বুধবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুই বাংলা ভাষাকে প্রথম বিশ্ব দরবারে নেন : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই বাংলা ভাষাকে প্রথম বিশ্ব দরবারে নিয়ে যান। অমর একুশে বই মেলার মধ্য দিয়ে আমাদের শিল্প-সংস্কৃতিকে কেবল বাংলাদেশের মধ্যেই নয়, বিশ্ব দরবারে পৌঁছাতে চাই।

রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকালে রাজধানীতে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অমর একুশে গ্রন্থমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

বঙ্গবন্ধুর রচিত তৃতীয় বই ‘আমার দেখা নয়াচীন’ এবারের গ্রন্থমেলায় প্রকাশ হয়েছে। বইটির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তখন চীনকে নয়াচীন বলা হত। সদ্য স্বাধীনতা পাওয়া চীন ওই নামেই পরিচিত ছিল। সে সময় ভাষা আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের দাবি আদায়ের আন্দোলন, বাংলার ভুখা মানুষের খাদ্যের দাবিতে ভুখা মিছিল চলছিল। জাতির পিতাকে এসব আন্দোলনের কারণে গ্রেপ্তার করা হয়। তারপর তিনি আর মুক্তি পাননি। তিনি বায়ান্ন সালে মুক্তি পান। ২৭ ফেব্রুয়ারি তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। ২৮ ফেব্রুয়ারি তিনি ফরিদপুর কারাগার বের হন।

শেখ হাসিনা বলেন, বায়ান্ন সালে চীনের পিকিংয়ে যে শান্তি সম্মেলন হয়েছিল, পাকিস্তান থেকে একটি প্রতিনিধি দল সেখানে যায়। সেই প্রতিনিধি দলে পূর্ব পাকিস্তান থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, আতাউর রহমান, খন্দকার ইলিয়াসসহ কয়েকজন সেখানে যান। সেই শান্তি সম্মেলনে যাওয়ার সমস্ত বর্ণনা তিনি এ বইতে লিখেছেন। পাশাপাশি যেটা বিশেষভাবে লক্ষণীয়, সেটা হলো এ বইতেই লেখা আছে তিনি প্রথম ওই শান্তি সম্মেলনে বাংলা ভাষায় বক্তৃতা দিয়েছিলেন। বাংলা ভাষাকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে যাওয়া, এটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই প্রথম করেছিলেন।

সরকার প্রধান বলেন, আড়াই বছর কারাগারে থাকার পরও তিনি নয়াচীনে গিয়ে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন— একটি জাতি স্বাধীনতা পাওয়ার পর কীভাবে সরকার গড়ে তুলেছে। তখনকার পূর্ব বাংলার মানুষের দুরবস্থার কথাও বলেছেন বইটিতে। আরেকটি খুব বিশেষ দিক আমার নজরে আসে, একজন রাজনৈতিক নেতা অনেক নির্যাতন ভোগ করে সেদেশে গিয়ে সেই নির্যাতনের কথা বলেননি।

তিনি বলেন, আমরা বাঙালি, আমাদের ভাষা বাংলা, আমাদের দেশ বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ সংগ্রামের কারণে আমরা এ পরিচয় পেয়েছি। তিনি যখন কারাগারে ছিলেন, তখন আমার মা তাকে খাতা কিনে দিয়ে লিখতে উৎসাহ দিতেন। যেহেতু কারাগারে সেন্সর করে খাতা দেওয়া হতো, তারিখ দিয়ে দেওয়া হতো। সেই তারিখ থেকে জানতে পেরেছি আজ যে বইটার মোড়ক উন্মোচন করা হলো, সেটা সর্বপ্রথমে লেখা।

তিনি আরও বলেন, অমর একুশে বইমেলার মধ্য দিয়ে আমাদের শিল্প-সংস্কৃতিকে কেবল বাংলাদেশের মধ্যেই নয়, বিশ্ব দরবারে পৌঁছাতে চাই।

এবারের অমর একুশের গ্রন্থমেলা জাতির পিতার প্রতি উৎসর্গ এবং তাকে নিয়ে বই প্রকাশ করার জন্য বাংলা একাডেমিকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বিশেষ অতিথি ছিলেন। এতে জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান সভাপতিত্ব করেন।

এছাড়া বক্তব্য দেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশনা ও বিক্রেতা সমিতির সভাপতি আরিফ হোসেন ছোটন, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী। অনুষ্ঠানে মহান ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া, মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, বিদেশি কূটনৈতিক, বাংলা একাডেমির সদস্য, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক, লেখক, কবি, প্রকাশক এবং জ্যেষ্ঠ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী ২০১৯ সালের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ১০ কবি ও সাহিত্যিকের কাছে হস্তান্তর করেন। গ্রন্থমেলার উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন কবিতায় মাকিদ হায়দার, উপন্যাসে ওয়াসি আহমদ, প্রবন্ধ ও গবেষাণায় স্বরচিস সরকার, অনুবাদে খায়রুল আলম সবুজ, নাটকে রতন সিদ্দিকী, কিশোর সাহিত্যে রহিম শাহ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সাহিত্যে রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, বিজ্ঞান উপন্যাসে নাদিরা মজুমদার, ভ্রমণ সাহিত্যে ফারুক মইনউদ্দিন এবং লোকসাহিত্যে সাইমন জাকারিয়া।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email