রবিবার ১৯ অগাস্ট ২০১৮ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে স্ত্রীকে হত্যা করে শালিকাকে নিয়ে উধাও অতপরঃ পুলিশের হাতে আটক

মেহেদী হাসান উজ্জল ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে চিকিৎসার খরচ বহন করতে না পারায় স্ত্রীকে হত্যা শালিকাকে নিয়ে উধাও অতপরঃ পুলিশের হাতে আটক।
ফুলবাড়ী পৌর এলাকার স্টেশন পাড়া গ্রাম থেকে গত সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে থানা পুলিশ মোবাইল ফোনের সুত্রধরে তাদের আটক করে হত্যার চার্জ এনে দুইদিন ধরে জিঙ্গাসাবাদ করলে সে হত্যার কথা স্বীকার করেন।
পুলিশের হাতে আটক স্ত্রী হত্যায় অভিযুক্ত স্বামী, ফুলবাড়ীর পুর্ব রামচন্দ্রপুর তালের ডাঙ্গা গ্রামের বছির উদ্দিনের ছেলে ফরহাদ হোসেন (৪০) ও শালিকা, নবাবগঞ্জ উপজেলার চামুন্ডাই গ্রামের মন্টু মিয়ার মেয়ে সোহাগী বেগম (১৮)।
ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাসিম হাবিব বলেন,আটককৃত ফরহাদ হোসেন কে থানায় জিঙ্গাসাবাদ করলে সে হত্যার কথা স্বীকার করে। জিঙ্গাসাবাদ করলে সে বলে দীর্ঘদিন থেকে তার স্ত্রী রোকসানা বেগম অসুস্থ ছিল দিন মজুরের কাজ করে তার পক্ষে স্ত্রী চিকিৎসার ভার বহন করা অসম্ভব হয়ে দাড়িয়েছিলো সে কারনেই সে তাকে হত্যা করে। আটক ফরহাদের স্বীকারউক্তি অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে মেয়ের বাবা মিন্টু মিঞা বাদী হয়ে ২৪ জানুয়ারী বুধবার ৩০২/২০১দ:বিধি আইনে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে যার মামলা নং( ২৭)। গতকাল বুধবার ২৪জানুয়ারী তাকে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে এবং মন্টু মিয়ার ছোট মেয়ে সোহাগী বেগম কে তার বাবার কাছে হস্তান্তর কারা হয়েছে।

উলেক্ষ্য মন্টু মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ১৫ বছর পূর্বে তার বড় মেয়ে রোকসানা বেগমের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। ফুলবাড়ী উপজেলার পুর্ব রামচন্দ্রপুর তালের ডাঙ্গা গ্রামের বছির উদিনের ছেলে ফরহাদ হোসেন সাথে। তাদের ৯ বছর ও ৭ বছর বয়সী দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। এরই মধ্যে ফরহাদ হোসেন ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর মধ্য রাতে রোকসানা বেগমকে শ্বাসরদ্ধকরে মৃত্যু ঘটনায় ফুলবাড়ী থানায় অভিযোগ করলে, পুলিশ ১ জানুয়ারী রোকসানা বেগমের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর মর্গে প্রেরন করে।

অপরদিকে পুলিশ মামলাটির তদন্তকাজ শুরু করে। এই ঘটনার পর থেকে ফরহাদ হোসেন গাঁ ঢাকা দেয় এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাকে নানা প্রকার হুমকি দিয়ে আসছিল। এরই মধ্যে ২০ জানুয়ারী তার ছোট মেয়ে সোহাগী বেগমকে নিয়ে উধাও হয়ে যায়। এ ঘটনায ২১ জানুয়ারী তিনি ফুলবাড়ী থানায় ফরহাদ হোসেনকে আসামী করে আরেকটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ মোবাইল ফোনের সুত্রধরে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে তাদের আটক করে।