্যবস্থাপনা, পরিচালন, উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেয়া হয় বেলারম্নশের জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়ামকে (জিটিসি)। গত ২ সেপ্টেম্বর জিটিসির সঙ্গে ৬ বছরের জন্য ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকার চুক্তি সাক্ষরিত হয়। পেট্রোবাংলা গত ২৫ নভেম্বর থেকে জিটিসিকে খনি হসত্মামত্মর কাজ শুরম্ন করে। কয়েকদিনের মধ্যেই এ হসত্মামত্মর প্রক্রিয়া শেষ হবে।

এদিকে, বস্নস্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেজর (অব.) তামিম হাসান দেশের বাহিরে থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে বস্নষ্টারের লিয়াজু অফিসার উজ্জল দত্ত বলেন, খনি শ্রমিকদের বিষয়টি নিয়ে কয়েক দফা আলোচনার জন্য তাদের ডাকা হয়েছিল। তারা আসেনি। এদিকে খনির নতুন ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পাওয়া জিটিসি ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে শ্রমিকদের মতামত জানতে চেয়ে যে পত্র দিয়েছেন এই পত্রে উলেস্নখ রয়েছে যে, ১৮ ডিসেম্বরের পর তাদের আর পূর্বের চুক্তি থাকবে না। এ অবস্থায় শ্রমিক ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান বস্নস্টার কোম্পানি চরম দ্বিধা দ্বন্দ্বে রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email