বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বদরগঞ্জে শিক্ষার্থী রুমি হত্যাকারীর শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

রংপুর প্রতিনিধি : মেধাবী শিক্ষার্থী রুমাইয়া আকতার রুমি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ঘাতকদের খুঁজে বের করে শাস্তির দাবিতে বুধবার রংপুরের বদরগঞ্জে মানববন্ধন করা হয়েছে।

সাধারণ শিক্ষার্থী ঐক্য পরিষদের আয়োজনে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতশত শিক্ষার্থী, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মানববন্ধন করেন। রুমি হত্যাকাণ্ডে ঘাতকদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চেয়ে মানবন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক টুটুল চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক পলিন চৌধুরী, নাট্য ব্যক্তিত্ব নান্নু চৌধুরী, শিক্ষার্থী পলাশ, শাহিনুর রহমান, সাজু ইসলাম, রুমির মা-বাবা ও বোনসহ পরিবারের লোকজন।

উল্লেখ্য গত ১৬ ফেব্রæয়ারি রংপুর সদরের মমিনপুর এলাকায় তিস্তা ক্যানেলে বস্তাবন্দি অবস্থায় রুমির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রুমি বদরগঞ্জ পৌরশহরের মুন্সিপাড়ার বদরুজ্জামান বকুল ও রফিকা বেগম দম্পতির মেয়ে। সে পার্শ্ববর্তী দিনাজপুরের ফুলবাড়ি উপজেলার ফুলবাড়ি অনার্স কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিল।

পরিবার ও স্থানীয়দের সুত্রে জানা যায়, হত্যাকাণ্ডের ঘটনার আগের দিন ১৫ ফেব্রুয়ারি সকালে রংপুরে একটি প্রতিষ্ঠানে ট্রেনিং করার কথা বলে রুমি বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। ওই দিন রাতে সে আর বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবারের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দেয়। পরের দিন মমিনপুর এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তা ক্যানেলের পানিতে সাদা রঙের ইউরিয়া সারের বস্তার ভেতর একটি লাশ দেখে এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে পুলিশে খবর দেয়। পরে বস্তার মুখ খুলে রুমির লাশ উদ্ধার করা হয়। প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে দুর্বৃত্তরা রাতের কোনো এক সময় তাকে হত্যা করে লাশ পানিতে ফেলে রেখে যায় বলে ধারণা করা হয়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য উজ্জল মিয়া নামে একজনকে আটক করা হয়। তার বাড়ি বদরগঞ্জ পৌরশহরের বালুয়াভাটা এলাকায়।

বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, রুমি হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করতে দুই থানা পুলিশের মধ্যে সময় করা হচ্ছে।

সদর থানার ওসি এসএম সাজেদুর রহমান বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে। মোবাইল ফোনের সুত্র ধরে তথ্য বের করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email