বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফুটবল জাগরণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূমিকা

তৃণমূল থেকে ফুটবল উন্নয়নের এই বিশাল কাজটি করেছে সরকার। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্ব্যোগে ২০১০ সাল থেকে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় টুর্নামেন্ট ও ২০১১ সাল থেকে বঙ্গমাতা গোল্ড কাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় টুর্নামেন্ট যাত্রা শুরু করে। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে কমলমতি শিশুদের শারীরিক, মানসিক, নান্দনিক বিকাশ সহ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সহিষ্ণুতা মনোবল বৃদ্ধি ও খেলাধুলায় উৎসাহী করে তোলা।

সারা বছর এদেশের ৬৪ হাজার ২৬০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ২২লক্ষ ছাত্র-ছাত্রী এই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে। পৃথিবীতে এমন আয়োজনের কোন দৃষ্টান্ত নেই। তাই আজ এ টুর্নামেন্ট গ্রিনিজ বুকে অর্ন্তভুক্তের দাবিদার হয়েছে। এ টুর্নামেন্ট থেকে উঠে আসে ভালমানের খেলোয়াড়। যার ফলে বয়স ভিত্তিক জাতীয় দলগুলো আর্ন্তজাতিক প্রতিযোগিতায় ভাল করছে। নারী ফুটবলে যে সম্ভাবনার হাতছানি সবকিছুর প্রধান উৎস বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট। বয়সভিত্তিক বাংলাদেশের নারী ফুটবলের যাত্রা শুরু হয় ২০০৫ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার এএফসি অনুর্ধ্ব-১৭ চ্যাম্পিয়ান শিপ দিয়ে। ২০০৫ সালে যে দল মাঠে নামলেই গোল খেতো, সেই দলটাই সর্বশেষ তিনটি টুর্নামেন্টে ৯ ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে দিয়েছে ৫৪ গোল বিপরীতে হজম করেছে মাত্র তিনটি গোল। সাফল্যের শুরু ২০১৪ সালে এএফসি অনুর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ানশিপ দিয়ে। এরপর অনুর্ধ্ব-১৬ বাছাইপূর্বে ও সেরা ঢাকায় অনুষ্ঠিত সাফ অনুর্ধ্ব-১৫ তে চ্যাম্পিয়ান হয় বাংলাদেশ নারী দল। বর্তমান ফুটবল জাগরণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূমিকা আজ সকলে স্বীকার করছে। ২০২১ সালে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালে উন্নত দেশে রূপান্তর হবে এদেশ। যে সময় বিশ্বকাপ ফুটবল খেলায় প্রতিনিধিত্ব করতে ভালমানের খেলোয়াড় প্রয়োজন। আর এই খেলোয়াড় তৈরির কারখানা হিসেবে খ্যাত এখন প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো। অথচ এই খেলা পরিচালনা করার জন্য রয়েছে অপ্রতুল অর্থ বরাদ্দ। প্রতিবছর উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ান দল হিসেবে জয়ী প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো পর্যাপ্ত পরিমাণের অর্থের অভাবে খেলা পরিচালনা করতে দেয়া হয় না খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ ও চর্চার জন্য ফুটবল সহ নানাবিধ সরকারের এতবড় ফুটবলযজ্ঞের পরও যেটাকে কাজে লাগতে পারছে না বাফুফে। অন্যান্য বয়সভিত্তিক দলগুলোর ন্যায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ানশিপ ও রানারআপ দলকে বিশেষ বরাদ্দের ব্যবস্থা করা, প্রশিক্ষণ ক্যাম্প, খেলোয়াড়দের পুষ্টিকর খাবারের ব্যবস্থা করা। এসব সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করার মানে ভালমানের খেলোয়াড় তৈরি হবে। এটাই একটা জায়গা, যেখানে যতবেশি বিনিয়োগ তত বেশি লাভবান হবে। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

লেখক-মোঃ নাজিম উদ্দিন

সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর।