বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে অধিক মূল্যে ক্রয় ধানের বীজ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে অধিক মূল্য দিয়ে কিনতে হচ্ছে ধানের বীজ এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকরা বিএডিসির বীজ ক্রয় কেন্দ্র ও ডিলারদের দোকানে ধরনা দিয়েও বীজ পাচ্ছেন না। এ সুযোগে একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী কৃষকদের কাছ থেকে অধিক মূল্য হাতিয়ে নিচ্ছে। ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে এই বীজ চড়া দামে বিক্রি করছেন। তুলনামূলক ভাবে উচ্চ ফলনশীল বীজধানের দাম চড়া। এ ছাড়াও উপজেলা বিভিন্ন হাট-বাজারে নিম্নমানের ভেজাল ধানের বীজে সয়লাব হয়ে গেছে। সঠিক মনিটরিংয়ের অভাবে নিম্নমানের ভেজাল ধানের বীজ বিক্রেতারা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। এসব নিম্নমানের বীজ কিনে প্রতারিত হচ্ছেন কৃষকরা । আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী বীজ ভান্ডার খুলে বসেছেন। তারা অধিক লাভের জন্য নিজেরাই বাজার থেকে ধান কিনে চকচকে প্যাকেট তৈরি করে উন্নত জাত হিসেবে প্রচার করে অধিক মূল্যে বিক্রি করছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ফুলবাড়ী বাজারে ধানবীজ বিক্রির দোকানগুলোতে বিভিন্ন কোম্পানির নিম্নমান ধান বীজ কিনে প্যাকেটের গায়ের মূল্যে উপেক্ষা করে প্যাকেট প্রতি ৫০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত লাভে ধানবীজ বিক্রয় করছেন।

ফুলবাড়ী বাজারে ধানের বীজ কিনতে আসা কৃষক ইউছুফ আলী বলেন, প্যাকেটের গায়ে ৩৪৫ টাকা লেখা থাকার পর আমি সিনজেনটা-১২০৫ জাতের ১ কেজি ধানের বীজ ক্রয় করি ৪৭০ টাকা । যদি ১ কেজি ধানের বীজে আমাকে ১০০ টাকা বেশী দিতে হয় আমার অনেক কৃষক আছে যাদের ১০ প্যাকেট  ধানের বীজ লাগবে।   ফুলবাড়ী বাজারে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছু বীজ খুচরা  বিক্রেতা বলেন, প্রতিদিন ধানের বীজ ভারতে যাচ্ছে। বর্তমানে বাজারে হীরা-২ জাতের ধানের বীজের তীব্র সংকট হয়েছে। যদিও বা পাওয়া যায় দাম অনেক চড়া। বীজ ব্যবসায়ী অনুমোদিত ডিলাররা অনেকেই বলেন, বিএডিসি থেকে স্বল্প বীজ সরবরাহ পাওয়ায় থাকায় বাজারে বীজের সংকট দেখা দিয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা এইও ফারহান  বলেন, আমারও অনেক কৃষকের মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি এবং বিভিন্ন বাজারেও গিয়েছি কিন্তু কৃষকে কাছে অধিক মূল্যে বীজ কেনার রশিদ না থাকায় কোন ব্যবস্থা নিতে পারছি না ।