বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০ ১লা শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাইলেন নিহত লিটনের পরিবার

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ হত্যাকান্ড দাবি করে ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকান্ডে নিহত রিয়াজুল আলম লিটনের পরিবার সরকার এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সঠিক তদন্ত করে বিচারের দাবি করেছেন।

প্রয়োজনে মামলা করা হবে বলে শুক্রবার গনমাধ্যম কর্মীদের জানিয়েছেন নিহত লিটনের বড় ভাই মো. রইসুল আযম ডাবলু। এ ব্যাপারে তিনি গনম্যাধ্যম সহ দেশবাসীর সহযোগিতার কামনা করেছেন।

ঘটনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে স্বামীকে খুন করা হয়েছে এমনটি দাবি করে লিটনের স্ত্রী ফৌজিয়া আক্তার জেনি বলেন, জ্বর এবং সামান্য শ্বাস কষ্ট হচ্ছিল। তাই বেটার ফিল এবং প্রয়োজনে অক্সিজেন সেবা পাওয়ার জন্য হাসপাতালে যাওয়া। বড় হাসপাতালে গিয়েছিলাম ভালো সেবা পাওয়ার জন্য’। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ করোনা সন্দেহে বন্ডে সই নিয়ে আইসোলেশন সেন্টারে নিয়ে যায় আমার স্বামীকে। যদি বন্ড না দেই তাহলে তারা ভর্তি নেবে না বলে জানিয়ে দেয়। ভর্তির পর তারা রাস্তার উপর দিয়ে আমার স্বামীকে হেটে নিয়ে গিয়ে পাশেই একটা গোডাউন মতো একটি ঘরে আইসোলেশনে রাখে। এর পর তারা আমার সাথে আর কোন প্রকার কথা বলেনি।

বাচ্চা ছোট থাকায় এক আত্মীয় আর গাড়িচালককে রেখে বাচ্চাকে নিয়ে চলে আসি। এর ২ঘন্টা পর ফোন করে আমার আত্মীয় জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেছে আপনার রোগী ভালো আছে রাতের খাবার খেয়েছে। একটু আরাম পাওয়ার জন্য হালকা অক্সিজেন দেওয়া হয়েছে।

আমার স্বামী এতই সুস্থ্য ছিল যে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সে নিজেই বের হয়ে আসতে পারতো এবং সাথে আরও একজনকে নিয়ে আসতে পারতো। কিন্ত ঘরে অতিরিক্ত দাহ্য পদার্থ থাকায় এবং ঘরের দরজা লট করা ছিল বলেই সে বের হতে পারিনি।এ কারণে আমি মনে করি আমার স্বামীকে খুন করা হয়েছে।

আমি এবং একমাত্র সন্তানের মাথা ছাতা ছিল আমার স্বামী। এখন আমার সব শেষ হয়ে গেছে। এ ঘটনায় সরকারের কাছে বিচার চাই আমি।এ ব্যাপারে আমার যা করার আমি করবো। তাদের ছেড়ে কথা বলবো না আমি।

স্থানীয় বাসিন্দা এ্যাড. ওয়রিস উল ইসলাম অলি জানান, বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন তিনি। ঢাকাস্থ বীরগঞ্জ সমিতির উপদেষ্টা এবং লায়নস ক্লাব অব দিনাজপুর গার্ডেনের সাবেক সভাপতি ছিলেন। গরীব মেধাবী ছাত্রদের আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেছেন।বীরগঞ্জ গত বন্যায় এলাকার ক্ষতিগ্রহস্থ অনেক মানুষকে বাড়ী মেরামত করে দিয়েছেন। শীতের তীব্রতায় শীত বস্ত্র প্রদান করেছেন।সব শেষ করোনায় যখন সাধারণ মানুষ যখন বিপদে আছেন তখন তাদের বাড়ী বাড়ী ঈদ উপহার পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন তিনি।

এ দিকে লিটনের এই অনাকাংখিত মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে এবং এই ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেছেন অনেকে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় লিটনের লাশ গ্রামের বাড়ী দিনাজপুরের বীরগঞ্জে নিয়ে আসা হয়। পরে বিকেল ৩টায় বাড়ীর পাশে ঈদগা মাঠে জানাজা শেষে স্থানীয় দক্ষিণ সুজালপুর করবস্থানে বাবার পাশে দাফন করা হয় তাকে।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌর শহরের সুজালপুর মাষ্টার পাড়ার বাসিন্দা  ছেলে মৃত ফরজান আলীর ছেলে রিয়াজুল আলম লিটন। ৪ভাই এক বোনের মধ্যে সবচেয়ে ছোট লিটন। লেখাপড়া এবং চাকুরী সুত্রে দীর্ঘ দিন ধরে ঢাকার শ্যামলী প্রিন্স বাজার এলাকায় স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করছেন তিনি। প্রসঙ্গত, গত ২৭ মে বুধবার রাত ৯টা ৫৫ মিনিটে ইউনাইটেড হাসপাতালের বর্ধিত অংশে করোনা ইউনিটে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট কাজ করে রাত সাড়ে ১০টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। সেখানে থাকা পাঁচ জন রোগী মারা যান। অগ্নিকাণ্ডে নিহতরা হলেন মোহাম্মদ মাহবুব (৫০), মনির হোসেন (৭৫), ভেরন অ্যান্থনি পল (৭৪), খোদেজা বেগম (৭০) ও রিয়াজুল আলম লিটন (৫০)। এদের মধ্যে প্রথম তিন জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন। বাকি দু’জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল। তারা রিপোর্টের অপেক্ষায় ছিলেন। মৃত্যুর পর জানা যায় নিহত রিয়াজুল আলম লিটন করোনা আক্রান্ত ছিলেন না।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email