বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে মাদক ব্যবাসায়ীর সাথে পুলিশের হাতাহাতি।দুই পুলিশসহ আহত ৭,মাদকসহ আটক ৫

মেহেদী হাসান উজ্জল, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে মাদক ব্যবসায়ীর সাথে পুলিশের হাতাহাতি দুই পুলিশসহ ৭ জন আহত হয়েছে।এ ঘটনায় ২৫ বোতল ফেন্সিডিলসহ ৫ জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

আটক ব্যাক্তিরা হলেন উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের পাঠকপাড়া গ্রামের তরনী এর ছেলে মাদক ব্যাবসায়ী বিপ্লিস দাস(৩২)এবং বিলাশ দাস(৩০),বিপন দাস(২৫) উভয়য়ের পিতা তরনী,একই গ্রামের সনাতন চন্দ্র (৩০) ও  তপন চন্দ্র(২৪) উভয়ের পিতা লক্ষি কান্ত।

এলাকবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার শিবনগর ইউনিয়ানের পাঠকপাড়া নামক স্থানে গত ১৩ মার্চ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় ফুলবাড়ী থানার এস আই শাহ আলম এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করতে গেলে মাদক ব্যবসায়ীরা লাঠিশোটা নিয়ে পুলিশের উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে পুলিশের সাথে মাদক ব্যাসায়ীর হাতাহাতি শুরু হলে ব্যাবসায়ীদের তুলনায় পুলিশ সংখ্যায় কম থাকায় পুলিশ আত¦রক্ষার্থে চিৎকার করলে, চিৎকার শুনে পুলিশকে সহযোগিতা করতে এলাকাবাসী ছুটে আসে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনে ২৫ বোতল ফেন্সিডিলসহ ১জন মাদক ব্যাবসায়ী ও পুলিশের কাজে বাঁধা প্রদান করার অপরাধে ৪জনকে আটক করে।

ঘটনার সময় পুলিশকে সহযোগিতা করতে গিয়ে আহত হয় পাঠকপাড়া গ্রামের মৃত নিরোধ চন্দ্র সরকারে ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য প্রদিপ কুমার সরকার (৪৫), একই এলাকার শ্রীমান্ত এর ছেলে অঞ্জন কুমার(২৪), পানেশ্বরের ছেলে নান্টু(৪৮), অমল চক্রবর্তীর স্ত্রী মনিবালা (৫৫)।

অপরদিকে আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন ফুলবাড়ী থানার কাভার্ড ভ্যানের ড্রাইভার সাহাজুল ইসলাম(৩৫), কনস্টবল ফরহাদ(৩৩) এবং ঐ গ্রামের তরনীর ছেলে আটক ব্যাক্তি বিলাশ(৩০)।

ফুলবাড়ী থানার এস,আই শাহ্ আলম কে পুলিশ সদস্য আহত’র ব্যাপারে প্রশ্ন করলে বিষয়টি আড়াল করার চেষ্টা করে এবং এক পর্যায়ে তিনি সাংবাদিকের সাথে আশালীন আচরণ করেন।

এ বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাসিম হাবিব এর সাথে কথা বললে তিনি প্রথমে পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার কথা অস্বীকার করলেও পরে স্বীকার করে বলেন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক ব্যবায়ীকে আটক করার উদ্দেশ্যে গেলে মাদক ব্যবসায়ীর সাথে পুলিশের ধাক্কাধাক্কী হয়। এতে দুই পুলিশ সদস্যসহ ৭জন আহত হয়। আটক মাদক ব্যাবসায়ী বিপ্লিস দাস এর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এবং পুলিশের কাজে বাঁধা প্রদানের অপরাধে আটক ব্যাক্তিরাসহ মোট ১০জনকে আসামী করে পৃথক একটি মামলা দায়ের করা হয়।