বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে শুরু হয়েছে আগাম জাতের ধান কাটা মাড়াই

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শুরু হয়েছে আগাম জাতের আমন ধান কাটা মাড়াই আর নতুন ধান ঘরে তুলতে ব্যস্ততা বেড়েছে কৃষকের। ধানের ফলন ও দাম ভালো পাওয়ার কৃষকের যেন আনন্দের শেষ নেই আবার আগাম জাতের ধানের বাজারে চাহিদা বেশি। সবকিছু মিলিয়ে কৃষকের ঘরে আগাম ধানে আগাম আনন্দের স্বাদ।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়,এবছর ১হাজার ৬৬হেক্টর জমিতে আগাম জাতের বিনা-৭,সোনা,ব্রি ধান-৫৬ ও বিভিন্ন কোম্পানীর হাইব্রিড জাতের আমন ধানের চারা রোপণ করে কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছেন। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কৃষি বিভাগের সঠিক পরামর্শে অপেক্ষাকৃত উঁচু জমিতে আগাম জাতের ধান চাষ করে কৃষক এই ধান ঘরে তুলে পুনরায় অন্য ফসলের চাষ করতে পারছেন।  
চাঁদপাড়া গ্রামের পল্লি চিকিৎসক আলম বলেন, তিনি আগাম জাতের ধানিগুন হাইব্রিট ধান লাগিয়েছিলেন। একর প্রতি ৫০-৬০ মন ফলন হয়েছে। তিনি এই জমির ধান কেটে আলু ও ভুট্টা চাষ করবেন। একই কথা বলেন,পূর্ব রাজারামপুর গ্রামের কৃষক আবু বক্কর ও সুজাপুর গ্রামের কৃষক রমিজ উদ্দিন। তারা আরও বলেন, আগাম জাতের এই ধান বাজারে চাহিদা রয়েছে তাই দামও ভাল পাওয়া যাচ্ছে। আগাম ধান বিক্রির টাকা দিয়ে কৃষকরা আলু ও সাথী ফসল হিসেবে ভুট্টা চাষ করছেন।  এতে করে একই সাথে একই খরচে দুটি ফসল ঘরে তুলতে পারবেন এমনটিই আশা করছেন তারা।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এটিএম হামিম আশরাফ বলেন, বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে সেইসাথে কৃষি জমি কমে যাচ্ছে। ফলে জনসংখ্যার বৃদ্ধির সাথে সাথে খাদ্য চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে একই জমিতে বছরে চারটি করে ফসল উৎপাদন করতে হচ্ছে। তিনি আরও জানান,আগাম জাতের ধান কেটে ওই জমিতে রবি শষ্য আলু, ভুট্টা ও সরিষা বা আউষ ধান চাষ করতে পারছে তারা। এতে করে একই জমিতে বছরে চারটি ফসল উৎপাদন করে একদিকে যেমন কৃষক লাভবান হবেন অপরদিকে দেশের খাদ্য শস্যের চাহিদাও পূরণ করা সম্ভব হবে। এ জন্য দিনাজপুর কে বলা হয় শস্যের ভান্ডার। কিন্তু দিনাজপুরে বিপুল পরিমান খাদ্য উৎপাদন হলেও এই এলাকায় গঠে উঠেনি ভারি কোন শিল্প কলকারখানা। দিন দিন এই জেলায় শিক্ষিত বেকার যুবকের সংখ্যা বাড়ছে। তাই সরকারি ভাবে এই এলাকায় ভারি শিল্পনগরী গড়ে তোলা উচিত।