শুক্রবার ২৭ এপ্রিল ২০১৮ ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রসুতি মুক্তা বেগমের পাশে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টক সেন্টার নবজাতকের মৃত্যুর পর টাকার জন্য প্রসুতি আটকে রাখার অভিযোগ উঠে। ঘটনার পর সেই প্রসুতির পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।

বিষয়টি নিয়ে প্রসুতির পরিবার যেন কোথাও অভিযোগ না করতে পারে এ ব্যাপারে পরিবারটির উপর নজরদারী শুরু করে ক্লিনিক মালিক। ফলে পুলিশের সহযোগিতায় প্রসুতি মোছাঃ মুক্তা বেগম (২৩) নিজ বাড়ীতে ফিরলেও পরবর্তীতে কোন প্রকার চিকিৎসা সেবা না নিতে পারায় অসুস্থ্য হয়ে পড়েন।

সংবাদ পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মোঃ জাহাঙ্গীর কবিরের নেতৃত্বে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকগণ অসুস্থ্য প্রসুতির নিজ বাড়ী গিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এসে তাকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন। সেখানে চিকিৎসকদের সেবায় দ্রুত সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরেন প্রসুতি মোছাঃ মুক্তা বেগম।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা প্রসুতি মোছাঃ মুক্তা বেগম জানান, সন্তান হারানোর বেদনা কখনও ভূলতে পারবো না। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের সেবায় আমি মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছি।

মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টক সেন্টার ডাক্তার দেখাতে এসে ৮মাসে গর্ভবতী এটি জানার পরও মিথ্যে কথা বলে সিজার করার হয় বলে অভিযোগ করেন। আর ক্লিনিকে শিশুর কোন প্রকার উন্নত চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা না থাকায় শিশুটি মারা যায় বলে দাবি করেন তিনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আফরোজ সুলতানা লুনা জানান, প্রসুতি এখন আগের চেয়ে অনেক সুস্থ্য এবং আশংকামুক্ত। আগামী দুই সপ্তাহ পর আবার উনাকে এখানে এসে সেবা নিতে অনুরোধ করা হয়েছে। তবে আগামী দুই মাস স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনা মুল্যে ঔষধসহ যাবতীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মোঃ জাহাঙ্গীর কবির জানান, সিজারের পর প্রসুতি তলপেটে ব্যাথা এবং রক্তক্ষরণসহ সাইক্লোজিক্যাল সমস্যা ভূগছিলেন। আমরা উনাকে বিনা মুল্যে ঔষধসহ যাবতীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান করেছি। বর্তমানে তিনি আংশকামুক্ত। উপজেলা স্বাস্থ্য যে কোন গর্ভবতী মায়েদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিরাপদ সন্তান প্রসবের জন্য গর্ভবতী মায়েদের জন্য উন্নত অপারেশন থিয়েটার, আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং মা ও শিশু ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। অথচ সচেতনতার অভাবে মানহীন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়ে গিয়ে অর্থ অপচয়ের পাশাপাশি বাড়ছে শিশু ও প্রসুতির মুত্যু হার।

প্রসঙ্গত, গত ২৩মার্চ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মর্ডান ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টক সেন্টার নবজাতকের মৃত্যুর পর টাকার জন্য উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের ঘোড়াবান্ধ গ্রামের আব্দুল ওয়াহেদের স্ত্রী মোছাঃ মুক্তা বেগম (২৩) নামে এক প্রসুতি আটকে রাখার অভিযোগ উঠে। বিষয়টি বিভিন্ন গন্যমাধ্যমে প্রকাশিত হলে জেলা সিনিয়র জর্জ আদালতের বিচারক কিশোর দত্ত স্বপ্রণোদিত হয়ে একটি সুয়োমটো রুল জারি করেন।