রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ ৬ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রমিলা জাতীয় ক্রিকেট দল- জয়ের সমীকরণটা ওই একই- নিখাদ দেশপ্রেম

এই জুন মাসেরই ঘটনা। ঊনিশ’শ একাত্তর। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের প্রথম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নদীয়ার কৃষ্ণনগরে। অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু চাচ্ছিলেন খেলা শুরুর আগে মাঠে যেন স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা ওড়ানো এবং জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হয়। কুটনৈতিক কারনে রাজী হচ্ছিলেন না স্হানীয় কর্তৃপক্ষ। বেঁকে বসলেন অধিনায়ক। শর্ত পুরণ না হলে মাঠে নামবেনা তার দল। যে দেশের তখনও জন্মই হয়নি সে দেশের একদল ফুটবল যোদ্ধার দেশপ্রেমের কাছে সেদিন হেরে গিয়েছিলো সকল কুটনৈতিক শিষ্ঠাচার। মাঠে সেদিন পতাকাও উড়েছিলো, বেজেছিলো জাতীয় সঙ্গীতও।

নিরপেক্ষ ভেন্যুতে আফগানিস্তানের সাথে আমাদের সাম্প্রতিক সিরিজটি হয়েছে টি-টুয়েন্টি ফরমেটে। এটা ওয়ান ডে-ও হতে পারতো। অপশনটা আমাদের জন্য উন্মুক্তই ছিলো। আমাদের বোর্ড টি-টুয়েন্টি বেছে নিয়েছে। এই ফরমেটে চলতি সময়ে আফগানিস্তানের পারফর্মেন্স বোর্ডের অজানা থাকার কথা নয়। বিশেষ করে রশিদ, নবীদের মত টি-টুয়েন্টি পারফর্মার বিশ্বের যে কোন দলের জন্যই এখন মুর্তিমান আতংকের নাম। এ সিরিজের প্রস্তুতিতে আমাদের থিংকট্যাংক এসবকে থোড়াই কেয়ার করেছে। বিশ্ব ক্রিড়ায় মাথা উঁচু রাখতে হলে পায়ের নিচের মাটিটাকেও শক্ত রাখতে হয়। এগিয়ে যাওয়া দেশগুলো এ বিষয়টিকে বলেন পেশাদারিত্ব। আধুনিক স্পোর্টসে পেশাদারিত্বের ধারনাটাও দিন দিন বদলে যাচ্ছে। যারা পেশাদারিত্বের ব্যাপারটিকে শুধু খেলোয়াড়দের মধ্যে দেখতে চান তারা একচোখে তাকান। ক্রিড়া সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকটি বিভাগ, সেখানে দায়িত্বরত প্রত্যেকটি ব্যক্তি, স্পোর্টস মিডিয়া মায় মাঠে ব্যাগ বয়ে বেড়ানো বল বয়টি পর্যন্ত এই পেশাদারিত্বের দায় এড়াতে পারে না। আমাদের কোনও ক্রিড়া আঙ্গিনাতেই পেশাদারিত্বের এই ধারনাটি এখন পর্যন্ত গড়ে উঠেনি। একজন ক্রিড়া সংগঠকের পেশাদারিত্বের মানদন্ড শুধু তার কর্মের ভিত্তিতে নিরূপিত হবে ব্যাপারটা কিন্তু তেমন নয়। পরিকল্পনা প্রণয়নের ক্ষেত্রে তার চিন্তার গভীরতা কতটুকু বিবেচনায় আনতে হবে সেটাকেও। সেই পর্যবেক্ষণ দিয়ে খেলোয়াড়দের পারফর্মেন্স, তাদের প্রাত্যহিক জীবন, পক্ষপাতহীণ মানসিকতা, আন্তর্জাতিক ক্রিড়ার কুটনীতি এবং আরো অনেক কিছুকেই যথাযথ ভাবে সামলাতে হয়। যখন অনভিজ্ঞ আফগানিস্তানের বিপক্ষে আমাদের ওয়ান ডে’র চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয়া দরকার ছিলো তখন আমরা তাদের সাথে খেলতে গেলাম তাদেরই কাঙ্খিত স্বল্প দৈর্ঘ্যের ক্রিকেট। ফলটা খারাপ হলো। সদ্য আন্তর্জাতিক ক্রিড়াঙ্গনে পা ফেলা একটি দল যখন প্রতিষ্ঠিত কোন ক্রিড়া শক্তিকে হেলাফেলায় হারিয়ে দেয় তখন ‘খেলায় হারজিত আছেই’ এটা বলে সমর্থকদের প্রতিক্রিয়ার উষ্ণতায় সান্তনার মলম লাগানোটা সহজ হয়না। কারন সমর্থকদের মধ্যে পেশাদারিত্ব খোঁজাটা বোকামি।

