বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পূর্ব জেরুজালেম ফিলিস্তিনের রাজধানী : ওআইসি

পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী স্বীকৃতি দিয়েছে মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোকেও এ স্বীকৃতি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।
জেরুজালেম সংকট নিয়ে তুরস্কের বাণিজ্যিক নগরী ইস্তাম্বুলে বুধবার অনুষ্ঠিত এ শীর্ষ সম্মেলনে ওআইসিভুক্ত ৫৭টি মুসলিম দেশের ৪৮ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করে। এ ছাড়া এতে অংশ নিয়েছেন ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলা মাদুরো।
সম্মেলনের যৌথ ঘোষণায় বলা হয়, ‘জেরুজালেমকে দখলদার শক্তির তথাকথিত রাজধানী স্বীকৃতির যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের একক সিদ্ধান্তকে ওআইসি দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করে এবং নিন্দা জানায়।’
এতে ফিলিস্তিন এবং পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের (ইসরাইল কর্তৃক) দখলকৃত রাজধানী হিসেবে ঘোষণা দিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশে প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক আইনের এ ‘ভয়াবহ লঙ্ঘনের’ বিষয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ কোনো পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হলে বিষয়টি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে নেয়ারও প্রত্যয় ঘোষণা করে ৫৭টি দেশের এ সংস্থা।
এ ছাড়া ফিলিস্তিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বের অবসান ঘটাতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে না আসলে এর পরিণতির দায় ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনকে নিতে হবে বলেও যৌথ ঘোষণায় হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়।
ওআইসির বর্তমান চেয়ার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের ডাকা এ সম্মেলেনে এসে ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস যুক্তরাষ্ট্রকে ধিক্কার জানান।
মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘জেরুজালেম ফিলিস্তিনের রাজধানী আছে এবং সবসময়ই তা থাকবে।’
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেন, ‘পক্ষপাতদুষ্ট যুক্তরাষ্ট্রকে এখন থেকে আর মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকায় মেনে নেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। সেই পর্যায় শেষ হয়ে গেল। আমাদের এখন আলোচনা করা দরকার, এখন কে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা নেবে।’
বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধান মো. আবদুল হামিদও এ সম্মেলনে ভাষণে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ওই বৈরী সিদ্ধান্তের পর ওআইসি চুপ করে বসে থাকতে পারে না।
তুর্কি প্রেসিডেন্টের ডাকে এ সম্মেলনে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র হিসেবে পরিচিত জর্ডানের বাদশা আবদুল্লাহ যোগ দিলেও সৌদি আরব ও মিসর রাষ্ট্রপ্রধানের পরিবর্তে মন্ত্রীদের পাঠায়।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী এবং তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরের ঘোষণা দেন। এ ঘোষণা বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় উঠে এবং বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।
উল্লেখ্য, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড দখল করে প্রতিষ্ঠিত হয় বর্ণবাদী ইসরাইলি রাষ্ট্রের। পশ্চিমা খৃস্টান রাষ্ট্রগুলোর পৃষ্ঠপোষকতায় সামরিক শক্তি প্রয়োগ করে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ এবং একের পর এক তাদের বাসভূমি দখল করে যাচ্ছে ইসরাইল।
মুসলিম, খ্রিস্টান, ইহুদি তিন ধর্মের মানুষের কাছেই পবিত্র স্থান জেরুজালেম নিয়ে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল দ্বন্দ্ব চলছে যুগের পর যুগ। ১৯৬৭ সালে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে পূর্ব জেরুজালেম দখল করে নেয় ইসরায়েল।