বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফিরে দেখা বিএনপির শাসনামল পর্ব ০২ : হারিছ চৌধুরী

চার দলীয় জোট সরকারের নেতৃত্বাধীন ২০০১-০৬ শাসনামলে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি সহ বিভিন্ন অপরাধে তারেক রহমানের মতো অনেক বরপুত্রই অবৈধ অর্থ সম্পদ উপার্জনে ব্যাস্ত হয়ে উঠেছিল। গড়েছিলো অবৈধ সম্পদের পাহাড়। জনগণের সেবার নামে নিজেদের পকেট ভরতে ব্যস্ত হয়ে ওঠে তারা। তাদেরি একজন হারিছ চৌধুরী। সে সময় হারিছ চৌধুরী ছিল খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব।

বিগত চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে কানাইঘাটের লোভাছড়ার কামদানা এলাকায় ব্যবসায়ী মো: আজির উদ্দিনের কাছে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে হারিছ। দুই দিনের মধ্যে চাঁদার টাকা পরিশোধের জন্য সময় বেধে দেয়া হয়। দাবিকৃত চাঁদার টাকা দিতে না পারায় আজির উদ্দিনের মালিকানাধীন কান্দালা বাজারের একটি মার্কেটে দুই দফা হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট করে হারিছের লাঠিয়ালরা। ২০০৬ সালের ২৬ আগস্ট প্রথম দফা হামলায় দেড় লাখ টাকার ক্ষতি করে। এবং ২ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় দফায় ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। ভাংচুর ও লুটপাট শেষে যাওয়ার সময় মার্কেটে আগুন ধরিয়ে দেয়, এতে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়।

রাজনৈতিক প্রভাবে এ হামলা হওয়ায় ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় আজির উদ্দিন ১৩ এপ্রিল এ ঘটনায় মামলা করেন।

ওই বছরের ৫ আগস্ট কানাইঘাট থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোপাল চক্রবর্তী মামলার তদন্ত করে হারিছ চৌধুরীসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। ২০০৮ সালের ৭ এপ্রিল আদালত অভিযোগ গঠন করেন।

হারিছ চৌধুরীর বাড়ি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার দিঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নের দর্পনগর গ্রামে। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমল থেকে তিনি পলাতক। রায়ের প্রতিক্রিয়া জানতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে আশিক চৌধুরী বলেন, ‘আমি আদালতে ছিলাম না, শুনেছি। এ মামলাটি আসলে তৎকালীন সময়ে রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করতেই বাদীকে প্ররোচিত করে দায়ের করা হয়েছিল। রায়ে আমরা ন্যায়বিচার পেয়েছি।’

তবে মামলার বাদী আজির উদ্দিনের দাবি, তিনি প্ররোচিত হয়ে নন, ক্ষমতার দাপটে ভাংচুর ও লুটপাট সংঘটিত হওয়া একটি ঘটনার বিচারপ্রার্থী হয়েছিলেন।