রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১লা পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে রেলের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ-প্রতিবাদে মানববন্ধন বিক্ষোভ মিছিল

রাইসুল ইসলাম, পার্বতীপুর (দিনাজপুর): বাংলাদেশ রেলের পশ্চিমযোনের সর্ববৃহৎ রেলজংশন স্টেশন পার্বতীপুর। এই স্টেশন এলাকায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান গত বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে। দু’দিনের এ অভিযান এখানকার মানুষের কাছে নানাভাবে আলোচিত হচ্ছে। কেউ বলছেন উচ্ছেদের নামে বৈষম্য করা হয়েছে। কারো কারো কাছে পুরো বিষয়টি রহস্যজনক মনে হচ্ছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমযোনের পাকশি বিভাগের বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামানের নেতৃত্বে গত ১৮ ও ১৯ সেপ্টেম্বর পরিচালিত এ অভিযানে পার্বতীপুর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু তালেব মোঃ শামসুজ্জামান, র‌্যাব, রেলপুলিশ ও রেল নিরাপত্তাবাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বুধবার সকাল ১০টা থেকে পার্বতীপুর বাস টার্মিনাল সংলগ্ন সমস্ত দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বেশ কিছু পাকা বাড়ি গুড়িয়ে দেওয়া হয়। বেলা ২টায় বাস টার্মিনাল সংলগ্ন গুলপাড়া সড়কে বেশ কয়েকটি দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করা হয়।

পরে গুলপাড়া মহল্লার বাড়িঘর উচ্ছেদ শুরু হলে সেখানকার নারী পুরুষ শিশুসহ সব বয়সি মানুষেরা রাস্তায় এসে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এসময় পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ আমজাদ হোসেন মহল্লার বাসিন্দাদের পাশে এসে দাঁড়ান। তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে একমাস সময় দেওয়ার অনুরোধ জানান। এঘটনার পরে বাইপাস সড়কে একটি সার গুদাম ও একটি স্কেল উচ্ছেদ করে প্রথম দিনের মত উচ্ছেদ অভিযান শেষ করা হয়।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে নির্দ্ধারিত রুটের পরিবর্তে শহরের নুরনগর, ইসলামপুর, কালিবাড়ি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। তবে কি কারনে বাজাজমটোর শোরুম সেন্টার থেকে বঙ্গবন্ধু সরকারি হাইস্কুল এবং আদর্শ কলেজপাড়া ও বাইপাস সড়কের ধারের স্থাপনা উচ্ছেদ বন্ধ রাখা হলো তার কোন যৌক্তিক ব্যাখ্যা দেওয়া হয়নি শহরবাসীকে। বুধবার রাতে অবৈধভাবে বসবাসকারীদের রেলকোয়ার্টার খালি করার জন্য মাইকিং করা হয়। শহরে ওই মাইকিংয়ে সবধরনের মানুষ বিস্মিত হয়েছেন। গুজব-গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার  রেল কোয়ার্টার খালি ও রেল এলাকায় গড়ে ওঠা বস্তি উচ্ছেদ অভিযান শুরু হওয়ার সংবাদে শতশত নারী পুরুষ ও  শিশু সমবেত হতে থাকেন শহীদ ময়দান সড়কে। এখানেও ত্রাতা হিসেবে হাজির হন উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ আমজাদ হোসেন। তার অনুরোধে উচ্ছেদ অভিযান এক মাসের জন্য স্থগিত রাখার ঘোষনা দেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও পাকশি বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মোঃ নূরুজ্জামান।

রেলের পাকশি বিভাগের ৮নং কাচারি অফিসের (পার্বতীপুর) কানুনগো মোঃ জিয়াউল হক জিয়া বলেন, পার্বতীপুরে ৮৮০ একর ভূমি রয়েছে রেলের। এরমধ্যে ৩৬০ একর রেলের পরিচালনা কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। অবশিষ্ট জমিতে আছে পুকুর, কৃষিভূমি ও বেহাত হওয়া জমিতে গড়ে ওঠা দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়ি। বাণিজ্যিক ভূমিতে ১৬০টির মত লাইসেন্সি রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

পার্বতীপুরে রেলের উর্দ্ধতন উপসহকারী প্রকৌশলী (ওয়ার্কস) অফিস সূত্র জানায়, এখানে ১৪ শতাধিক বাংলো, ডাবল কোয়ার্টার ও সিঙ্গেল কোয়ার্টার আছে। এরমধ্যে ৪৬০টি কোয়ার্টারে রেলশ্রমিক ও কর্মচারীরা থাকেন। কিছু কোয়ার্টার ড্যামেজ ঘোষনা করা হয়েছে। আর ৭ শতাধিক কোয়ার্টার পাবলিকের দখলে রয়েছে।

রেলওয়ে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা শুভ্রকান্তি রায় বিজয় ও রেলওয়ে শ্রমিক ইউনিয়ন নেতা কামাল উদ্দিন খান বলেন, বাংলো ও কোয়ার্টারের ভাড়া বেশি হওয়ায় রেলকর্মকর্তা ও কর্মচারীরা এসবে থাকেননা। তারা কম টাকায় পাবলিক বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। ট্রেড ইউনিয়নের এ দুই নেতা বলেন, ভাড়া কমিয়ে কর্মচারীদের থাকার জন্য উৎসাহিত করতে হবে।পাবলিকও যাতে এসব বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতে পারে সে ব্যবস্থা করতে হবে। রেলের বাসা খালি করে ফেলে রাখলে জানালা, দরোজা, ইট সব কিছু চুরি হওয়ার আশংকা রয়েছে বলে তারা উল্লেখ করেন। 

উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্তরা বৈধভাবে থাকতে চান

পার্বতীপুর বাস টার্মিনাল সংলগ্ন সড়কের উচ্ছেদ করা দোকানের মালিক, বাড়ি এবং এলাকার সর্বস্তরের মানুষ আজ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত পার্বতীপুর-সৈয়দপুর মহাসড়কে মানবন্ধন করেছেন। এসময় বক্তব্য রাখেন ডাঃ মমিনুল ইসলাম, শিক্ষকা মরিয়ম পারভীন, মটর শ্রমিক ইউনিয়ন পার্বতীপুর শাখার সেক্রেটারী বাবুল আক্তার বাবু, বেলাল হোসেন ও ছাত্রলীগ উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। বক্তারা বলেন, আমরা সবাই গত বুধবার উচ্ছেদের শিকার হয়েছি। আমাদের সবার ঘরবাড়ী গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মাটির সাথে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে।আমরা শুনতে পাচ্ছি এসব জায়গা অন্যদের নামে বরাদ্দ দেওয়ার পায়তারা চলছে। বক্তারা বলেন, আগুন নিয়ে খেলা বন্ধ করুন। নইলে পরিণতি হবে ভয়াবহ। তারা আরো বলেন, আমরা সবাই বৈধভাবে বসবাস করতে চাই এবং রেল কর্তৃপক্ষের কাছে দোকান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জায়গার বন্দোবস্ত চাই। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এসব বিক্ষুব্ধ মানুষ বিক্ষোভ মিছিল করেছে উপজেলা চত্তরে গিয়ে।