সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পি.বি.আই. দিনাজপুর পুলিশ ঝটিকা অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশী গাভি গরু উদ্ধার করেছে

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ১ বছর ৩ মাস ২৯ দিন পর লুট হওয়া ১৩ গরু‘র মধ্যে  পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পি.বি.আই) দিনাজপুর ইন্চার্জ লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ ঝটিকা অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশী গাভি গরু উদ্ধার করেছে।

দিনাজপুর পিবিআই ঠাকুরগাঁয়ের পীরগঞ্জ থানা পুলিশের সহযোগীতা নিয়ে হরিটা (জাগির পাড়া) গ্রাম হতে লুট হওয়া গরুটি উদ্ধার করেছে। বাকি অন্যান্য গরু উদ্ধারে তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পিবিআই ও আদালতের মামলা সুত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৯ মে দিনাজপুর সদরের মধ্যবালুবাড়ি গ্রামের মৃত: নুরুল হক চৌধুরীর পুত্র মো: শফিকুল হক চৌধুরী ঠাকুরগাঁও সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত পীরগঞ্জ এ অভিযোগ করেন ৪ এপ্রিল ২০১৮ রাতে ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর(চৌধুরী বাড়ি)‘র নিজস্ব খামার হতে বিদেশী বিভিন্ন জাতের ১৩টি গরু লুট করে নিয়ে যায় একই উপজেলার ঠুমনিয়া গ্রামের রেজাউল ইসলামের পুত্র মো: জাহিদুল ইসলাম।

লুটের সময় ৩টি পিকআপসহ জাহিদুলের সঙ্গে আরো ৫জন অজ্ঞাত সন্ত্রাসী ছিল । পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও)থানার মামলা নং ০১,তাং ০১/০৭/২০১৮ইং ধারা ১৪৩/৩৪২/৪৪৮/৩৮০/৫০৬/৩৪পি পেনাল কোড,১৮৬০(আদালতের মামলা নং জি আর নং ২০০/১৮ পি)

এব্যাপারে আদালত শুনানী শেষে পীরগঞ্জ থানার অফিসার ইর্ন্চাজকে মামলা গ্রহন করে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থাগ্রহনের নির্দেশ প্রদান করেন। পীরগঞ্জ থানা মামলা গ্রহন করলেও ২০ লাখ টাকা মুল্যমানের ১৩টি বিদেশী গরু উদ্ধার কিংবা আসামী ধরতে ব্যর্থ হয় তারা। তবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো: শাহজাহান আলী আসামীদের রক্ষায় গত ৩১/০৭/১৮ আদালতে আসামীর বিরুদ্ধে মনগড়া একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। বাদী শফিকুল ইসলাম আদালতে থানা পুলিশের দাখিলকৃত অভিযোগ পত্রের বিরুদ্ধে নারাজী প্রদান করলে আদালত বিষয়টি পুনরায় মামলা তদন্তের জন্যে পিবিআইকে দায়িত্ব প্রদান করেন।

আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক পিবিআই দিনাজপুরের ইন্সপেক্টর মো: লুৎফর রহমান সঙ্গীয় ফোর্সসহ সম্প্রতি ৮ সেপ্টেম্বর অভিযান চালিয়ে ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার হরিট্টা(জাগিরপাড়া) গ্রামের মৃত: উপেন্দ্র সরকার ওরফে কালু‘র পুত্র শ্রী রনজিৎ ও বিধান এর বাড়ির গোয়ালঘর হতে লুট হওয়া একটি বিদেশী ফিজিয়ান জাতের গাভি গরু উদ্ধার করে মামলার বাদী মো:শফিকুল হক চৌধুরী হেফাজতে প্রদান করেছেন।

তৎক্ষনাত এব্যাপারে রনজিৎ এবং বিধান পিবিআই ইন্সপেক্টর লুৎফর রহমানের নিকট স্বীকার করেছেন তারা দুই ভাই ৪টি গরু পীরগঞ্জ উপজেলার ৫নং কিসমত সৈয়দপুর ইউপির ঠুমনিয়া গ্রামের মো: রেজাউল ইসলামের পুত্র মো: জাহিদুল ইসলামের নিকট ক্রয় করেছেন। এরমধ্যে তারা ৩টি গরু অনত্র বিক্রিও করেছেন।

মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলেন, দীর্ঘদিন পরে আমার খামার হতে লুট করে নিয়ে যাওয়া ১৩টি গরুর মধ্যে মাত্র একটি গরু উদ্ধার হয়েছে। কিন্তু অভিযুক্ত আসামী মো: জাহিদুল ইসলাম দেড় মাসের মধ্যে আদালত থেকে জামিন নিয়ে বিভিন্ন নেতা এবং সন্ত্রাসীদের ধরাধরী করে আমাদের পরিবারকে নানান ভাবে হয়রানীসহ ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমি প্রশাসনের কাছে এধরনের সন্ত্রাসী ও ডাকাত প্রকৃতির লোকের গ্রেফতার ও কঠোর শাস্তি দাবী করছি। পি.বি.আই ইন্সপেক্টর মো: লুৎফর রহমান জানান,গোপন সংবাদের ভিক্তিতে লুট (চোরাই) হওয়া গরু গুলির অবস্থান জানতে পারলে অভিযান চালিয়ে একটি গরু উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। বাকি ১২টি গরু উদ্ধারে অনুসন্ধান ও অভিযান অব্যাহত রয়েছে।