বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রচন্ড খরায় পুড়ছে আমন ক্ষেত

কবিরুল ইসলাম কবির, হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলায় প্রচন্ড খরায় পুড়ছে আমন ক্ষেত। আশ্বিনের শেষ প্রান্তে কাঙ্খিত বৃষ্টির দেখা নেই। আকাশে মেঘের আানাগোনা দেখা গেলেও বৃষ্টির পানির দেখা মিলছে না কৃষকের ভাগ্যে। প্রচন্ড খরার কবলে পুড়ছে উপজেলার মাঠ ঘাট ও রোপা আমন ক্ষেত। কৃষকেরা বৃষ্টির অভাবে সেচ দিয়ে আমন পরিচর্যা করছে। এতে করে কৃষকদের বেশি খরচ হচ্ছে আমন ধান উৎপাদনে। উপজেলা কৃষি অফিসসুত্রে জানা গেছে হরিপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ১৬ হাজার ২শত হেক্টর জমিতে আমন চারা রোপনের লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করা হয় । কিন্তু ভাদ্র ও আশ্বিন মাসে কাঙ্খিত বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকরা পড়েছে মহা বিপদে। আশ্বিনের শেষ প্রান্তে এসেও কাঙ্খিত বৃষ্টির দেখা মেলেনি। যে সময় আমন চারার সবুজ রং থাকার কথা সেই সময় রোদে খাঁ খাঁ করঝে মাঠ ঘাঠ।  বর্ষা মৌসুমে শুরুতেই ভালো বৃষ্টি হলেও বর্তমানে ভাদ্র-আশ্বিন মাসে বৃষ্টি না থাকায় বিস্তীর্ণ মাঠ ঘাট শুকিয়ে গেছে। অনেক কৃষক বাধ্য হয়ে ডিজেল চালিত মেশিন, গভীর নলকুপ দিয়ে আমন ধানের চারা রক্ষা করার চেষ্টা করছেন। গতকাল শুক্রবার উপজেলার আমগাঁও, জামুন,পাঁচঘরিয়া,বনগাঁও, বরুয়াল বেলুয়া,লখড়া ,কামারপুকুর বিভিন্ন এলাকা ঘুওে দেখা গেছে, রোপা আমন ধানের ক্ষেতগুলো শুকিয়ে লাল হয়ে গেছে। কৃষকরা সেচ দিয়ে ক্ষেত রক্ষার নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। জমিগুলোতে ঘন্ঠার পর ঘন্ঠা সেচ দেওয়া হলেও প্রচন্ড তাপে দুদিনের বেশি পানি থাকছে না । অনেক গরীব কৃষক খরচ জোগাতে না পেরে চাতক পাখির মত আকাশের দিকে তাকিয়ে আছে। হরিপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নইমুল হুদা সরকার জানান,উপজেলায় মোট ১৬২০০ হেক্টর জমিতে আমন রোপন করা হয়েছে, যদিও বৃষ্টির পানি কম তারপরেও  কৃষকরা বিএমডিএ এর গভীর নলকুপ, সেলোমেশিন,ওবৈদ্যূতিক মোটর দ্বারা  আমনে সেচ প্রদান করছেন । এতে আমি মনে করি ফলন ব্যাহত হবে না।।