আমাদের প্রমিলা ক্রিকেট দলটি এবার এশিয়া কাপ জিতলো। ঈদের আগেই আরেকটা আনন্দের উপলক্ষ্য তৈরী হলো। সব ধরনের মিডিয়ায় বিজয়ী মেয়েদের সাফল্যগাঁথা রচিত হতে থাকলো। এই সাফল্যেকে ব্যবচ্ছেদ করছি আমরা যারযার মত করে। পরপর ছয়বার চ্যাম্পিয়ন হওয়া ভারতকে এই টুর্ণামেন্টে পরপর দু’বার হারানো কিংবা লাগাতার পাঁচটি ম্যাচে জয় ছিনিয়ে নেয়ার মত অসাধ্যকে সাধন করতে পেরেছে আমাদের মেয়েরা-চাট্টিখানি কথা নয়। নিশ্চিত ভাবেই বলা যায় খেলোয়াড়েরা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে শতভাগ কমিটেট ছিলো। নিশ্চিত করে এটাও বলা যাবে কোচ,কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্ট অন্য সবাই তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছেন। কিন্তু নিশ্চিত করে এটা কি বলা যাবে যে এ অর্জনের পেছনে শতভাগ প্রফেশনালিজমের অনন্য ভুমিকা ছিলো! এককথায় বলে দেয়া যায়-ছিলোনা। জাতীয় পুরুষদল এ ধরনের একটা টুর্ণামেন্ট খেলতে যাওয়ার আগে কিংবা খেলা চলাকালীন প্রতিটি ম্যাচকে কেন্দ্র করে যে ধরনের তোড়জোড়ে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় বিসিবি আর মিডিয়াকে, মেয়েদের ক্ষেত্রে তেমনটা কি আমরা দেখেছি! ‘দেরাদুনে’র আবহাওয়ার খবর পর্যন্ত আমাদের জানা ছিলো কিন্তু কতজনই বা জানতাম এবার মেয়েদের এশিয়া কাপ কোথায় হচ্ছে! বুকে হাত দিয়ে কি বোর্ড কর্মকর্তারা বলতে পারবেন এদলটির শক্তিমত্তা সম্পর্কে তারা আগে থেকেই ওয়াকিবহাল ছিলেন। তারা কি জানতেন এ মেয়েরা চ্যাম্পিয়নও হয়ে যেতে পারে। নিশ্চিত জানতেন না। যদি জানতেনই তাহলে চার লাখের বিপরীতে ত্রিশ হাজার হওয়ার কথা নয়। কথা নয় দুই লাখের বিপরীতে ছয় হাজার হওয়া। মেয়েদের জন্য ন্যুনতম পুষ্টিকর খাবারের সরবরাহ নিশ্চিত করতে পারেন না অথচ বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী ‘মেয়েদের ক্রিকেটে এটা গ্রেট অর্জন’ বলে যখন সাফল্যের আনন্দে ভাগ বসাতে চান তখন নিশ্চিতভাবেই আপনার কমিটমেন্টের দিকেও আমরা আঙুল তুলব। আগামী কোন ম্যাচে এ মেয়েরা যদি ব্যর্থ হয়, তাদের পারফর্মেন্সকে কাঁটাছেড়া করার আগে, মহামাণ্য বিসিবি, নিজেদের ব্যর্থ চেহারাটাও আয়নায় দেখে নেবেন। শুধরে নেবেন নিজেদের।

একাত্তরের ‘স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল’ থেকে দু’হাজার আঠারোর প্রমিলা জাতীয় ক্রিকেট দল- জয়ের সমীকরণটা ওই একই- নিখাদ দেশপ্রেম।

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর